,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

ইসলামিয়া কলেজ অধ্যক্ষকে বের করে দিয়ে কক্ষে তালা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::মেয়াদ শেষের পরও পদ আগলে থাকায় ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষের কক্ষে তালা দিয়ে অধ্যক্ষকে কলেজ থেকে বের করে দিয়েছেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

শনিবার সকালে এই ঘটনা ঘটেছে। আন্দোলনকারীদের অভিযোগ দেড় বছর আগে মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও দায়িত্ব হস্তান্তরের জন্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাঠানো নির্দেশনা অমান্য করে অধ্যক্ষ মো. রেজাউল কবির পদ আগলে রেখেছেন অভিযোগ করে তারা বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী একজন শিক্ষককে ৬০ বছর বয়সে অবসরে যেতে হয়। পরে তিনি দুই বছর করে দুই বার ও এক বছরের জন্য চাকুরির মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদন করতে পারেন।

২০১১ সালের ৩০ জুন রেজাউল কবিরের চাকুরির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর দুই বছর করে দুইবার ও পরবর্তীতে এক বছর চাকুরির মেয়াদ বৃদ্ধি করিয়ে নেন। সে হিসেবে গত বছরের ৩০ মে তার চাকুরির মেয়াদ পুরোপুরি শেষ হয়ে যায়। চাকুরির মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও অধ্যক্ষ দায়িত্ব হস্তান্তর না করায় গত ২৪ সেপ্টেম্বর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাকে চিঠি দিয়ে দায়িত্ব হস্তান্তরের নির্দেশনা দেয়া হয়।

গত ২৪ সেপ্টেম্বর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত কলেজ পরিদর্শক ড. মো. মনিরুজ্জামান স্বাক্ষরিত চিঠিতে গত বছরের ৩০ মে দায়িত্ব শেষ হওয়ায় কলেজের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কলেজের উপাধ্যক্ষ কিংবা জ্যেষ্ঠতম কোনো শিক্ষককে দায়িত্ব দিয়ে অবহিত করতে বলা হয়। ২০১৩ সালের জুলাই মাস থেকে অধ্যক্ষ রেজাউল কবিরের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা ও আর্থিক অনিয়মের অভিযোগে আন্দোলন শুরু করে ইসলামিয়া কলেজের ‘ছাত্র–ছাত্রী সংগ্রাম পরিষদ’। মাঝে কিছুদিন তা কম থাকলেও সা¤প্রতিক সময়ে শিক্ষক–অভিভাবক–কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে অধ্যক্ষের অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন করা হয়।  শনিবার সকাল ১০ টার পর কলেজের শিক্ষক–শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা প্রথমে অধ্যক্ষকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। এরপর কলেজের ভেতরের গেটে ও অধ্যক্ষের কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে অধ্যক্ষকে কলেজ থেকে বের করে দেন। আজ রবিবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত মানববন্ধন করে শিক্ষকরা সবাই মিলে পরবর্তী করণীয় ঠিক করবেন বলে জানানো হয়েছে।বিএনআর,৭ অক্টোবর ১৭।

মতামত...