,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

ইউপি নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরু

voterনাছির মীর, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ প্রথমবারের মতো দলীয়ভাবে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে । ইউপি নির্বাচনে  ভোটার ও প্রার্থীদের মধ্যে  উথসবের আমেজ   বিরাজ করছে । সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ৭১৭ ইউপিতে টানা ভোটগ্রহণ চলবে। নির্বাচনে ১৪টি রাজনৈতিক দল অংশ নিলেও জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের মূল লড়াই হচ্ছে আওয়ামী লীগের নৌকা ও বিএনপির ধানের শীষের মধ্যে।

নির্বাচনী এলাকায় মাঠে টহলে রয়েছে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ, কোস্ট গার্ড ও আনসারসহ এক লাখ ৮০ হাজারের বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তাৎক্ষণিক সাজা দিতে সঙ্গে রয়েছে নির্বাহী ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট।

প্রথম ধাপের ইউপি নির্বাচনের ভোটগ্রহণের সময় ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে নির্বাচনী পরিবেশ।   ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও রিটার্নিং কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে শুধু নির্দেশনা পাঠিয়েছে ইসি।

 

ভোটের পরিবেশ নিয়ে সোমবার (২২ মার্চ) প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ জানান, প্রথমধাপের ভোটের জন্য সব প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। ব্যালট পেপার, স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সসহ নির্বাচনী সামগ্রী কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ নির্বাচনী কর্মকর্তারা অনিয়ম ঠেকাতে সজাগ থাকবে। ভোটের সময়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কেউ অনিয়ম ও পক্ষপাতমূলক আচরণ, দায়িত্বে অবহেলা করলে তাৎক্ষণিক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।
ইউপিতে প্রথম ধাপে ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগের ৫৪ জন চেয়ারম্যান, ১৭৯ জন সাধারণ সদস্য ও ৫৪ জন সংরক্ষিত সদস্য পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

আজকের ভোটে তিন হাজার ৩৪ জন চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য পদে ২৫ হাজার ৮৪৭ জন ও সংরক্ষিত সদস্য পদে সাত হাজার ৫৭৫ জন প্রার্থী রয়েছেন। সবমিলিয়ে মোট প্রার্থী ৩৬ হাজার ৪৫৬ জন।

নির্বাচনে ভোটার এক কোটি ১৯ লাখ ৪০ হাজার ৭৪১ জন। পুরুষ ভোটার ৫৯ লাখ ৯৫ হাজার ২৬৯ জন এবং নারী ৫৯ লাখ ৪২ হাজার ৬৯৪ জন। ছয় হাজার ৯৮৭টি ভোটকেন্দ্র; ভোটকক্ষ ৩৮ হাজারের বেশি। ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা প্রায় এক লাখ ২১ হাজার ২০০ জন।
আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে মাঠে রয়েছে বিভিন্ন বাহিনীর এক লাখ ৮০ হাজার সদস্য। একইসঙ্গে ৩৪ জেলার ১০১টি উপজেলায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের পাশাপাশি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটরাও অপরাধ তদারকিতে মাঠে রয়েছেন। উপকূলীয় এলাকায় কোস্ট গার্ড অন্য সকল এলাকায় বিজিবি রয়েছে। প্রতি ইউনিয়নে পুলিশ, এপিবিএন ও ব্যাটালিয়ন আনসার সমন্বয়ে একটি করে মোবাইল এবং স্ট্রাইকিং ফোর্স রয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশনা সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করা হয়েছে। প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে ২০ জন করে নিরাপত্তা সদস্য নিয়োজিত রাখা হচ্ছে এবার। ভোটের আগের দুই দিন থেকে ভোটের পরদিন পর্যন্ত চারদিন থাকবে তারা। পরিস্থিতি বিবেচনায় কেন্দ্রভিত্তিক নিরাপত্তা সদস্য বাড়াবে স্থানীয় প্রশাসন।

পুলিশ মহাপরিদর্শক এ কে এম শহিদুল হক বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমকে বলেন, ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠু করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে।  সহিংসতার ঘটনায় এ পর্যন্ত ৫৫টি সাধারণ ডায়েরি ও ১৪৩টি মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৯৫ জনকে। তবে সরাসরি কোনো প্রার্থীকে গ্রেপ্তার করা হয়নি বা তাদের বিরুদ্ধে মামলাও হয়নি।
ইউপি নির্বাচন ভোটগ্রহণ ও গণনা শেষে দ্রুত ফলাফল পাঠাতে রিটার্নিং অফিসারদের বিশেষ নির্দেশনা পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।  পাশাপাশি ভোটগ্রহণ শেষে ফলাফল ঘোষণা ও পরবর্তী সময়ে যাতে সহিংসতার সৃষ্টি না হয় সেদিকে দৃষ্টি রাখতে বলা হয়েছে।

 

 

বি এন আর/০০১৬০০৩০০২২/০০০৩৫৬/এস

মতামত...