,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর ১৪ইউপি নির্বাচনে শান্তি পূর্ণ ভোট গ্রহণ শুরু

 

শাহ্ মুহাম্মদ শফিউল্লাহ্, বাঁশখালী২৫এপ্রিল, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: শান্তি পূর্ণ ভাবেই ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে চট্টগ্রামের  বাঁশখালী উপজেলার বহুল আলোচিত ১৪ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে।সকাল ৮টা থেকে একটানা বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ করা হবে। ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনকে ঘিরে বাশখালীতে উথসবের আমেজ বিরাজ করছে। এতে প্রায়  ২লক্ষ ৭২হাজার ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

জানা গেছে, ১৪ ইউনিয়নে প্রার্থী সংখ্যা ৭৫৬ জন,  তৎমধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৭২ জন,সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে ১২৯ জন ও সাধারন ওয়ার্ডে ৫৫৫জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মোট ১৪৭ টি কেন্দ্রের মধ্যে ১১০ কেন্দ্র কে ঝুঁকিপূর্ণ দেখানো হয়েছে।

আজকের এ নির্বাচন কে সুষ্ঠু ভাবে সম্পন্ন করতে ১৪ জন ম্যাজিস্ট্রেট, ৭০০ জন পুলিশ, ১৪ প্লাটুনে প্রায় ৪০০ জন বিজিব, ৮ প্লাটুনে প্রায় ১০০ জন র্যাব,  সাদা পোশাক ধারী ২০০ জন স্পেশাল বাহিণী ও প্রায় ৪০০ জন আনসার সহ ৫হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োগ দেয়া হলেও  সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে শংকিত অধিকাংশ প্রার্থী ও ভোটাররা।

২০১৬ সালের ৪ জুন এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও স্থানীয় সাংসদ কর্তৃক নির্বাচনী কর্মকর্তাকে মারদর করার ঘটনায় মাত্র ৩ দিন পূর্বে ৩ জুন নির্বাচন বন্ধ হয়ে যায়। এরপর বিভিন্ন অজুহাতে আরো দুই দফায় নির্বাচন স্থগিত হলেও আজ চতুর্থ বারে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ১৪ ইউনিয়নের মধ্যে সরল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচন হবেনা, ওই ইউনিয়নে ইতোপূর্বে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে গেছে।এ ইউনিয়নে সংরক্ষিত ও সাধারন ওয়ার্ডে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া অপর ১৩ ইউনিয়ন ছনুয়া,পুঁইছড়ী,শেখেরখীল,গন্ডামারা, চাম্বল,শীলকুপ,বৈলছড়ী,কাথারিয়া,বাহারছড়া, খানখানাবাদ,কালীপুর,সাধনপুর ও পুকুরিয়ায় চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত ও সাধারন ওয়ার্ডে নির্বাচন হবে।

ভোটকেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত অধিকাংশ কর্মকর্তা আতংকে নির্বাচনী দায়িত্ব পালনে অনীহা প্রকাশ করে উপজেলা নির্বাচন কেন্দ্র ও সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসারের কাছে আবেদন করলেও প্রশাসনের পক্ষ  থেকে তাদেরকে অভয় দেয়া হয়েছে।

ভারপ্রপ্ত উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শেখ ফরিদকে অতিরিক্ত নির্বাচনী দায়িত্ব দিয়ে গত ১৮ এপ্রিল বাঁশখালীর নির্বাচন কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়।

জানা গেছে, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণের জন্য প্রশাসনের তরফ থেকে ব্যাপক প্রস’তি নেওয়া হয়েছে। মাঠে টহল দিচ্ছে বিজিবি, র্যাব, কোস্টগার্ড, পুলিশ ও আনসার। জোরদার করা হয়েছে পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস’া।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক সামসুল আরেফিন বলেন, ‘বাঁশখালীর ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে হবে। দুষ্কৃতিকারীদের কেউ রেহাই পাবে না।’

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা বলেন, ‘বুনো ওলের জন্য বাঘা তেঁতুল প্রয়োজন। বাঁশখালীর সন্ত্রাসীদের ভোটের দিন বাঘা তেঁতুল কাকে বলে শিখিয়ে দেওয়া হবে।’

অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শেখ ফরিদ বলেন, ‘বাঁশখালীর ১৪ ইউনিয়নে ভোটগ্রহণের জন্য সকল প্রস’তি সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচনী দায়িত্বপ্রাপ্ত কিছু সংখ্যক শিক্ষক-শিক্ষিকা অহেতুক ভয় পাচ্ছেন।’

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, ইসলামী আন্দোলন, ইসলামী ফ্রন্টসহ বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছেন। ১৪টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে ৭২ জন, সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১২৯ জন এবং সাধারণ আসনে ৫৫৫জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

পুকুরিয়ায় চেয়ারম্যান পদে, মো. আক্তার হোসাইন (আনারস), আবদুর রাজ্জাক (নৌকা),আসহাব উদ্দিন (ধানের শীষ), আলতাফ হোছাইন (চশমা)সহ ৪জন।

সংরক্ষিত আসনে ৯ জন এবং সাধারণ আসনে ৪৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
সাধনপুরে চেয়ারম্যান পদে আহসান উল্লাহ চৌধুরী (আনারস), মহিউদ্দিন চৌধুরী খোকা (নৌকা), মহিউদ্দিন (মোটর সাইকেল), মো. রাশেদ (অটোরিকশা), ইন্নে আমিন (টেবিল ফ্যান) ৫জন।

সংরক্ষিত আসনে ১০ জন, সাধারণ আসনে ৩৮ জন প্রার্থী রয়েছে।
কালীপুরে চেয়ারম্যান পদে অ্যাডভোকেট শাহাদত আলম (নৌকা), আমিনুর রহমান চৌধুরী (ধানের শীষ), মো. নাসের (আনারস), সজনূর নাহার (অটোরিকশা) ৪জন।

 সংরক্ষিত আসনে ৯ জন এবং সাধারণ আসনে ৩৮ জন প্রার্থী রয়েছে।
খানখানাবাদে চেয়ারম্যান পদে আক্তার ফারুক (ধানের শীষ), বদরুদ্দিন চৌধুরী (নৌকা),  জাহেদ আকবর জেবু (মোটর সাইকেল), ফরিদুল আলম (্আনারস), ফোরকান চৌধুরী (অটোরিকশা)

৬জন।সংরক্ষিত পদে ৯ জন এবং সাধারণ আসনে ৪৫ জন প্রার্থী রয়েছে।
বাহারছড়ায় চেয়ারম্যান পদে মাস্টার লোকমান আহমদ (ধানের শীষ), বখতেয়ার উদ্দিন চৌধুরী করিম (আনারস), অধ্যাপক তাজুল ইসলাম (নৌকা), রেজাউল করিম চৌধুরী (অটোরিকশা), মো. মুজিবুর রহমান (টেলিফোন), আমান উল্লাহ খান (ঘোড়া), মো. জসীম উদ্দিন (টেবিল ফ্যান), সাজ্জাদ উল্লাহ চৌধুরী (মোটর সাইকেল) জন।

 সংরক্ষিত আসনে ১০ জন, সাধারণ আসনে ৪১ জন প্রার্থী রয়েছে।
কাথারিয়ায় চেয়ারম্যান পদে শাহজাহান চৌধুরী (ধানের শীষ), ইবনে আমিন (নৌকা),  জয়নাল আবেদীন চৌধুরী (অটোরিকশা), আবদুল মালেক (চেয়ার), রাসেল চৌধুরী (রজনীগন্ধা), শাহীন আক্তার (আনারস), মো. নুর হোসেন (মোমবাতি) ৭জন।

 সংরক্ষিত আসনে ৯ জন, সাধারণ আসনে ৩৫ জন প্রার্থী রয়েছে।
বৈলছড়িতে চেয়ারম্যান পদে ইব্রাহিম খলিল (ধানের শীষ), কফিল উদ্দিন চৌধুরী (নৌকা),  ইউসুফ (অটোরিকশা), আবদুল হক (মোটর সাইকেল), নাজিম উদ্দিন (আনারস)  ৫জন।

সংরক্ষিত আসনে ৬ জন, সাধারণ আসনে ৩০ জন প্রার্থী রয়েছে।
এইখানে সংরক্ষিত আসন-২ এ বুলবুলি দাশ বিনা প্রতিদ্বান্দ্বতায় সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।
শীলকূপে চেয়ারম্যান পদে মোজাম্মেল হক সিকদার (নৌকা), মো. মহসিন (ধানের শীষ), আবদুলাহ আল রেজা (চেয়ার), হাজী অছিউর রহমান (লাঙল), শফি আলম (আনারস) ৫জন।

সংরক্ষিত আসনে ৯ জন, সাধারণ আসনে ২৭ জন প্রার্থী রয়েছেন।

গন্ডামারায় চেয়ারম্যান পদে লেয়াকত আলী (ধানের শীষ),  হারুন অর রশীদ তালুকদার (চশমা),  শফকত হোসাইন চাটগামী (হাতপাখা), মো. আরিফ উল্লাহ (মোটর সাইকেল), নুরুল মোস্তফা সিকদার সংগ্রাম (নৌকা), এমএ মালেক মানিক (আনারস), মুরাদুল ইসলাম চৌধুরী (টেবিল ফ্যান), মো. ইকবাল হোসেন (অটোরিকশা), সেলিম উলাহ (টেলিফোন), আজিজুল হক (ঘোড়া) ১১জন।

সংরক্ষিত আসনে ১৪ জন এবং সাধারণ ৬১ জন প্রার্থী রয়েছে।
শেখেরখীলে চেয়ারম্যান পদে মাওলানা হামেদ হাছান (আনারস), মো. ইয়াছিন (নৌকা), সাইফুল ইসলাম (চশমা) ৩জন।

সংরক্ষিত ৭ জন, সাধারণ আসনে ৩৯ জন প্রার্থী রয়েছে।
চাম্বলে চেয়ারম্যান পদে নুর মোহাম্মদ ওসমান গণি (ধানের শীষ), মুজিবুল হক চৌধুরী (নৌকা), আলী নেওয়াজ চৌধুরী ইরান (অটোরিকশা), মো. জকরিয়া (হাতপাখা), আবদুল মান্নান (দুটি পাখা) ৫জন।

 সংরক্ষিত আসনে ১০ জন, সাধারণ আসনে ৪৩ জন প্রার্থী রয়েছে।
পুঁইছড়িতে চেয়ারম্যান পদে সোলতান গণি চৌধুরী (নৌকা), সোলতানুল আজিম চৌধুরী (ধানের শীষ), জসীম উদ্দিন চৌধুরী (রজনীগন্ধা), মো. সোলাইমান (ঢোল), কফিল উদ্দিন চৌধুরী (চশমা), ইয়াছিন আরাফাত গণি চৌধুরী (মোটর সাইকেল) ৬জন।

 সংরক্ষিত আসনে ৮ জন এবং সাধারণ আসনে ৩০ জন প্রার্থী রয়েছে।
ছনুয়ায় চেয়ারম্যান পদে রেজাউল হক চৌধুরী (ধানের শীষ), এম জিলুল করিম শরিফী (নৌকা), এম হারুনুর রশীদ (মোটর সাইকেল), মো. আলমগীর কবির (ঘোড়া), মীর মো. আদম প্রার্থী (আনারস)  ৫জন।

সংরক্ষিত আসনে ১০ জন ও সাধারণ আসনে ৪৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।
সরল ইউনিয়নে সংরক্ষিত আসনে ৯জন ও সাধারণ আসনে ৩৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।

 

মতামত...