,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

কক্সবাজার-সোনাদিয়া-কুতুবদিয়া চ্যানেলে ধরা পড়েছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

আবদুর রাজ্জাক,কক্সবাজার,বিডিনিউজ রিভিউজঃ ইলিশের শেষ মৌসুমে এসে বঙ্গোপসাগরের কক্সবাজার-সোনাদিয়া-কুতুবদিয়া চ্যানেলে ধরা পড়েছে রেকর্ড সংখ্যক রুপালী ইলিশ। জেলেদের মতে, গত ১৫ বছরেও নাকি এক সঙ্গে এত ইলিশ দেখা যায়নি। আর সাগর দূষণসহ নানা কারণে গত কয়েক বছরে মাছের পরিমাণ দিন দিন কমছে। এ অবস্থায় ঘোর ইলিশ মৌসুমেও পর্যাপ্ত ইলিশের স্বপ্ন দেখেনি কোন জেলে। কিন্তু জেলেরা স্বপ্ন না দেখলেও সে অকল্পনীয় ঘটনা ঘটিয়েই গতকাল রবিবার এ এলাকার প্রতিটি জেলের জাল ছিল ইলিশে পরিপূর্ণ। ফলে এদিন সাগর পাড়ে যেন ইলিশের উৎসব শুরু হয়ে যায়।

জানা যায়, চলতি ইলিশ মৌসুমের শুরুর দিকে বঙ্গোপসাগরের কক্সবাজার-সোনাদিয়া-কুতুবদিয়া চ্যানেলে পর্যাপ্ত ইলিশ ধরা পড়ছিলো না। ফলে জেলে পরিবারে হতাশা বিরাজ করছিলো। কিন্তু মৌসুমের মাঝামাঝি সময় থেকে বদলে যেতে থাকে চিত্র। সাগরে মাছ শিকারে যাওয়া জেলেদের জালে নিয়মিত কমবেশি ইলিশ ধরা পড়তে থাকে। তবে জেলেদের জন্য সবচেয়ে বড় চমক হয়ে আসে গতকালের দিনটি। শনিবার রাতে যেসব জেলেরা সাগরে মাছ শিকারে গিয়েছিলো গতকাল রবিবার তাদের সবার নৌকা ছিলো ইলিশে পরিপূর্ণ। ফলে এদিন সকাল থেকে ইলিশ ভর্তি নৌকাগুলো ঘাটে ফিরতে শুরু করলে ইলিশের উৎসব শুরু হয়ে যায় ফিশারী ঘাট ও মাঝির ঘাট সাগর উপকূলে।
সরেজমিনে যায় ফিশারী ঘাট ও মাঝির ঘাট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, চারিদিকে শুধু ইলিশ আর ইলিশ।শহরের বিভিন্ন হাট বাজারে সড়কের পাশে, পথচারীর ও বিভিন্ন গাড়ীর যাত্রীদের হাতে, জেলেদের নৌকা ও ঝাঁকাসহ যেদিকে চোখ যায় সর্বত্র শুধু ইলিশ আর ইলিশে সয়লাব। দেখা যায়, সাগর থেকে আসা প্রতিটি জেলে নৌকা ইলিশে পরিপূর্ণ। জেলেদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বহুকাল একসাথে এত ইলিশ ধরা পড়েনি।
ফিশারী ঘাট এলাকার জেলে আবদুল করিম জানান, এত ইলিশ বহুবছর দেখা যায়নি। সাগর থেকে জাল তুললে দেখা গেছে ইলিশের ভারে জাল ডুবে যাচ্ছে। ফলে সব জেলের মুখেই ছিলো হাসি। জেলে ধ্রুব আরো বলেন, জেলেরা এত বেশি মাছ পেয়েছে যে, সাগর পাড়ে আসা অনেক দর্শনার্থী জেলেদের নৌকা থেকে জাল থেকে একেবারে বিনা পয়সায়ও দু-চারটি করে মাছ খাবার জন্য নিয়ে গেছে। তবে যারা এক খাঁচা বা এক সাথে ৫/১০ কেজি মাছ কিনেছেন তারাও পেয়েছেন নামমাত্র মূল্যে।
এদিকে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়লেও বেশিরভাগই ছিলো ছোট ও মাঝারি আকারের। এসব ইলিশ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২শ থেকে ৫’শ টাকার মধ্যে। মাছের দাম কম শুনে চট্টগ্রামসহ জেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পাইকারী বহু ব্যবসায়ীরা ককক্সবাজারের ফিশারী ঘাট ও মাঝির ঘাটে এসে ট্রাকে ট্রাকে ইলিশ মাছ কিনে নিয়ে যান। চট্টগ্রাম থেকে আসা এক পাইকারী মাছ ব্যবসায়ী বলেন, ইলিশের শেষ মৌসুমের জোঁ থাকায় খুব সকালে এখানে চলে এসেছিলাম মাছ কিনতে। তবে এত মাছ ধরা পড়বে কল্পনাও করিনি। তিনি বলেন, প্রায় ৫ মন ইলিশ মাছ তিনি কিনেছেন। বিভিন্ন দামে তিনি মাছ কিনেছেন। কেনা মাছের মধ্যে বড় আকারের ইলিশের সংখ্যা ছিলো কম। তবে মাঝারি ও ছোট মাছ বেশি। এভাবে এদিন সাগর পাড়ে ছোট্ট শিশু, গৃহবধূ, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা থেকে শুরু করে সব শ্রেণী পেশার মানুষকে খুশি মনে মাছ কিনে নিয়ে যেতে দেখা যায়।
কক্সবাজারের মহেশখালী পৌরসভা জলদাশ পাড়ার জেলে রণি জলদাশ ইলিশের কথা বলতে গিয়ে হাসি মুখে বলেন, এত মাছ দেখে অনেকেই প্রশ্ন করছেন সাগরে ইলিশ আর আছে, না সবই একসাথে ধরা পড়ে গেছে! আসলেই আজ যত ইলিশ দেখেছি, গত ১৫ বছরেও আমরা একসাথে এত ইলিশ দেখিনি। তবে বড় মাছের সংখ্যা কম হওয়ায় বেশি মাছ ধরলেও মাছ ছিলো খুবই স্বস্থা। ফলে আশানুরুপ দাম পাওয়া যায়নি। কিন্তু এতে তারা আর আশাহত নন। জেলেরা বলেন, এত মাছ পাব এটা কল্পনা না করলেও যেমন পেয়ে গেছি তেমনি ভাগ্যে থাকলে হয়ত দামও পেয়ে যাব। আর তাই তো সেই সুদিনটা ভাগ্যের উপরই ছেড়ে দিলেন তারা। ফলে কক্সবাজার শহর এলাকা ও বিভিণœ উপজেলায় যেদিকে চোখ যায় সর্বত্র শুধু ইলিশ আর ইলিশে সয়লাব।

মতামত...