,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

আল্লামা শাহ আবদুল জব্বার (রাহ) দেশে সুদবিহীন ব্যাংক প্রতিষ্ঠার প্রবক্তা

aনিজস্ব প্রতিবেদক,  বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ  বায়তুশ শরফ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশের উদ্যোগে বায়তুশ শরফের প্রধান রুপকার হাদীয়ে জামান, মুর্শিদে বরহক আল্লামা শাহ আবদুল জব্বার (রাহ:) এর ১৮ তম ওফাত বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণ সভা ও দোয়ার মাহফিলে বক্তাগণ বলেছেন, শাহ আবদুল জব্বার (রহ:) মুধু গতানুগতিক ধারার পীর ছিলেন না। তিনি মুসলিম উম্মাহর ঐক্য সাধান ও ইসলামী ভাবধারার আলোকে আদর্শ সুনাগরিক তৈরীর ক্ষেত্রে প্রচেষ্টা চালিয়েছেন এবং দ্বীনি ও আধুনিক শিক্ষার সমন্বয়ে প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজিয়ে সমাজ ও রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ পদে নেতৃত্ব দেবার মত সুদক্ষ ও তাকওয়াবান মানুষ তৈরীর লক্ষে াধুনিক পদ্ধতির ইসলামী শিক্ষার বিস্তারে অসংখ্য মাদ্রাসা সহ বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন।
বক্তাগন আরো বলেন, শাহ াবদুল জব্বার (রাহ:) মেহনতী মানুষের রক্ত চোষা সুদকে বিতারিত করে সুদবিহীন শরীয়াহ সম্মত ইসলামী অর্থ ব্যবস্থার আলোকে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লি: প্রতিষ্ঠায় মুখ্য ভুমিকা রেখেছেন। অন্যদিকে মানুষের আধ্যাত্বিক, নৈতিক মান উন্নয়ন, ঈমানী দৃঢ়তা ও চারিত্রিক পরিশুদ্ধির জন্য জিকির মাহফিল ও মসজিদ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করে দিয়েছিলেন যা ইতিহাসে স্বণাক্ষরে লিখা থাকবে।

বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ ড. সাইয়্যেদ মাওলানা আবু নোমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় অন্যান্যে মধ্যে বক্তব্য রাখেন বায়তুশ শরফ ইসলামী গবেষনা প্রতিষ্ঠানের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. শব্বির আহমদ, আনজুমনে ইত্তেহাদের সিনিয়র সহসভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ আমানউল্লাহ খান, আলহাজ্ব মীর মো: আনোয়ার, মজলিসুল ওলামা বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা মামুনুর রশীদ নুরী, আলহাজ্ব মাওলানা কাজী নাছির উদ্দিন, বায়তুশ শরফ কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব মাওলানা নুরুল ইসলাম, মাওলানা কাজী জাফর আহমদ, শাহজাদা মাওলানা আবদুল হাই নদভী, শ্যামলী জামে মসজিদের খতিব মাওলানা হাফেজ আবুল কালাম আজাদ, অধ্যক্ষ মাওলানা শফিক আহমদ নঈমী, মাওলানা নুরুল হুদা আল কাদেরী, মাওলানা নুরুল আলম, মাওলানা সৈয়দ নুর, মাওলানা মোহাম্মদ মুছা, আলহাজ্ব হেলাল হুমায়ুন, চৌধুরী গোলাম রব্বানী, খাদেম রসুল ভুইয়া, হাফেজ আমান উল্লাহ, মাষ্টার জাফর উল্লাহ, মাহবুবুর রহমান প্রমুখ। স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল উপলক্ষ্যে সারাদিন ব্যাপী কর্মসূচীর মধ্যে বাদ ফজর খতমে কোরআন, খতমে বোখারী, খতমে তাহলিল, খতমে খাজেগান, জীবনী সম্পর্কে আলোচনা সভা, দরুদ, মিলাদ, মুনাজত ও তাবারুক বিতরণের মধ্যদিয়ে সমাপ্তি করা হয়।

মতামত...