,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

গ্যাস সঙ্কটে দিশেহারা চট্টগ্রামের অধিবাসিরা

gassনিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,১৯, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম):: বাণিজ্যিক রাজধানী খ্যাত চট্টগ্রামে সপ্তাহের বেশি সময় ধরে গ্যাস সঙ্কটে দিশেহারা হয়ে পড়েছে  অর্ধকোটি অধিবাসি।

চুলা জ্বলছে না , কারখানার চাকা ঘুরছে না, সিএনজি পাম্পে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়েও গ্যাসপাওয়া যাচ্ছে না। গ্যাসের চাপ না থাকায় নগরীর অধিকাংশ সিএনজি পাম্প দিনের প্রায় সময় বন্ধই থাকছে।

চট্টগ্রাম কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (কেজিডিসিএল) জানায়, চট্টগ্রাম অঞ্চলে বর্তমানে ৪৩০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের চাহিদার বিপরীতে সরবরাহ মিলছে মাত্র ২৮০ মিলিয়ন ঘনফুট। সর্বশেষ সোমবার জাতীয় সরবরাহ লাইন থেকে চট্টগ্রাম গ্যাস পেয়েছে মাত্র ২০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস। চাহিদার তুলনায় অর্ধেকেরও কম গ্যাস সরবরাহ পাওয়া চট্টগ্রাম মহানগরীতে তীব্র গ্যাস সঙ্কট দেখা দিয়েছে।

কর্মকর্তারা জানান, গ্যাস সংকটের কারণে দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামের ভারী শিল্প-কারখানায় দৈনিক মাত্র ১২ ঘণ্টা গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। একইভাবে সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলো বন্ধ রাখা হচ্ছে প্রতিদিন দুপুর ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত।আর যে সময় সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলোতে গ্যাস পাওয়ার কথা সে সময় গ্যাসের চাপ না থাকায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে।

 

নগরীর নাসিরাবাদ, খুলশী, জাকির হোসেন রোড, ষোলশহর, চকবাজার, কাপাসগোলা, বাকলিয়া, বহদ্দারহাট, অক্সিজেন, বায়েজিদ, হামজারবাগ, আগ্রাবাদ, মাদারবাড়ি, মোমিন রোড, আসকারদীঘির পাড়, আন্দরকিল্লা, আগ্রাবাদ, চান্দগাঁও, বায়েজিদসহ বিভিন্ন এলাকায় গ্যাসের চাপ না থাকায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন বাসিন্দারা। এসব এলাকায় হোটেল-রেস্টুরেন্টগুলোর  দৈনিক রান্না-বান্নার কাজও করতে পারছেন না বলে হোটেল মালিকরা অভিযোগ করেছেন।

চট্টগ্রাম কর্ণফুলী গ্যাস সরবরাহ কর্তৃপক্ষের উপমহাব্যবস্থাপক (বিতরণ) প্রকৌশলী আজিজুল হক বেশ কিছুদিন ধরে চট্টগ্রামে গ্যাস রেশনিংয়ের মাধ্যমে সঙ্কট নিরসনের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানান।

 

মতামত...