,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

এইচ টি ইমামকে তারেকের উকিল নোটিস

HT-IMAM_Tareqনিজস্ব প্রতিবেদক,  বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ ঢাকা,   বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেকের পক্ষে ব্যারিস্টার কায়সার কামাল সোমবার রেজিস্ট্রি ডাকে এইচ টি ইমামের দুই ঠিকানায় ওই নোটিস পাঠান।

নোটিসে দুই সপ্তাহের মধ্যে ওই বক্তব্যের সত্যতা প্রমাণ করতে অথবা জনসম্মুখে তারেক রহমানের কাছে ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে।

তা না করলে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এইচ টি ইমামের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ার করা হয়েছে নোটিসে।

পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে নোটিসে বলা হয়, “১৯ মার্চ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনে কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এইচ টি ইমাম বলেন, ‘সরকারের কাছে সুস্পষ্ট তথ্য আছে, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান লন্ডন থেকে কয়েকবার পাকিস্তানে গেছেন। সেখানে তিনি আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী দাউদ ইব্রাহিমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন’।”

 

আরেকটি পত্রিকার প্রতিবেদন উদ্ধৃত করে নোটিসে বলা হয়, “এইচ টি ইমাম বলেছেন, ‘খালেদা জিয়া লেডি লাদেন। তার ছেলে সম্পর্কে তো সবাই জানে। যে ব্যক্তি দাউদ ইব্রাহিমের মতো একজন আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসীর সঙ্গে ওঠাবসা করতে পারে… আমাদের কাছে তথ্য আছে, সে কয়েকবার  লন্ডন থেকে পাকিস্তান এসেছে’।”

উকিল নোটিসে বলা হয়, তারেক রহমানকে সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে ‘হেয় করার উদ্দেশ্যে’ এইচ টি ইমাম ওই মন্তব্য করেছেন।

জরুরি অবস্থায় গ্রেপ্তার এবং জামিনে মুক্তির পর ডজন খানেক মামলা মাথায় নিয়ে গত আট বছর ধরে যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন বিএনপিনেত্রী খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান।

সম্প্রতি বিএনপির ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে তাকে জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান পদে পুনর্নির্বাচিত করা হয়। গত শনিবার কাউন্সিলে তারেকের রেকর্ড করা বক্তব্যের একটি ভিডিও প্রচার করা হয়।

বলা হয়, ২০০১ সালে খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে তারেক নিয়ন্ত্রিত হাওয়া ভবন সরকার পরিচালনার ‘দ্বিতীয় কেন্দ্র’ হয়ে উঠেছিল। আওয়ামী লীগ নেতাদের ভাষায়, তখন হাওয়া ভবনের ইশারা ছাড়া কোনো কাজ হতো না।

লন্ডনে তারেক বিভিন্ন সভা-সমাবেশে সক্রিয় থাকলেও বাংলাদেশের ইতিহাসের মীমাংসিত কিছু বিষয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে তার বক্তব্য প্রকাশে হাই কোর্টের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

 

 

বি এন আর/০০১৬০০৩০০২১/০০০৩৪৭/এস

মতামত...