,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

গুলশান হামলার আরেক ‘মাস্টারমাইন্ড’ মারজান

 marjanনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ  রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলার আরেক ‘মাস্টারমাইন্ড’ ছিলেন মারজান (সাংগঠনিক নাম)। তিনি বাংলাদেশের নাগরিক। তার ছবি পাওয়া গেছে। নিজের ফেসবুকে মারজান গুলশান হামলার ছবি আপলোড করেছিল।
শুক্রবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়।
মনিরুল ইসলাম জানান, গোপন টেক্সট বা আপসের মাধ্যমে গুলশান হামলার ছবি মারজানের কাছে পাঠানো হয়েছিল। সে তা ওপেন করেছিল। পুলিশ এক জঙ্গির মোবাইল থেকে তা উদ্ধার করেছে। তামিমের পরের সারির নেতা তিনি। তবে তার আসল নাম-পরিচয় এখনও জানা যায়নি।
এক প্রশ্নের জবাবে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও পুলিশের কাউন্টার টেররিজম বিভাগের প্রধান (সিটি) মনিরুল ইসলাম বলেন, রাজধানীর গুলশান, কল্যাণপুর ও শোলাকিয়া হামলার ‘মাস্টারমাইন্ড’ তামিম চৌধুরী ও ব্লগার হত্যায় জড়িত বলে সন্দেহে থাকা চাকরিচ্যুত সেনা কর্মকর্তা জিয়াউল হক ঢাকাতেই আছেন। ওই তিনজনকে এখনও গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তারা শিগগিরই ধরা পড়বেন বলে আশাপ্রকাশ করেন ডিএমপির এই অতিরিক্ত কমিশনার। এছাড়া হামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেফতার হওয়া হাসনাত ও তাহমিদকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
tamim jiaমনিরুল ইসলাম আরো জানান, বৃহস্পতিবার রাতে দারুস সালাম থানার টেকনিক্যাল মোড় এলাকা থেকে আটক হওয়া নিউ জামাআতুল মুজাহিদীনের (জেএমবি) পাঁচ সদস্যকে জিজ্ঞাসাবাদ করে গুলশান ও কল্যাণপুরের হামলা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। তারা হলেন আতিকুর রহমান ওরফে আইটি আতিক, মো. আবদুল করিম বুলবুল ওরফে ডা. বুলবুল, আবুল কালাম আজাদ, মতিউর রহমান, শাহিনুর রহমান হিমেল ওরফে তারেক। ঘটনাস্থল থেকে নান্নু, সজীব, ইমরান, জিন্সিসহ কয়েকজন পালিয়ে যান। এসব এদের সাংগঠনিক নাম।
ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, আটককৃতরা ঢাকায় আরেকটি নাশকতার পরিকল্পনা করেছিল। এজন্য তারা বোমা তৈরি কাঁচামাল নিয়ে রাজধানীতে ঢুকেছিল।

মতামত...