,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামের খুলশীতে মাদরাসা ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু: লাশ গুমের অপচেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ৮ মার্চ,বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: চট্টগ্রাম নগরীর খুলশী থানা এলাকার ওয়ারলেস কলোনির সেগুনবাগান তালীমুল কুরান মাদরাসার ছাত্র ইসমাম হায়দার (৮)এর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।  সে মাদ্রাসাটির হেফজ বিভাগের শিক্ষার্থী ছিল।

মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে নিহতের স্বজনরা মাদরাসা থেকে তার লাশ উদ্ধার করে। এর আগে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ ইসমামের পরিবারকে সে নিখোঁজ বলে খবর দেয়। তবে তারা এসে মাদরাসায় তল্লাশি চালিয়ে বিছানার নিচ থেকে ইসমামের মরদেহ উদ্ধার করে। পরে স্বজনরা লাশ বাইরে নিয়ে যেতে চাইলে বাধা দেন শিক্ষকরা। স্বজনদের নির্যাতনে ইসমামের মৃত্যু হয়েছে দাবি করলেও  অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মাদরাসার অধ্যক্ষ।

মাদরাসার ভেতর ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যুর খবরে ক্ষোভে ফেটে পড়েন এলাকাবাসী। ঘটনার পর থেকেই ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী জড়ো হয়ে অবস্থান নেয় মাদরাসার মূল ফটকের বাইরে। এক পর্যায়ে রাত ১০টার দিকে এলাকাবাসী হামলা করে মাদরাসায়। ভেতর থেকে বন্ধ থাকা মূল গেট ভেঙে ভেতর ঢুকে পড়ে এলাকাবাসী। এসময় তারা সেখানে ভাঙচুর চালায়। পরে রাত ১১টার দিকে খুলশী থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

জানা গেছে, নিহত ইসমাম বাঁশখালী উপজেলার চানপুর পশ্চিম নাকমোড়ার নাজিম উদ্দিনের ছোট ছেলে। তারা দীর্ঘদিন ধরে নগরীর বাকলিয়া থানার দেওয়ানবাজার মাদরাসা ভবন এলাকার ইলিয়াস সাহেবের বিল্ডিংয়ে ভাড়া থাকে। তারা চার ভাইয়ের মধ্যে সে সবার ছোট।

নিহত ইসমামের খালাতো ভাই রিয়াদ বিডিনিউজ রিভিউজ.কমকে বলেন, সন্ধ্যার পর মাদরাসা থেকে খবর দেয়, ইসমামকে পাওয়া যাচ্ছে না। হয়তো সে পালিয়ে গেছে। খবর পেয়ে আমরা মাদরাসায় উপস্থিত হই। মাদরাসার বড় হুজুরের কাছে জানতে চাইলে আমাদের বলেন, বিকেলে সে খেলাধুলা করেছে। সন্ধ্যার পর ক্লাসে উপস্থিত ছিল না। হয়তো সে পালিয়ে গেছে।

রিয়াদ বিডিনিউজ রিভিউজ.কমকে জানান, হুজুরের কথা আমাদের বিশ্বাস হয়নি। তাই আমরা মাদরাসার বিভিন্ন জায়গায় খুঁজে দেখি। এক পর্যায়ে স্তূপ করে রাখা বেডের নিচ থেকেই ইসমামকে উদ্ধার করি। এসময় তার উপর কয়েকটা কম্বল এবং বেড (শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ বিছানা) চাপানো ছিল। আমরা তার লাশ উদ্ধার করে নিয়ে আসতে চাইলে শিক্ষকরা বাধা দেন। শেষে জোর করে তাকে বেসরকারি হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালের ডাক্তার জানান, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

খুলশী থানার এসআই জসীম বিডিনিউজ রিভিউজ.কমকে বলেন, মৃত্যুর কারণ জানতে আমরা ঘটনাটি তদন্ত করে দেখছি। একটু সময় লাগবে।

খুলশী থানার হন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিডিনিউজ রিভিউজ.কমকে বলেন মাদরাসা ছাত্রের মৃত্যুর কারণ শীঘ্রই জানতে পারবো। তদন্তে কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।

অধ্যক্ষ হাফেজ তৈয়্যব বিডিনিউজ রিভিউজ.কমকে বলেন, আমি সন্ধ্যার পর একটি মাহফিলে যাই। সাড়ে সাতটার দিকে মাদরাসা থেকে আমাকে ফোন করে জানানো হয়, একজন ছেলে মারা গেছে। খবর পেয়ে আমি আসি।

মতামত...