,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামের সেরা ১০ স্কুল

colagietbnr ad 250x70 1নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চট্টগ্রাম,  চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এসএসসি পরীক্ষায় ১ম স্থানটি এবারো অক্ষুন্ন রেখেছে ঐতিহ্যবাহি চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল। ২০০৪-২০১৬ সাল থেকে শুরু করে টানা ১২ বার বোর্ড সেরা হয়েছে এ স্কুলটি। এবারে কলেজিয়েট স্কুলে ৪০২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়ে ৩৭৯ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে আর পাসের হার শতভাগ।

 চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এবারও কলেজিয়েট স্কুলের  ফলাফল  চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের সব চেয়ে ভাল। মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা থাকায় এবার অানুষ্ঠানিক ভাবে বোর্ড কোন সেরা স্কুল ঘোষণা করা হয়নি।

১২বার সেরা হওয়ার পেছনে শিক্ষকরা নিয়মিত শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়া, নিয়মিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়া ও শিক্ষকদের নিয়মিত তদারকিকে সাফল্যের কারণ বলে মনে করছেন কলেজিয়েট স্কুলের অধ্যক্ষ মো.গিয়াস উদ্দিন।

 বুধবার সকাল ১১টায় ফলাফল ঘোষণা করেন চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাহবুব হাসান।

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এবার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে চট্টগ্রাম গভ: মুসলিম হাই স্কুল। এ স্কুলে ৪১৪ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়ে ৩৩৮জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে, পাস শতভাগ।

তৃতীয় স্থানে রয়েছে ডা.খাস্তগীর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। ৩১৯জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়ে ২৮০জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে, এ স্কুলেও পাস শতভাগ।

 চতুর্থ স্থানে রয়েছে নাসিরাবাদ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়। এ স্কুলে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে ৩৮৫জন শিক্ষার্থী এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৬৪জন আর পাস করেছে ৩৪২জন শিক্ষার্থী।

পঞ্চম স্থানে রয়েছে বাওয়া স্কুল। এ স্কুলে ৪১২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৫৬জন আর পাস করেছে ৪১০জন শিক্ষার্থী।

ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, এ স্কুলে ৩২২জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়ে ২১৯জন জিপিএ-৫ পেয়েছে আর পাস করেছে ৩২১ জন শিক্ষার্থী।

সপ্তম স্থানে রয়েছে ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ। ১০০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫৫জন আর পাস করেছে ৫৬জন শিক্ষার্থী।

চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় এবার পাসের হার ৯০ দশমিক ৪৪ শতাংশ।  এছাড়া জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭ হাজার ৬৬৬ জন শিক্ষার্থী।

এবছর চট্টগ্রাম বোর্ডে ১ লাখ ১২ হাজার ৯৫৯ পরীক্ষার্থীর মধ্যে নিয়মিত পরীক্ষার্থী ছিল ৯৮ হাজার ৭০৩ জন, অনিয়মিত ১৪ হাজার ১৮৫ জন এবং মানউন্নয়ন পরীক্ষার্থী ছিল ৭১জন। এছাড়া তিনটি বিভাগের মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগের পরীক্ষার্থীর ছিল ২৪ হাজার ৫৭১ জন। মানবিক বিভাগের ৩০ হাজার ৬৮৮ জন এবং ব্যবসায় শিক্ষায় ৫৭ হাজার ৭০০ জন পরীক্ষার্থী ছিল।

মতামত...