,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

অস্থির দেশের মশলার বাজার

cow1নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে অস্থির দেশের মশলার বাজার। পর্যাপ্ত মজুদ থাকার পরও আমদানিকারক সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে পাইকারি ও খুচরা মশলার বাজার। এই গেল মাসেও কোরবানির অন্যতম অনুষঙ্গ মশলার দাম নিম্নমুখী ছিল। কিন্তু ঈদের বাড়তি চাহিদাকে পুঁজি করে প্রায় প্রতিদিনই দাম বেড়ে চলেছে।

দেশের সর্ববৃহৎ ভোগ্যপণ্যের বাজার খাতুনগঞ্জে কোনো কারণ ছাড়াই মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানে বিভিন্ন মশলার পাইকারি দাম পণ্যভেদে প্রায় ২৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। আর পাইকারি বাজারে দাম বাড়ার মারাত্মক প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারে। গত সপ্তাহের তুলনায় খুচরা বাজারে এসব মশলার দাম পণ্যপ্রতি কেজিতে ১৫-২০ টাকা করে বেড়েছে। এদিকে সরবরাহ সংকটের অজুহাতে পাইকারি পর্যায়ে ব্যবসায়ীরা মসলা পণ্যের দাম বাড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন খুচরা ব্যবসায়ী ও বাজার সংশ্লিষ্টরা। এ নিয়ে ক্রেতা ও ভোক্তা সাধারণের মাঝেও দেখা গেছে তীব্র প্রতিক্রিয়া।

রোববার খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারে দেখা যায়, মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় সবকটি মশলা পণ্যের দাম বেড়েছে। সবচেয়ে বেশি বেড়েছে আদা ও এলাচের দাম। এক সপ্তাহে আদার দাম বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। আর এলাচের দাম বেড়েছে প্রায় ২০০ থেকে ২৫০ টাকা। এছাড়া জিরার দাম বেড়েছে ৪০-৪৫ টাকা, দারচিনির দাম বেড়েছে ৩৫-৪০ টাকা, রসুনের দাম বেড়েছে ৩০-৩৫ টাকা এবং ধনিয়ার দাম বেড়েছে ২৫-৩০ টাকা। অন্যদিকে মরিচ, হলুদ, লবণ ও পিয়াজের দাম বেড়েছে পণ্যভেদে ১০-২০ টাকা। পাইকারি বাজারে মশলা পণ্যের দাম প্রসঙ্গে জানা যায়, প্রতিকেজি কাঁচা আদার (চায়না) দাম ১২০-১২৫ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০-৬৫ টাকা। আর দেশি আদার দাম ১১০-১২০ টাকা। প্রতিকেজি রঙ এলাচের (অস্ট্রেলিয়ান) দাম মানভেদে ৯০০-১০০০ টাকা। যা গত সপ্তাহের্ ছিল ৭৭০-৮০০ টাকা। মানভেদে প্রতিকেজি জিরার (সিরিয়া) দাম পড়ছে ৩৪০-৩৫০ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০০-৩২৫ টাকা। দারচিনির দাম কেজিপ্রতি ২২০-২৩০ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ১৯০-২০০ টাকা। রসুনের কেজি ১৬৫-১৭০ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ১৪০-১৪৫ টাকা। এছাড়া দেশি মরিচের কেজি ১৯০-২০০ টাকা, ভারতীয় মরিচের কেজি ১৬৫-১৭০ টাকা এবং গোল মরিচের কেজি ১২০০-১২৫০ টাকা। যা গত সপ্তাহের তুলনায় ১৫-২০ টাকা করে বেড়েছে। দেশি (বিনি) হলুদের কেজি ১৫০-১৬০ টাকা, ভারতীয় হলুদ ১১৮-১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল।অপরদিকে লবণের দাম প্রতিকেজি ২৫-৪০ টাকা এবং সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ৯০-৯৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল।

কোন ধরনের যৌক্তিক কারণ ছাড়াই এভাবে বাড়তি চাহিদাকে পুজি করে মশলা পণ্যের দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে খাতুনগঞ্জের ডি.আর ট্রেডার্সের মালিক মোঃ রাশেদুল আলম চৌধুরী বলেন, চাহিদা বেশি থাকলে পণ্যের দাম স্বাভাবিকভাবেই একটু বাড়ে। প্রত্যেক ব্যবসায়ীদের কাছে এটা একটা ব্যবসার মৌসুম। তবে লাভের মাত্রাটা যাতে সাধারণ ক্রেতাদের কাছে সহনীয় পর্যায়ে থাকে সেটা সবসময় আমরা চাই। যেহেতু মশলা পণ্য অনেকটাই আমদানি নির্ভর সে কারণে অনেক সময় আন্তর্জাতিক বাজার ও কিছু অসাধু আমদানিকারকদের সাথে পাল্লা দিয়ে আমরা ঠিকমত পেরে উঠি না।

চাক্তাই-খাতুনগঞ্জ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও আল মদিনা ট্রেডার্সের এহসান উল্লাহ জাহেদ বলেন, মশলা পণ্যের দাম ও সরবরাহ খুব বেশি হেরফের হয়নি। বরং অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার দাম অনেক কম। তাছাড়া পণ্যের সরবরাহ পর্যাপ্ত থাকায় আমাদের সমিতির পক্ষ থেকে নোটিশ দিয়ে দেয়া হয়েছে যেন দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখা হয়। এরপরেও যদি কেউ বাড়তি দাম রাখে তবে অভিযোগ পেলে আমরা ব্যবস্থা নেব।

পাইকারি বাজারে মশলা জাতীয় পণ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে খুচরা বাজারে মারাত্মক প্রভাব পড়েছে। ফলে পণ্যভেদে কেজি প্রতি ক্রেতা সাধারণকে ১০-২০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি গুণতে হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে বহদ্দারহাট এলাকার মেসার্স শরীফ এ্যান্ড সুলতানের মালিক বলেন, মশলা পণ্যের দাম বৃদ্ধি বিষয়টি সঠিক হলেও এখানে খুচরা বিক্রেতাদের কোন হাত নেই। ঈদের পর থেকেই প্রায় সব ধরনের মসলার দামই কিছুটা বেড়েছে। কিন্তু কোরবানিকে উপলক্ষ করে পাইকারি ও আমদানিকারকরা বাড়তি লাভের আশায় দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। অন্যদিকে ক্রেতারা বলছেন, শুধুমাত্র ব্যবসায়িক মুনাফা বৃদ্ধির অসাধু উদ্দেশ্যে মশলার দাম বাড়ানো হয়েছে। বহির্বিশ্বে যেখানে ধর্মীয় উৎসবের সময় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম কমিয়ে দেয়। কিন্তু আমাদের দেশের ব্যবসায়ীরা বরং ব্যবসার মোক্ষম সুযোগ হিসেবে এসব মৌসুমকে বেছে নেয়।

মতামত...