,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামের লালদিঘি মাঠে ৫ হাজার জাতীয় পতাকা হাতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::বানিজ্য রাজধানী চট্টগ্রামের লালদিঘি মাঠে একসঙ্গে ৫ হাজার জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি লাভের অর্জনকে উদ্যাপন করবে আজ ।

সারাদেশের ন্যায় চট্টগ্রামেও বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে জেলা প্রশাসন। গতকাল বিকেল ৫টায় চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে এক সংবাদ সম্মেলনে আয়োজনের নানা দিক তুলে ধরেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেন, বিশ্বের এই স্বীকৃতিকে উদ্যাপন করতে দিনের শুরুতে ৭ মার্চের ভাষণ প্রচার করা হবে। সকাল সাড়ে ৯টায় সার্কিট হাউসে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্যে দিয়ে কর্মসূচি শুরু হবে। সকাল ১০টায় বাদ্যের তালে তালে বর্ণাঢ্য সাজে সজ্জিত আনন্দ শোভাযাত্রা সার্কিট হাউস থেকে শুরু হয়ে লালদিঘি মাঠে গিয়ে শেষ হবে। সেখানে ডকুমেন্টারি প্রদর্শন, রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় সরকারি–বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠান ও কয়েক হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেবেন। আনন্দ শোভাযাত্রার পথে রঙ–বেরঙের পোস্টার, ব্যানার দিয়ে সাজানো হবে।

জেলা প্রশাসক বলেন, এই অর্জন ১৬ কোটি মানুষের জন্য গৌরবের। বিশ্বসংস্থা দেরিতে হলেও ৭ মার্চের ভাষণকে বিশ্ব স্বীকৃতি দিয়ে আমাদের গর্বিত করেছে। তিনি বলেন, জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছে। বিশ্ব দরবারে বাঙালির সম্মান, গৌরব ও পরিচিতি বাড়িয়ে দিয়েছেন। পরাধীনতার শৃঙ্খলমুক্ত করেছেন।

এডিসি (সার্বিক) মোহাম্মদ মাসুকুর রজহমান সিকদার বলেন, লালদিঘি মাঠে দুটি বড় পর্দায় জাতিরজনকের ঐতিহাসিক ভাষণ প্রচার করা হবে। ৫ হাজার জাতীয় পতাকা ও আড়াই হাজার টি–শার্ট বিতরণ করা হবে। ৫ হাজার পতাকা নিয়ে একসঙ্গে হাত উঁচিয়ে দিনটি ব্যতিক্রমভাবে উদ্যাপিত করা হবে। হাত উঁচিয়ে অভিবাদন জানানো হবে। সন্ধ্যা ৬টায় শিল্পকলা একাডেমিতে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’ প্রদর্শন করা হবে।
প্রসঙ্গত, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কোর ‘মেমোরি অব দ্যা ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল এ অন্তর্ভূক্তির মাধ্যমে বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য’ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। বাঙালি জাতির এই অসামান্য অর্জনকে সারাদেশব্যাপী যথাযোগ্য মর্যাদায় আনন্দ শোভাযাত্রার মাধ্যমে দিনটি উদ্যাপনের জন্য সরকারিভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

মতামত...