,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামের চাক্তাইয়ে চালের আড়তে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে বাধা, ২জনের সাজা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ২০ সেপ্টেম্বর, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: দেশের ভোগ্যপণ্যের বড় পাইকারি বাজার চাক্তাইয়ে চালের উর্ধ্বমূল্য নিয়ন্ত্রণ ও বাজার মনিটরিং করতে গিয়ে অবরোধের মুখে পড়েন ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। তবে অতি মুনাফা এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রমে বাধা দেওয়ার অভিযোগে এক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার ও কর্মচারীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড ও অর্থদ– প্রদান করেন আদালত।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মোরাদ আলী পুলিশ, ক্যাব প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে অভিযান পরিচালনা করেন। জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত বিকেল তিনটায় চাক্তাই চাল বাজারে চালের মূল্যবৃদ্ধি, মূল্য তালিকা টাঙানো ও মজুতদারির বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানে হাজী বদিউর রহমান এন্ড সন্স নামের এক আড়তদার প্রতিষ্ঠানে টাঙানো মূল্যতালিকার অতিরিক্ত মূল্যে চাল বিক্রি এবং অতিরিক্ত চাল মজুতের অভিযোগে ব্যবস্থাপক মো. দিদারুল আলমকে আটক করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে শ্রমিকেরা জড়ো হয়ে দিদারুল আলমকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালায়। রাস্তায় ঠেলা–ভ্যান দিয়ে অবরোধ ও আদালতের কার্যক্রমে বাধা দেয়। পরে নগর পুলিশ এবং র‌্যাব–৭ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ব্যবসায়ী–শ্রমিক নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রমে বাধা দেওয়ার অভিযোগে মো. জাহিদুল ইসলাম শাওন নামের আরও এক ব্যক্তিকে আটক করে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মোরাদ আলী বলেন, অতিরিক্ত মূল্যে চাল বিক্রি–চাল মজুতের অভিযোগে মো. দিদারুল আলমকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন–২০০৯ এর ৩৮ ও ৪০ ধারায় ৩ মাসের কারাদন্ড ও এক লাখ টাকা জরিমান করা হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রমে বাধা দেওয়ায় মো. জাহিদুল ইসলাম শাওনকে দন্ডবিধির ১৮৬০ এর ১৮৬ ধারায় এক মাসের বিনাশ্রম সাজার রায় দেন।

ক্যাবের প্রতিনিধি জান্নাতুল ফেরদৌস জানান, বদিউর রহমানের দোকানের ম্যানেজার চালের মূল্য তালিকার বেশি দাম হাঁকানো এবং অতিরিক্ত মজুত নিয়ে সুনির্দিষ্টভাবে কোনো জবাব দিতে পারেননি। টাঙানো দরের চেয়ে বিক্রির সময় বেশি দাম নেওয়ার বিষয়ে আদালতে ভুল ব্যাখ্যা উপস্থাপন করেন। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার দিদারুল আলমকে আটক করা হয়। সেই খবর ছড়িয়ে গেলে শ্রমিকেরা রাস্তায় ঠেলাগাড়ি ও ভ্যান রেখে অবরোধ সৃষ্টি করে। এক ঘণ্টা ধরে চলাচল বন্ধ ছিল।

পরে পরিস্থিতি নিয়ে চাল ব্যবসায়ী সমিতির কার্যালয়ে বৈঠক করা হয়। বৈঠকে ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, র‌্যাব, চাল ব্যবসায়ী সমিতি ও মিল মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

চাক্তাই চাল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি এনামুল হক এনাম বলেন, ‘চাল মজুত করে বাজারে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি ও অতি মুনাফা করার বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা নিতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু ঢালাওভাবে অভিযান পরিচালনা করলে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হলে বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।’ বাজার নিয়ন্ত্রণ হয়ে গেছে দাবি করে তিনি বলেন, চারদিন ধরে চালের দাম কমতে শুরু করেছে। বর্তমানে আতপ ও সিদ্ধ চালের দাম অনেক কমে এসেছে।

চট্টগ্রাম চাল মিল মালিক সমিতির সভাপতি শান্ত কুমার দাশগুপ্ত বলেন, চট্টগ্রামের চালের বাজার হচ্ছে আমদানি নির্ভর। এখানকার ব্যবসায়ীদের হাতে বাজার নিয়ন্ত্রণ করার সুযোগ নেই। দেশে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে উত্তরাঞ্চলের বড় ব্যবসায়ী ও চাল মিল মালিকরা।

তিনদিনের ব্যবধানে ভারত ও মিয়ানমার থেকে আমদানি করা চালের দাম বস্তাপ্রতি প্রায় দুইশ টাকা কমেছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, বাজার ভারতীয় আতপ চাল বস্তাপ্রতি দুইশ টাকা কমে ১৯শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। মিয়ানমারের আতপ চাল ১৫০ টাকা কমে ১৬৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

গত সোমবার থেকে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা ও বাজার মনিটরিং শুরু করেন। মূল্য তালিকা থেকে বেশি দামে চাল বিক্রির অভিযোগে বড় পাইকারি বাজার চাক্তাইয়ের সাদ এন্টারপ্রাইজকে দুই হাজার টাকা ও পাহাড়তলী বাজারের জিএম ট্রেডিংকে তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয় এবং ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দেওয়া হয়।

মতামত...