,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

কক্সবাজারের রামুর বাঁকখালী নদীতে ভাসাছে দৃষ্টিনন্দন ৬ কল্পজাহাজ

c
নিজস্ব প্রতিবেদক,বিডিনিউজ রিভিউজঃ  কক্সবাজারের রামুর বাঁকখালী নদীর দু’পাড়ে হাজার হাজার নর-নারীর সম্মিলনে নদীতে ভাসানো হয় দৃষ্টিনন্দন ছয়টি কল্পজাহাজ। উপজেলার ছয় বৌদ্ধ গ্রাম থেকে ধর্মীয় ও উৎসব আমেজে জাদি ও বিহারচূড়ার সাথে হাতি, ড্রাগন, স¤্রাট অশোকের প্রতিকৃতি ফুটিয়ে তোলা কল্পজাহাজ সোমবার ১৭ আক্টোবর দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত উচ্ছল আনন্দে বাঁকখালী নদীতে ভাসানো হয়। বাঁশ, বেত, কাঠ, কাগজ দিয়ে অপূর্ব কারুকাজে ছয়-সাতটি নৌকা একত্র করে নির্মাণ করা হয় ছয়টি কল্পজাহাজ। ‘সম্প্রীতির জাহাজে, ফানুসের আলোয় দূর হোক সাম্প্রদায়িক অন্ধকার’ এ শ্লোগানে রামুর বাঁকখালী নদীতে শিশু-কিশোর ও যুবকদের জলকেলী ও বাঁধভাঙা আনন্দে নানা বাদ্য বাজিয়ে নেচে- গেয়ে মুখর হয়ে উঠে পুরো উৎসবস্থল। কল্পজাহাজে আরোহিরা বুদ্ধ কীর্তন ‘বুদ্ধ ধর্ম সংঘের নাম সবাই বলো রে’ বুদ্ধের মতো এমন দয়াল আর নাইরে, সহ নানা বৌদ্ধ কীর্তন করতে করতে উচ্ছ্বাস-আনন্দে মেতে উঠে।

জাহাজ ভাসানো উৎসবে উদ্বোধক ও আর্শীবাদকের বক্তব্য রাখেন, বুদ্ধিষ্ট ফেডারেশনের যুগ্ম-সম্পাদক, ঢাকা আর্ন্তজাতিক বৌদ্ধ বিহারের উপাধ্যক্ষ ভিক্ষু সুনন্দ প্রিয় থের।

বিকাল সাড়ে ৩টায় বাঁকখালী নদীর পাড়ে জাহাজ ভাসানো উৎসব উপলক্ষে আয়োজিত সম্প্রীতি সভায় প্রধান অতিথি রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম বলেছেন, সম্প্রীতির তীর্থস্থান রামু। রামুর মানুষ এ অঞ্চলের বৌদ্ধ জনগোষ্ঠীর সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে শত বছর আগে থেকে বাঁকখালী নদীতে কল্পজাহাজ ভাসানো উৎসব উদযাপন করে আসছে। এ সম্প্রীতি প্রমাণ করে দেয় রামুর মানুষ শান্তিপ্রিয় ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বাসী।

এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাহজাহান আলী, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নিকারুজ্জামান, ভাইস চেয়ারম্যান মো. আলী হোসেন, রামু থানা অফিসার ইনচার্জ প্রভাষ চন্দ্র ধর, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বাবুল শর্মা, কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাহেদ সরওয়ার সোহেল, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম, রামু কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ ঐক্য ও কল্যাণ পরিষদ সভাপতি প্রবীর বড়–য়া ও সম্পাদক তরুন বড়–য়া, উপজেলা যুবলীগ সম্পাদক নীতিশ বড়–য়া, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ আহ্বায়ক তপন মল্লিক প্রমুখ।

উদযাপন পরিষদের সভাপতি পলক বড়–য়া আপ্পু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, পরিষদের সাধারণ সম্পাদক স্বপন বড়–য়া। সভা সঞ্চালনা করেন, সহ-সভাপতি দীপংকর বড়–য়া ধীমান ও সমন্বয়ক সাংবাদিক অর্পণ বড়–য়া।
জাহাজ ভাসানো উৎসব উদযাপন পরিষদের সভাপতি পলক বড়–য়া আপ্পু বলেন, সম্প্রীতি উৎসবে রামু উপজেলার মধ্যম মেরংলোয়া, পূর্ব রাজারকুল, হাজারীকুল, হাইটুপী রাখাইনপাড়া, হাইটুপী বড়–য়াপাড়া ও হাজারীকুল গ্রাম থেকে বৌদ্ধ যুবকরা এসব কল্পজাহাজ বাঁকখালী নদীতে নিয়ে আসে। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সাথে অন্যান্য সম্প্রদায়ের লোকজনও এ আনন্দ-উৎসবে অংশ নেয়। রামুর বাঁকখালী নদী পরিণত হয়, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মহামিলন মেলায়।

মতামত...