,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণ

ajনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে নতুন মোড়,নেতা কর্মীদের মধ্যে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন ও চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর মধ্যে বৃহস্পতিবার হঠাৎ অনির্ধারিত বৈঠক করেছেন। দীর্ঘদিন পর হঠাৎ করে দুই শীর্ষনেতার অনির্ধারিত বৈঠকেকে ঘিরে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের উৎসুক নেতাকর্মীদের মধ্যে চলছে নানা সমীকরণ।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি জিইসি মোড়স্থ প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র আলহাজ্ব এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সাথে দেখা করতে আসেন। চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগের এই দুই শীর্ষনেতা প্রায় আধ ঘণ্টার মতো একান্তে আলাপ-আলোচনা করেন।

রাজনৈতিক সহযোদ্ধার পাশাপাশি এই দুই নেতা একে অপরের বন্ধুও বটে। রাজনৈতিক নানান সমীকরণের কারণে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কিছুটা আগ থেকে এই দুই বন্ধুর মাঝে কিছুটা দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছিল বলে চট্টগ্রামের রাজনৈতিক অঙ্গনে বেশ গুঞ্জন ছড়িয়েছিল। কিন্তু মেয়র নির্বাচনের এক বছরের মাথায় এসে তাদেরকে আবারো পূর্বের হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্কে দেখা গেছে । নেতাকর্মীরা মনে করছেন, চট্টগ্রামের রাজনীতিতে নতুন কোন মেরুকরণ হতে পারে বা চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে এই দুই শীর্ষনেতা আবারো এক সাথে চট্টগ্রামের রাজপথে নামতে পারেন।

জিইসির মোড়ে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে উপস্থিতি নেতাকার্মীরা বিডিনিউজ রিভিউজকে জানান, দুই শীর্ষনেতার সৌহার্দ্যপূর্ণ আলাপ-আলোচনা দেখে মনে হয়েছে ‘চলমান রাজনৈতিক বিষয় নিয়েই তারা আলাপ-আলোচনা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী গত মঙ্গলবার সংসদীয় কমিটির সভায় নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে মহিউদ্দিন চৌধুরীর কাছে হয়তো কেন্দ্রীয় কিছু দিক-নির্দেশনা দেয়া হয়েছে-দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী পরিষদ দলের প্রেসিডিয়াম মেম্বার ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের মাধ্যমে।’

এ ব্যাপারে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর এপিএস ওসমান গণি বিডিনিউজ রিভিউজকে জানান, মন্ত্রী মহোদয় (গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন) হঠাৎ করেই বিকেলে স্যারের সাথে (এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী) দেখা করতে এসেছেন। স্যারের সাথে এর আগে কথা হয়েছে কিনা আমি জানি না। প্রায় আধ ঘণ্টার মতো ছিলেন মন্ত্রী মহোদয়। দুইজনে কি কথা হয়েছে আমি জানি না।’

নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের বেশ অবদান ছিল বলে নেতাকর্মীদের মাঝে বেশ গুঞ্জন রয়েছে। কিন্তু মেয়র নিবাচনের পর সম্প্রতি জাতিসংঘ পার্ক নিয়ে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের মধ্যে কিছুটা দূরত্ব সৃষ্টি হয়। মেয়রের এক বছর পূর্তি অনুষ্ঠানেও তিনি উপস্থিত ছিলেন না। এদিকে গত মেয়র নির্বাচনের পর থেকে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সাথেও সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনের কিছুটা দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে।

চট্টগ্রামের রাজনীতির এমন সমীকরণে নতুন করে কোন ধরণের মেরুকরণ সৃষ্টি হতে পারে বলে নেতাকর্মীরা মনে করছেন। কেন্দ্রীয় নির্দেশনায় হোক অথবা স্থানীয়ভাবেই হোক আসন্ন নির্বাচনে নেতাকর্মীদের মধ্যে তার প্রভাব পড়তে পারে বলে  ধারনা করা হচ্ছে।

মতামত...