,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

কক্সবাজার ও রামুর বৌদ্ধ মন্দির পরির্দশনে বিভিন্ন দেশের সেনা কর্মকর্তারা

aআবদুর রাজ্জাক,কক্সবাজার সংবাদদাতা, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ বিভিন্ন দেশ প্রতিরক্ষায় উচ্চতর ডিগ্রীর কোর্সের অংশ হিসেবে বাংলাদেশ ঢাকা ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের সিনিয়র ডাইরেক্টিং স্টাফ রিয়ার এডমিরাল মো. আনোয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে সৌদি আরব, কাতার, জর্দ্দান, ব্রুনায়,আরব আমিরাত, ভারত, পাকিস্তান, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, শ্রীলংকা, কানাডা, নাইজেরিয়ার সেনা কর্মকর্তাসহ বাংলাদেশের শতাধিক ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্সের সদস্যরা ২৭ মে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ ঘটিকায় কক্সবাজারের রামুর বৌদ্ধ মন্দিরের বিভিন্ন স্থাপত্য পরিদর্শন করেন। এসময় অতিথিদেরকে অভ্যর্থনা জানান রামুর ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান সহ উচ্চপদস্থ সেনাকর্মকর্তাবৃন্দ,‘বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র’র পরিচালক ভিক্ষু করুণাশ্রী থের ও সাধারণ সম্পাদক শিপন বড়–য়া। এ সময় ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্সের পক্ষ থেকে ‘ভূবন শান্তি একশ ফুট সিংহ শয্যা গৌতম বুদ্ধ মূর্তি’র প্রতিষ্ঠাতা ও ‘বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র’র পরিচালক ভিক্ষু করুণাশ্রী থের কে স্মারক সম্মাননা ক্রেষ্ট ও প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন কাজের জন্য অনুদানের চেক প্রদান করেন ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্সের কর্মকর্তা রিয়ার এডমিরাল মো. আনোয়ারুল ইসলাম।

পরে ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্সের ১০ ইপেন্ট্রি ডিভিশন ইন্টার্ন্যাল স্টাডি ট্যুর-২’র ঢাকা ন্যাশনাল সিনিয়র ডাইরেক্টিং স্টাফ রিয়ার এডমিরাল মো. আনোয়ারুল ইসলামের নেতৃতে বিভিন্ন দেশের সেনা কর্মকর্তারা রামুর প্রতিষ্ঠিত ‘ভূবন শান্তি একশ ফুট সিংহ শয্যা গৌতম বুদ্ধ মূর্তি’ ও ‘বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র’,রামুর বৌদ্ধ স্থাপত্য নিদর্শন সহ সম্প্রীতির সহবস্থানে বৌদ্ধ স্থাপত্য নিদর্শন দেখে তারা মুগ্ধ হন অতিথিরা। পরে রামু সেনা নিবাস ও জেলা প্রশাসক কার্যালয় পরিদর্শ করেন । উচ্চতর ডিগ্রীর অংশ দেশ প্রতিরক্ষায় কাজে সহায়ক হিসেব এই কোর্সের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের পর্যটন নগরী কক্সবাজার ও রামুর বৌদ্ধ মন্দিরের বিভিন্ন স্থাপত্য পরিদর্শন । এতে অংশ গ্রহন করেন, সৌদি আরব, কাতার, জর্দ্দান, ব্রুনাই, আরব আমিরাত, ভারত, পাকিস্তান, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, শ্রীলংকা, কানাডা, নাইজেরিয়ার সেনা কর্মকর্তাগন। তাঁদের এ পরিদর্শনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নিকট বাংলাদেশ তথা পর্যটন নগরী কক্সবাজার পরিচিত লাভ করবে ।
উল্লেখ্য,্বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্তাবধানে ‘ভূবন শান্তি একশ ফুট সিংহ শয্যা গৌতম বুদ্ধ মূর্তি’র সংস্কার কাজ ও ‘বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র’র পূনঃনির্মাণ করা হয়। এরপর বৌদ্ধ নিদর্শন ও পর্যটন আকর্ষণীয় বিশেষ স্থান হিসেবে পরিচিতি লাভ করে রামু উপজেলার উত্তর মিঠাছড়ি গ্রামের পাহাড়চূঁড়ায় প্রতিষ্ঠিত ‘ভূবন শান্তি একশ ফুট সিংহ শয্যা গৌতম বুদ্ধ মূর্তি’ ও ‘বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র’ সহ রামু উপজেলার বৌদ্ধ নিদর্শন গুলো। পর্যটনে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পরিনত হয়েছে রামু।

মতামত...