,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

কক্সবাজারে মেহেদীর দাগ না শুকাতেই যৌতুকের দাবীতে হাসিনা খুন

a1কক্সবাজার সংবাদদাতা, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ কক্সবাজার সরকারি কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের ৩য় বর্ষের মেধাবী ছাত্রী হাসিনা আকতার মেহেদীর দাগ না শুকাতেই স্বামী ও শ্বশুড়বাড়ির যৌতুকের বলি হলেন। দরিদ্র পরিবারের মেধাবী মেয়ে হাসিনাকে গত ২৯ মার্চ কৌশলে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ তার পরিবারের। ঘটনার পর হাসিনার নিথর দেহ ঝুলিয়ে রেখে ‘আত্মহত্যা’ বলে প্রচার করা হয়।

এ ঘটনায় বুধবার রাতে স্বামী ইয়াছিন আরাফাতকে প্রধান আসামি করে ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন নিহত হাসিনার বড়ভাই জাকির হোসেন ( মামলা নং জিআর-৮৩/২০১৬)। মামলার অন্যান্য আসামিরা হলেন- দেবর জাহেদুল ইসলাম, শ্বশুর মোস্তাক আহমদ, শ্বাশুড়ি হোসনে আরা বেগম ও জা রেবেকা বেগম। নিহত হাসিনা কক্সবাজার কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল সংলগ্ন নাপ্পাজা পাড়ার মৃত আব্দুল মোনাফের মেয়ে।

 হাসিনার পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত ২৫ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার সদর উপজেলার চৌফলদণ্ডীর মধ্যম মাইজপাড়া এলাকার মোস্তাক আহমদের ছেলে ইয়াছিন আরাফাতের সাথে হাসিনার বিয়ে হয়। বিয়ের আগে বরের চাহিদা মতো মোটর সাইকেল,  ফুলসেট ফার্নিচার ও ৩ ভরি স্বর্ণালঙ্কার প্রদান করে হাসিনার পরিবার। কিন্তু বিয়ের পর আবারো ৫ লাখ টাকা দাবি করে বর ইয়াছিন আরাফাত। এ নিয়ে হাসিনাকে অনেকবার শারীরিক-মানসিক নির্যাতন করে স্বামী ইয়াছিন। বিয়ের এক মাসে অন্তত দশবার মারধর করেছে হাসিনাকে। পারিবারিক অর্থ দৈন্যতায় এ খবর মা-বাবাকে বলেনি হাসিনা। এরপরও স্বামীর বর্বর নির্যাতন সহ্য করে সংসার জীবনের সুখ খোঁজে হাসিনা। কিন্তু পাষণ্ড স্বামী থামেনি। যৌতুক দাবিতে নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। এক পর্যায়ে মারধরে মারা যায় হাসিনা।

হাসিনার বড়ভাই জাকির হোসেন বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমকে বলেন, ২৯ মার্চ বেলা আড়াইটার দিকে হাসিনার স্বামী ইয়াছিন আরাফাত ফোন করে জানায়- ‘তোমার বোনের কি হয়েছে জানিনা, বিছানায় পড়ে আছে, উঠছেনা।’ এ কথা শুনার পর আমি তার বাড়িতে গিয়ে দেখি- আমার বোন শয়ন কক্ষের একটি খাটের ওপর বাম পা বাঁকানো অবস্থায় এবং ডান পা পড়ন্ত টি টেবিলের খুঁটির সাথে ঝুলছে। পরে খবর পেয়ে এ অবস্থা থেকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনার পরই ঘাতক স্বামীসহ পরিবারের সদস্যরা পালিয়ে যায়। ফলে পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি। কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি মো. আসলাম হোসেন জানান, ঘাতক স্বামীসহ আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

বি এন আর/০০১৬/০০৪/০০০৪৭০৫/এস

মতামত...