,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামকে বিশ্বমানের স্মার্ট সিটিতে রূপান্তরের কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের নির্দেশ দিলেন মেয়র

cনিজস্ব প্রতিবেদক,বিডিনিউজ রিভিউজঃ  চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন চট্টগ্রামকে বিশ্বমানের পরিবেশ বান্ধব স্মার্ট সিটিতে উন্নিত করার কর্মপরিকল্পনা আগামী ৩ বছরের মধ্যে সম্পাদনের জন্য প্রকৌশলীদের নির্দেশ দেন।

আজ ১৭ অক্টোবর সোমবার, দুপুরে নগর ভবনের কে বি আবদুচ ছত্তার মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রকৌশলীদের তিনি সভায় প্রকৌশলীদের নির্দেশ দেন

তিনি বলেন, ২০১৯ সনের জুনের মধ্যে নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডের সকল সড়ক ও বাইলেইনকে শতভাগ পাকা, পিচঢালা সড়কে উন্নয়নের কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হবে। এ লক্ষে গৃহিত কর্মপরিকল্পনা ধাপে ধাপে বাস্তবায়ন করতে প্রকৌশলীদের নির্দেশ দেন। মেয়র বলেন, গুরুত্বের দিক থেকে চট্টগ্রামের গুরুত্ব অনেক। অর্থনীতির প্রাণ কেন্দ্র এ চট্টগ্রাম। চট্টগ্রামের উন্নয়নের সাথে দেশের সার্বিক উন্নয়ন ও গুরুত্ব নির্ভর করে। এ বিবেচনায় চট্টগ্রামকে বিনিয়োগের উপযুক্ত এলাকা হিসেবে এর পরিবেশ উন্নত করা অপরিহার্য। মেয়র বলেন, সার্বিক বিবেচনায় চট্টগ্রাম বিনিয়োগবান্ধব ও পর্যটকবান্ধব নগরী- এ বিষয়টিকে প্রাধান্য দিয়েই চট্টগ্রামের উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে। সিটি মেয়র প্রকৌশলীদের উদ্দেশ্যে বলেন, নগরীর উন্নয়ন, সৌন্দর্যবৃদ্ধি, আলোকায়ন, অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ নাগরিক সেবার বেশীরভাগ কর্মকান্ড প্রকৌশল বিভাগের উপর নির্ভর করে। সে লক্ষে প্রকৌশলীদের অভিজ্ঞতা, প্রজ্ঞা, জ্ঞান ও কৌশলকে কাজে লাগিয়ে নগরীর উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করতে হবে। সিটি মেয়র বলেন, ৪১টি ওয়ার্ডে আলাদা আলাদা ভাবে নির্বাহী প্রকৌশলী, সহকারী প্রকৌশলী, উপ সহকারী প্রকৌশলী ও সড়ক তদারককারীদের দায়িত্ব ভাগ করে দেয়া আছে। স্ব স্ব ক্ষেত্রে আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে। বিষয়টি সতর্কতার সাথে অনুধাবন করতে হবে। দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনের ক্ষেত্রে অনিহা, গাফিলতি বা অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে তার পরিনাম শুভ হবে না। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলীদের মাসিক সমন্বয় সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমদ। এতে সচিব মোহাম্মদ আবুল হোসেন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. আনোয়ার হোছাইন, মো. রফিকুল ইসলাম মানিক, মো. মাহফুজুল হক, মনিরুল হুদা, কামরুল ইসলাম সহ ৯টি বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এবং সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সমূহের প্রকৌশলীবৃন্দ নিজ নিজ ওয়ার্ডে দায়িত্বের বিষয়ে মতামত তুলে ধরেন। সমন্বয় সভায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক সমূহ দিন-রাত কাজ করে মেরামত করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৫ম নির্বাচিত পরিষদের ৫টি স্থায়ী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

 চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত ৫ম পরিষদের অর্থ ও সংস্থাপন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, পরিবেশ, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক এবং আইন শৃংখলা বিষয়ক ৫টি স্থায়ী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আজ ১৭ অক্টোবর সোমবার, দুপুরে নগর ভবনের মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভা সমূহে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। সভা সমূহে সংশ্লিষ্ট স্থায়ী কমিটি সমুহের সভাপতি, সদস্য সচিব ও সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভা সমূহে বিগত সভার কার্যবিবরনী অনুমোদন এবং আলোচ্যসূচির উপর আলোচনা, পর্যালোচনা শেষে সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। সভার সভাপতি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন সবগুলো স্থায়ী কমিটির কর্মকান্ড গুরুত্বের সাথে পরিচালনার নির্দেশনা দেন। মেয়র বলেন, নাগরিক দায়বদ্ধতা থেকে আমরা দায়িত্ব পালন করছি। নাগরিক স্বার্থে যে কোন ঝুঁকি নিয়ে সেবা নিশ্চিত করতে হবে। অর্থ ও সংস্থাপন বিষয়ে মেয়র বলেন, এই কমিটি অতিব গুরুত্বপূর্ণ একটি কমিটি। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন পরিচালনায় অর্থ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আয়-ব্যয় এ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতার স্বার্থে খাত ওয়ারি হিসাব-নিকাশ দেখা-শুনা এই কমিটিকে করতে হবে। আয় বৃদ্ধি ও ব্যয় হ্রাস করে কর্পোরেশনকে স্বাবলম্বি করার উদ্যোগ এই কমিটির মাধ্যমে গ্রহন করতে হবে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে মেয়র বলেন, চট্টগ্রাম দুর্যোগ কবলিত একটি অঞ্চল। দুর্যোগকালিন উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনায় সক্ষমতা আমাদের অর্জন করতে হবে। ওয়ার্ড ভিত্তিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিগুলোকে সচল রাখতে হবে। দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও দক্ষ কর্মীবাহিনী প্রশিক্ষন দিয়ে প্রস্তুত রাখার ব্যবস্থা এ কমিটিকে গ্রহণ করতে হবে। পরিবেশ বিষয়ে মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, পরিবেশ বান্ধব বাসপোযোগী নগরী গড়ার যাবতীয় পরিকল্পনা গ্রহণ করে তা বাস্তবায়ন করতে হবে। এ লক্ষে বৃক্ষ রোপন, সবুজায়ন, পরিস্কার পরিচ্ছন্ন অভিযান পরিচালনা, পরিবেশ দুষণ থেকে নদী, খাল, নালা ইত্যাদি রক্ষা সহ নানামুখি দিকনিদের্শনা দেন মেয়র। ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিষয়ে মেয়র বলেন, নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডে বিদ্যমান মাঠ জরিপ করে একটি রিপোর্ট প্রস্তুত করা, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বাকলিয়া স্টেডিয়ামকে খেলার উপযোগী করা, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠ সমূহ খেলাধুলার উপযোগী করে গড়ে তোলা এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভিত্তিক যাবতীয় খেলাধুলা বিশেষ করে ফুটবল, ক্রিকেট, কাবাডি, ভলিবল, হ্যান্ডবল, বাস্কেটবল সহ সকল ধরনের খেলাধুলায় শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করা এবং সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড পরিচালনা করা ইত্যাদি বিষয়গুলো গুরুত্বদিয়ে কমিটিকে কাজ করার দিক নির্দেশনা দেন। আইন শৃংখলা বিষয়ে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন জঙ্গীবাদ নির্মূলে ওয়ার্ড ভিত্তিক গঠিত জঙ্গী প্রতিরোধ কমিটিগুলোকে সক্রিয় করার লক্ষে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের নির্দেশনা প্রদান করেন। পরে মেয়র সকল সদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়ে স্থায়ী কমিটির সভা সমাপ্ত করেন।

মতামত...