,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

কোচিং সেন্টারে যৌন নির্যাতনের অভিযুক্ত জয় আটক

0001নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা,১১, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম): কোচিং সেন্টারে পড়াতেন রাজিব বিশ্বাস ওরফে জয়। কিন্তু শিক্ষকতার মতো মহান পেশার অন্তরালে হীন যৌন লালসা চরিতার্থ করতে বিভিন্ন কায়দায় ছাত্র-ছাত্রীদের জিম্মি করে দিনের পর দিন যৌন নির্যাতন করতো জয়। কিন্তু এক অভিভাবক হাটে হাঁড়ি ভেঙ্গে দেন। এলকাবাসী তাকে রামধোলাই দিয়ে জুতার মালা দিয়ে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে অবশেষে থানা হাজতে তার ঠাই হয়েছে।

নাটো্র শহরের ফৌজদারী পাড়ার ভুক্তভোগী ছাত্র নাইমুল ইসলাম নিরবের বাবা রেন্টূর অভিযোগে জানা প্রকাশ, সদর থানার হাজরা-নাটোর এলাকার রাজিব বিশ্বাস ওরফে জয় দীর্ঘদিন থেকেই শহরের কানাইখালী এলাকার চাল পট্টিতে আইডিয়াল কোচিং সেন্টার খুলে ছাত্র-ছাত্রী পড়ানোর নামে প্রায়ই বিভিন্ন ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে আলিঙ্গন ও যৌন কামনা চরিতার্থ করে আসছিল। ছাত্রদের ওপর সে গোপনে কোচিং সেন্টারের মধ্যে যৌন পিড়ন করতো। রোববার সকাল সাড়ে আটটার দিকে নিরবকে পড়ানোর নাম করে কোচিং সেন্টারের মধ্যে নিয়ে তার ওপর যৌন কামনা চরিতার্থ করার সময় নিরবের চিৎকারে আশে পাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে। এসময় বিক্ষুব্ধ জনতা কোচিং প্রধান রাজিব বিশ্বাস ওরফে জয়কে গণপিটুনি দেয়। এর আগেও অভিযুক্ত কোচিং প্রধান নিরবসহ অনেকের ওপর একাধিকবার যৌন নির্যাতন করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে । ভুক্তভোগী নিরব জানায়, প্রায় দুইবছর থেকে সে জয় স্যারের কোচিং সেন্টারে পড়ছে। পড়া শুরুর প্রায় ৬ মাস পর প্রতিবেশী এক বিয়ের অনুষ্ঠানে দাওয়াত খেয়ে সে এক জাতীয় সফট্ কোল্ড ড্রিংক পান করে। তার বন্ধুরা বিষয়টি স্যারকে জানানোর পর স্যার তাকে ধমক দিয়ে বলে যে, তিনি যা বলবেন তা যদি সে না করে তবে তাকে পেটানো হবে।  এরপর স্যারের কথামত একটা সাদা কাগজে আমি নেশাখোর, আমার বাবা খারাপ—-ইত্যাদি কথা লিখতে ব্ললে সে তা লিখেদেয়। পরে স্যার কাগজগুলো রেখে দেয়। এরপর স্যার যা বলে তা না করতে চাইলেই  ভয় দেখায় যে, তার নিজের হাতে লেখা কাগজগুলো তার বাড়িতে পাঠিয়ে বাবা-মাকে দিয়ে মার খাওয়ানো হবে। ভয়ে সে স্যারের কথামত কাজ করে। স্যার তাকে দিয়ে বাড়ির বাজার করানো, মন্দিরে রং করানো, ওষুধের দোকান থেকে ঘুমের ওষুধ কেনা ইত্যাদি কাজও করিয়ে নেয়।  গত ৩১ তারিখে জেএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট বের হওয়ার আগের দিন স্যার তার এক সহপাঠীকে দিয়ে খবর পাঠায় তাকে দেখা করতে। এরপর স্যার তাকে বলে যে, তার সহপাঠী অমিত যা বলবে তাকে তাই করতে হবে। পরে কোচিং সেন্টারের মধ্যে অমিতকে দিয়ে তার নগ্ন ছবি তোলানো হয়। এরপর আরেক দিন চার-পাঁচজন সহপাঠীর সামনে জোর করে তার নগ্ন ছবি তোলায় স্যার। এরপর স্যার বলে যে, কথা না শুনলে তার নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়া হবে। এরপর স্যার বিভিন্ন সময় তার ওপর যৌন নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। নিরব আরো দাবি করে, তার মতো অনেক সহপাঠীর ওপরই রাজিব দীর্ঘদিন থেকে যৌন  নির্যাতন চালায়।

স্থানীয় লোকজন জানান, এর আগেও শহরের জয়কালীবাড়ি এলাকায় কোচিং চালানোর সময় যৌন নির্যাতনের ঘটনা প্রকাশ হলে, স্থানীয়রা রাজিবকে এলাকা থেকে তাড়িয়ে দিয়েছিল।

সদর থানা পুলিশের ওসি মিজানুর রহমান জানান, রেন্টু বাদী হয়ে রাজিবের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ রাজিবকে গ্রেফতার করেছে।

 

মতামত...