,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামের নবগঠিত কর্ণফুলী উপজেলার ১ম নির্বাচনে প্রার্থীদের নির্ঘুম রাত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ২২ সেপ্টেম্বর, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::চট্টগ্রাম জেলার নবগঠিত কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচন ২৪ সেপ্টেম্বর। এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শেষ মুহূর্তে নির্বাচনী প্রচার–প্রচারণা জমজমাট হয়ে উঠেছে। এলাকায় দিন-রাত মাইকিং গণসংযোগসহ সভা–সমাবেশ ও ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে প্রার্থীরা তাদের সমর্থনে ভোট প্রার্থনা করে প্রার্থীরা নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। তারা এলাকার উন্নয়নে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। চায়ের দোকানগুলোতে নির্বাচনী আড্ডায় ভোটাররা নবগঠিত এ উপজেলার অতীতের বিভিন্ন সমস্যা ও ত্রিমুখী প্রশাসনের যাতাকল থেকে মুক্তি পাওয়ার আশা ব্যক্ত করেন।

চট্টগ্রাম জেলার নবগঠিত কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচনে প্রার্থীরা হলেন, চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দক্ষিণ জেলা আ. লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ফারুক চৌধুরী, বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ–সভাপতি এডভোকেট এস.এম ফোরকান, স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ও চরলক্ষ্যা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী, ইসলামিক ফ্রন্টের প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী। ভাইস চেয়ারম্যান পদে শিকলবাহা ইউনিয়ন আ. লীগের সভাপতি দিদারুল ইসলাম চৌধুরী, বিএনপি’র মো. ওসমান, ইসলামী ফ্রন্ট–জাপার জোটগত প্রার্থী মওলানা মো. মুছা, ইসলামিক ফ্রন্টের প্রার্থী নাছির উদ্দিন। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কর্ণফুলী উপজেলা মহিলা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক বানাজা বেগম নিশি, বিএনপির মহিলা নেত্রী উম্মে মিরজান শামীমা, জাতীয় পার্টির নেত্রী মুন্নি বেগম।

কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ফারুক চৌধুরী বলেন, ‘নির্বাচিত হলে রাস্তাঘাটা সংস্কার, কর্ণফুলী নদীর ভাঙ্গন রোধ, আদালত স্থাপন, ভূমি অফিস স্থাপন, থানা ভবন, উপজেলা পরিষদ ভবন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, খেলার মাঠ ও বিনোদন কেন্দ্র, সরকারি স্কুল ও কলেজ প্রতিষ্ঠা করাই হবে আমার প্রধান কাজ। ইতিমধ্যে ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরীর সহযোগিতায় উপজেলা গঠনের আগেই ৩টি সফলতা অর্জন করেছি। তৎমধ্যে উপজেলার ৫ ইউনিয়নকে নিয়ে কর্ণফুলী থানা গঠন, কর্ণফুলী উপজেলার শতভাগ বিদ্যুৎতায়ন করা হয়েছে, জায়গা–জমি রেজিস্ট্রি কাজে বন্দর থানা থেকে মুক্ত করা হয়েছে এবং বন্দর হিসেবে অনেক মৌজার কর্ণফুলী ৫ ইউনিয়নের খাজনা কমিয়ে আনা হয়েছে। জনগণের মৌলিক চাহিদা পূরণ করে আধুনিক দৃষ্টিনন্দন উপজেলা গড়ে তোলা হবে।

কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী এডভোকেট ফোরকান বলেন, নির্বাচিত হলে অবহেলিত এ কর্ণফুলীতে রাস্তাঘাটের যে বেহাল দশা তার জন্য পরিকল্পিতভাবে রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, সরকারি স্কুল ও কলেজ প্রতিষ্ঠা, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নির্মাণের কাজ দ্রুত এগিয়ে নিয়ে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা হবে। কর্ণফুলীকে পরিকল্পিত উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য কাজ করে যাবো।

শিকলবাহা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও কর্ণফুলী উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি দিদারুল ইসলাম দিদার জানান, ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতির সাথে যুক্ত থেকে সামাজিক ভাবে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি। নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক পরিবেশে জণগনের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করে যাওয়ার লক্ষ্যেই নির্বাচনে অংশ নেয়া। উপজেলা যুবলীগের সভাপতি থেকে বর্তমানে শিকলবাহা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি।

কর্ণফুলী উপজেলা মহিলা আওযামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বানাজা বেগম নিশি বলেন, দীর্ঘ বছর ধরে রাজনীতির সাথে যুক্ত থেকে মহিলাদের সংগঠিত করে কাজ করে যাচ্ছি। আমার নিজের ইউনিয়নে সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার হিসেবে ইতোমধ্যে দুই দুই বার মহিলা মেম্বার নির্বাচিত হয়েছি। গতবার পটিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে অংশ নিয়েছিলাম। ফলে অন্যান্য প্রার্থীদের তুলনায় পরিচিতি ও প্রচারের দিকে এগিয়ে রয়েছি।

জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’র দলীয় ধানের শীষ প্রতীকের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহাম্মদ ওসমান বলেন, নির্বাচিত হলে জনগণের আকাঙ্খা পূরণ এবং পরিষদকে জনমুখী হিসেবে গড়ে তোলা হবে। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শে বঞ্চিত কর্ণফুলীকে পরিকল্পিত উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করে যাবো।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী উম্মে মিরজান শামীমা জানান, দীর্ঘবছর ধরে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সাথে যুক্ত রয়েছি। নির্বাচিত হলে এলাকার রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, সকল অসহায় ও স্বামী পরিত্যক্ত মহিলাদের জন্য উপজেলা পরিষদের বরাদ্দ থেকে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করব। প্রসুতি মায়েদের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা নেয়ার জন্য গাড়ির ব্যবস্থা করব।

মতামত...