,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

গুলশান হামলার তদন্তে গোয়েন্দারা

aনিজস্ব  প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে উদ্ধার হওয়াদের কাছ থেকে তথ্য জানার চেষ্টা করছে গোয়েন্দা পুলিশ। শনিবার রাতে তাদের মিন্টু রোডের গোয়েন্দা কার্যালয়ে আনা হয়। এটি ঘটনার তদন্তের অংশ বলে জানা গেছে।

এ সময় ডিবি কার্যালয়ের আশপাশে অনেকের স্বজনকে ভিড় করতে দেখা যায়। যাচাই-বাছাই করতেই জীবিতদের পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে বলে কর্মকর্তারা নিশ্চিত করছেন।

গোয়েন্দা পুলিশের পাবলিক রিলেশন্স ও গণমাধ্যম শাখার প্রধান মাসুদুর রহমান আরও বলেন, ‘উদ্ধার ১৩ জনসহ অন্তত ২৭ জনকে তাদের হেফাজতে নেয়া হয়েছিল। প্রয়োজনীয় তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। স্বজনদের কাছে বুঝিয়েও দেওয়া হচ্ছে। অনেকে চলে গেছেন। বাকিরাও চলে যাবেন। এদের কাউকে আটক বা গ্রেপ্তার করা হয়নি।

aজমশেদ করিমের জন্য এসেছিলেন তার বাবা সাবেক সরকারি কর্মকর্তা মিজানুর রহমান। তিনি বলছিলেন, গুলশানের বাসা থেকে সে রেস্টুরেন্টে আসে। সেখানে জঙ্গিদের হাতে আটকা পড়ে। শনিবার সকালে অন্যদের সঙ্গে তাকেও উদ্ধার করা হয়। এখন তাকে ডিবি কার্যালয়ে আনা হয়েছে। তবে কি কারণে আনা হয়েছে তা বলছেন না কেউ। এ রকম আরও অনেকের স্বজনেরা শনিবার রাত থেকেই গোয়েন্দা কার্যালয়ের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্র বলছে, এরা প্রায় ১৫ ঘণ্টা ভেতরে ছিল। এ কারণে ভেতরে কি ঘটেছে তারা ভাল বলতে পারবেন। তারা ঘটনা স্বচোখে দেখেছেনও। এছাড়া তাদের নাম-পরিচয় নেয়া হচ্ছে। এটি ঘটনার তদন্তের অংশ। সেক্ষেত্রে তাদের কেউ কেউ সাক্ষীও হতে পারেন। পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের লোকজন তাদের কাছ থেকে এ তথ্য নিচ্ছেন। মামলা হলে ঘটনার জোর তদন্ত শুরু হবে। আটক জঙ্গি সম্পর্কেও জানার চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা।

ওসি সিরাজুল ইসলাম বিডিনিউজ রিভিউজকে বলেন, জঙ্গি হামলার ঘটনায় শনিবার রাত পর্যন্ত গুলশান থানায় কোন মামলা হয়নি ।

শুক্রবারের ঘটনায় জঙ্গিদের হামলায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার ওসি সালাহউদ্দিন নিহত হন। আর জঙ্গিরা ২০ জনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে।

 

মতামত...