,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

কওমী স্বীকৃতি দেয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন ইসলামী ঐক্যজোটের

নাছির মীর, ১৮ এপ্রিল, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রনে দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির আল্লামা শাহ আহম্মদ শফির নেতৃত্বে তিনশতেরও অধিক খ্যাতিমান আলেম নিয়ে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর মতবিনিময়ে প্রধান অথিতি কর্তৃক কওমী মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসের সনদকে মাস্টার্স (এমএ) এর মান দেওয়ায় ইসলামী ঐক্যজোট চট্টগ্রাম মহানগরের উদ্যোগে মঙ্গলবার মহানগর সভাপতি মাওলানা মঈনুদ্দীন রুহীর নেতৃত্বে আনন্দ ও শুকরিয়া মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে এসে শেষ হয়। মিছিল পূর্বক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন-মহানগর সেক্রেটারী মাওলানা হাজী মোজাম্মেল হক, মহানগর সহ-সভাপতি মাওলানা ক্বারী মুবিনুল হক, মাওলানা ক্বারী ইদ্রিছ, মাওলানা মোহাম্মদ আলী, মাওলানা আমিন শরীফ, মাওলানা মুফতি আবদুল ওয়াদুদ নোমানী, মাওলানা আব্দুল মাবুদ, মাওলানা হাফেজ ফয়সাল, মাওলানা জয়নাল আবেদীন কুতুবী, মহানগর যুগ্ম সেক্রেটারী আ.ন.ম আহম্মদ উল্লাহ, মাওলানা অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ইউনুচ, মাওলানা জোনায়েদ জওহর, মাওলানা আবু তাহের ওসমানী, মাওলানা ইকবাল খলিল, মাওলানা ইয়াছির মোহাম্মদ আরিফ, মাওলানা রফিকুল ইসলাম বোয়ালী, মাওলানা আব্দুর রহমান, মাওলানা ইউছুপ, মাওলানা ওসমান কাশেমী, মাওলানা নাজমুস শাকিব, মাওলানা আইয়ুব, মাওলানা ফোরকানুল্লাহ, মাওলানা আবুল কাসেম প্রমুখ।

প্রধান অথিতির বক্তব্যে মাওলানা মঈনুদ্দীন রুহী বলেন- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন কওমী মাদ্রাসার সনদকে দাওরায়ে হাদিসের সনদকে এম.এ মান ঘোষনা করেছে তখনই জনবিচ্ছিন্ন ইনু, মেনন, বাদলসহ মাজার পুজারীরা আদা জল খেয়ে মাঠে নেমেছে। এদের প্রতি জনগণের কোন আস্তা নেই। এরা হালুয়া, রুটি, লাল ভাতের পেট পুজারী। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু হত্যার সাথে ইনু মেননের হাত রয়েছে। তারা সেইদিন উল্লাস করেছিল। দুঃখের বিষয় এই ইনু, মেনন, বাদলরাই আজ আওয়ামীলীগের দয়াই মন্ত্রী থেকে এমপি হয়েছে। এসব জনবিচ্ছিন্ন ও প্রসিদ্ধ খুনিদের অবিলম্বে মন্ত্রী পরিষদ থেকে বাদ দিতে হবে। জনাব রুহী আরো বলেন-সুন্নী নামধারী মাজার পুজারীরা আমাদের দেশে নাস্তিকদের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস রাখেনা। রসুলের বিরোধীতাকারীদের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে না। কাদিয়ানী ও ধর্মদ্রোহীদের বিরুদ্ধে কথা বলে না। তারা শুধু নায়েবে রসুল আলেম, ওলামাদের বিরুদ্ধে মাঠ গরম করে থাকে। এরা মুলত সা¤্রাজ্যবাদী ও নাস্তিক্যবাদীদের এজেন্ট। কওমী সনদের সরকারী স্বীকৃতি হওয়ায় সুন্নী নামধারী মাজার পুজারীদের ধান্দাবাজী কমে যাওয়ার ভয়ে তারা এখন লাফালাফি করছে। মাওলানা হাজী মোজাম্মেল হক বলেন-প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন গ্রীক মূর্তি সরাবেন, কিন্তু আমরা দেখছি আজকাল গ্রীক মূর্তির পক্ষে একশ্রেনীর দালালচক্র সাফায় গাইছে। অবিলম্বে মূতি সরান না হলে হাইকোর্ট চত্বরে অবস্থান কর্মসূচীর ডাক দেওয়া হবে।

মতামত...