,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

কাভার্ড ভ্যানের গ্যাসে স্বাসরুদ্ধ হয়ে প্রাণ হারাল সাতকানিয়ার জসিম

দক্ষিণ চট্টগ্রামে কাভার্ড ভ্যানে গ্যাস বিক্রি বন্ধ হচ্ছে না, ভয়াবহ দুরঘটনার আশংকা 

aমোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি,বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ এবার ভ্রাম্যমান সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনের কাভার্ড ভ্যানে আটকে স্বাসরুদ্ধ হয়ে মারা গেলেন এক যুবক। তার নাম মো. জসিম উদ্দিন (৩৮)। সেই চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার জনার কেঁওচিয়া মাইজপাড়া এলাকার আবদুল কাইয়ুমের ছেলে। ঘটনাটি ঘটে গত ২২ জুন বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার সময় জোরাল গঞ্জ থানার বারৈয়ার হাট হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির দক্ষিনে বড় মাদ্রাসা এলাকায়।

জানা যায়, গত বুধবার রাতে সাতকানিয়া উপজেলার কেরানীহাট এলাকার জিয়াবুল, রহিম ও আব্দুস সোবহানের মালিকানাধিন অবৈধ ভ্রাম্যমান কাভার্ড ভ্যান (চট্টমেট্টো-১১-৫৭৩০) গাড়িটি গ্যাস ভর্তি করতে কুমিল্লার মিয়া বাজার এলাকায় যায়। গ্যাস ভর্তি করে ফেরার পথে জোরাল গঞ্জ থানার বারৈয়ার হাট এলাকায় পৌঁছলে কাভার্ড ভ্যান চালক গ্যাসের দূর্গন্ধ ও গ্যাস বের হওয়ার শব্দ শুনতে পান। এ সময় গাড়ীতে থাকা তাঁর সহকারী জসিমকে বিষয়টি দেখতে বলেন। সহকারী জসিম চালকের কথামত কাভার্ড ভ্যানে ভেতরে ঢুকে গ্যাস সিলিন্ডারের ছিদ্র দেখতে গেলে নাকে মুখে গ্যাস ঢুকে স্বাসরুদ্ধ হয়ে কাভার্ড ভ্যানের ভেতরে মারা যান। অনেক্ষণ ধরে সহকারী ফিরে না আসায় গাড়ী চালক নেমে কভার্ড ভ্যানের পেছনে গিয়ে দেখতে পান সহকারী জসিম ভেতরে লম্বা হয়ে পড়ে আছেন। চালক দ্রুতগতিতে এ অবস্থায় গাড়ী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষনা করেন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে উপজেলার কেরানীহাট অবৈধ কাভার্ড ভ্যান সিএনজি ফিলিং ষ্টেশনের সিন্ডিকেটের সদস্যরা সিএনজি গ্যাসে স্বাসরুদ্ধ হয়ে জসিমের মৃত্যুকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করা চেষ্টা করছেন।
অবৈধ ভ্রাম্যমান কাভার্ড ভ্যান সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন সিন্ডিকেটের সদস্য জিয়াবুল হকের মোবাইলে বারবার রিং করলেও তিনি রিসিভ করেননি।
কেঁওচিয়া ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়াম্যান মনির আহমদ বলেন, গ্যাস ব্যবসায়ীদের উচিত ছিল ফিলিং ষ্টেশনের কর্মীদের সতর্ক করে দেয়া। কোন সময় গ্যাস ছিদ্র হলে কিংবা লাইন খুলে গেলে কাভার্ড ভ্যানের ভেতরে যেন কেউ প্রবেশ না করে।
সাতকানিয়া থানার এসআই মো. শাহ জালাল বাবুল জানান, জোরাল গঞ্জ থানার রারৈয়ার হাট হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির দক্ষিনে বড় মাদ্রাসার পাশে গাড়ী হতে পড়ে অথবা গাড়ী থেকে গ্যাস সরবরাহকালে অতিরিক্ত গ্যাস বের হয়ে স্বাসরুদ্ধ হয়ে জসিম গুরুতর আহত হন। এ খবর গোপন রেখে গ্যাস ব্যবসায়ীরা পেট ব্যাথার কথা বলে তাঁকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করান। সেখানে জসিম মারা যান। এব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মতামত...