,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

এয়ারপোর্টে ৩০হাজার কেজি স্বর্ণ আটক

sangsadনিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা , বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম::   অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, বিমানবন্দরে গত ৩ বছরে সর্বমোট ২৯৪৪.২০৮ কেজি স্বর্ণ আটক করা হয়েছে। তিনি আজ সংসদে সরকারি দলের সদস্য শামিম ওসমানের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আটককৃত স্বর্ণের মধ্যে ২০১৩ সালে ৬২০.৪১ কেজি, ২০১৪ সালে ১৫৩৯.৬২৮ কেজি এবং ২০১৫ সালে ৭৮৪.১৭ কেজি স্বর্ণ আটক করা হয়েছে। তিনি বলেন, বিমানবন্দর, কাস্টম হাউস বা কাস্টমস স্টেশনে সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিনিধির উপস্থিতিতে আটককৃত স্বর্ণ ও বৈদেশিক মুদ্রা গণনা করে পুলিশ প্রহরায় বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা করা হয়। আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, স্বর্ণ ও মুদ্রা চোরাচালান রোধে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরসহ সকল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ কর্তৃক তদারকি বৃদ্ধি, গোপন সংবাদের মাধ্যমে মুদ্রা ও স্বর্ণ চোরাচালান রোধে আকস্মিক অভিযান পরিচালনা, দেশী-বিদেশী কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ও গোয়েন্দা সংস্থার সাথে তথ্য আদান-প্রদানের মাধ্যমে চোরাচালান প্রতিরোধে কার্যক্রম চলমান রয়েছে। তিনি বলেন, গৃহীত এসব কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় বর্তমান সময়ে স্বর্ণ ও মুদ্রা চোরাচালান বহুলাংশে হ্রাস পেয়েছে।

নিবন্ধিত করদাতার সংখ্যা প্রায় ১৮ লাখ

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, বর্তমানে দেশে নিবন্ধিত করদাতার সংখ্যা প্রায় ১৮ লাখ এরমধ্যে সাড়ে ১১ লাখ করদাতা আয়কর রিটার্ন দাখিল করে থাকেন। তিনি আজ সংসদে সরকারি দলের সদস্য বেগম পিনু খানের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন। জাতীয় পার্টির সদস্য সেলিম উদ্দিনের এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, চলতি অর্থবছরের ডিসেম্বর’১৫ পর্যন্ত রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭৭ হাজার ৯৮ কোটি টাকা। আদায় হয়েছে ৬৮ হাজার ৮৩ কোটি টাকা, যেখানে বিগত বছরে আদায় হয়েছিল ৫৯ হাজার ৯৪ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ১৫.২১ শতাংশ।

জাসদের সদস্য বেগম শিরীন আখতারের এক প্রশ্নের জবাবে আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, চলতি অর্থবছরে (জুলাই-ডিসেম্বর, ২০১৫) সারাদেশে ক্ষুদ্র শিল্পে বিতরণকৃত শিল্প ঋণের পরিমাণ ৪ হাজার ৭৮৪.৮৫ কোটি টাকা। শিরীন আখতারের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বর্তমান সময়ে ২০১৬ সালের ৩১ জানুয়ারিতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ২৭ হাজার ১৩৮ দশমিক ৯১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

জাতীয় পার্টির সদস্য মো. শওকত চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, চলতি অর্থবছরের ৩১ ডিসেম্বর’১৫ পর্যন্ত দেশের উন্নয়ন কাজে বিভিন্ন দাতাদেশ সংস্থার সাথে বৈদেশিক সহায়তা বাবদ ১ হাজার ৪৬৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ প্রায় ১১ হাজার ৭৩৬ কোটি টাকার চুক্তি (কমিটমেন্ট) স্বাক্ষরিত হয়েছে। এরমধ্যে অনুদান বাবদ ১৫৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ প্রায় ১ হাজার ২৭০ কোটি টাকা এবং ঋণ বাবদ ১ হাজার ৩০৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ প্রায় ১০ হাজার ৪৬৬ কোটি টাকা। তিনি বলেন, বিভিন্ন দাতাদেশ ও সংস্থা থেকে একই সময়ে ডিসবার্সমেন্ট হয়েছে ১ হাজার ৫৯৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ প্রায় ১২ হাজার ৭৪৪ কোটি টাকা। এরমধ্যে অনুদান বাবদ ২৯৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং ঋণ বাবদ ১ হাজার ২৯৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

সরকারি দলের আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিমের এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের ২০০২-২০০৬ সালে মোট ১৯ হাজার ৩৩৩ দশমিক ৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিটেন্স আহরিত হয়েছিল। অপরদিকে বর্তমান আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের প্রথম ৫ বছর এবং দ্বিতীয় মেয়াদের দুই বছরসহ মোট সাত বছরে মোট প্রবাসী রেমিটেন্সের পরিমাণ ৯২ হাজার ১৫৯ দশমিক ২৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

 

বিএনআর/১৬২৮//০০১৪ /এস

 

মতামত...