,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামের পটিয়ায় ভূমি অফিসে কর্মচারীকে স্ত্রীর জুতাপেটা: বেতনবিহীন ১২জন চাকরিচ্যুত

 পটিয়া সংবাদদাতা, ১৪ জুলাই, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলা ভূমি অফিসে রেকর্ড রুমে বেতনবিহীন কর্মচারী স্বামী জিয়াউদ্দিনকে অফিস চলাকালে তার তালাক দেয়া স্ত্রী সুমি আক্তার কর্তৃক জুতাপেটা করার ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার পর জিয়াউদ্দিনের সাথে তার তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী সুমি আক্তারের মারামারিতে সুমি আক্তার জখম হন।

গত সোমবার দুপুরে অফিস চলাকালে এ ঘটনা ঘটে। পরে পটিয়া ভূমি অফিস ও সদর ইউনিয়ন ভূমি অফিসে কর্মরত প্রায় এক ডজন বেতনবিহীন কর্মচারীকে তাৎক্ষণিক চাকরিচ্যুত করেছেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিল্টন রায়। গত সোমবার দুপুরের ঘটনার পর রাতে জরুরি বৈঠকে তিনি এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। তালাকপ্রাপ্ত স্বামী জিয়াউদ্দিনের বাড়ি পটিয়া উপজেলার খরনা ইউনিয়নের ওয়াহিদুর পাড়া গ্রামে। তার পিাতার নাম আবদুল খালেক। আর স্ত্রী সুমির বাড়ি কুসুমপুরা ইউনিয়নের মেহের আঁটি গ্রামে।

জানা যায়, পটিয়া উপজেলা ভূমি অফিস ও সদর ইউনিয়ন ভূমি অফিস একই ভবনে অবস্থিত। ওই দুই কার্যালয়ে প্রায় এক ডজন বেতনবিহীন কর্মচারী রয়েছেন। যাদের আয়ের প্রধান উৎস হলো ভূমি অফিসে আগত সেবাপ্রার্থীরা। এসব কর্মচারী সেবাপ্রার্থীদের কাছ সেবা প্রদানের বদলে ইচ্ছেমাফিক টাকা আদায় করে এবং দাবি মতো টাকা না পেলে নানাভাবে হয়রানি করে। তাদের অনেকের বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগও রয়েছে। ভূমি অফিসারদের বাসভবন ব্যবহার অযোগ্য হওয়ায় সেখানে অধিকাংশ কর্মকর্তা বসবাস করেন না। সে সুযোগে সহকারী ভূমি অফিসারের বাসভবনে এক নারীকে নিয়ে প্রায় সময় বসবাস করতেন জিয়াউদ্দিন। গত ৩ জানুয়ারি এক নারীসহ হাতেনাতে অন্য কর্মচারীদের হাতে আটক হন বেতনবিহীন কর্মচারী জিয়াউদ্দিন। ওই সময় তিনি কৌশলে সেখান থেকে পালিয়ে যান। এরপর পরদিন ওই নারীকে বিয়ে করেন। এরপর তিনি আবারও পটিয়া ভূমি অফিসে যোগ দেন। ওই ঘটনার দুই মাস পর জিয়া তার স্ত্রীকে তালাক দেন। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর দায়ের করা মামলা আদালতে চলমান রয়েছে। সর্বশেষ গত সোমবার জিয়ার তালাক দেয়া ওই স্ত্রী ভূমি অফিসে জিয়াউদ্দিনের খোঁজে এলে তিনি রেকর্ড রুমে লুকিয়ে থাকেন। তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী জোর করে সেখানে প্রবেশ করলে স্বামী–স্ত্রীর সাথে মারামারির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার পর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জেলা প্রশাসনের সম্মেলন থেকে ফিরেই জরুরি বৈঠকে বসেন। এরপর এক ডজন বেতনবিহীন কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করেন। এদের মধ্যে মোহাম্মদ হেলাল, জিকু, নন্দ, জসিম, হারুন, জিয়া উদ্দিন, নাছির উদ্দিন এর নাম জানা গেছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিল্টন রায় জানান, এসব কর্মচারীকে শুধু চাকরিচ্যুত করা হয়েছে তা নয়, তারা যাতে ভূমি অফিসে কোনভাবেই প্রবেশ করতে না পারে সে আদেশ জারি করা হয়েছে।

ভূমি অফিসের নাজির কামরুল ইসলাম জানান, সোমবার রাতে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)’র আদেশ মোতাবেক মঙ্গলবার কোন বেতনবিহীন কর্মচারীকে ভূমি অফিসে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। উপজেলা ভূমি অফিসের কানুগগো আবদুস সত্তার জানান, জিয়াসহ কয়েক জনকে জানুয়ারিতে নারী কেলেঙ্কারির ঘটনার পর চাকরিচ্যুত করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন রাজনৈতিক চাপ সৃষ্টি করে প্রশাসনের উপর। তাই আমরা বাধ্য হয়ে এসব কর্মচারীরর অপকর্ম সহ্য করেছি।

পটিয়া থানার ওসি শেখ নেয়ামত উল্লাহ জানান, গত সোমবারের ঘটনায় জিয়াউদ্দিন ও তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী সুমি আক্তার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করেছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

মতামত...