,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে আ.লীগ অফিসে হামলা-ভাঙচুর পুলিশের গুলিতে ৬ আহত

aনিজস্ব প্রতিবেদক,বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চট্টগ্রাম, চট্টগ্রাম মহানগরী লালদীঘির পাড়ে অবস্থিত চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর চালিয়েছে বিক্ষুব্দ নেতাকর্মীরা। এসময় দলের দুই পক্ষের মধ্যে সংর্ঘষ থামাতে পুলিশ ফাঁকা গুলি চালিয়েছে। শুক্রবার বেলা ১১টা থেকে সাড়ে ১২টার মধ্যে এ হামলা ও সংর্ঘষের ঘটনা ঘটেছে। সংর্ঘষে অন্তত ৬ জন নেতাকর্মী গুলিতে আহত হয়েছে। তবে আহতের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

সংর্ঘষ চলাকালে পুরো লালদীঘি এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। আশে পাশের দোকানপাট এবং যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

কোতোয়ালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ফাঁকা গুলি ও কাঁদানো গ্যাস নিক্ষেপ করে পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণে এনেছে ঘটনার পরপরই কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তিনি জানান, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আনোয়ারা ও কর্ণফুলী থানা এলাকায় চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীদের মনোনয়ন পাওয়া না পাওয়াকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের অফিসের সামনে দুই এলাকার কর্মী সমর্থকরা সংর্ঘষে লিপ্ত হয়। পরে পুলিশ ফাঁকা গুলি ও কাঁদানে গ্যাস ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। সমর্থকরা জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করেছে।

দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, শুক্রবার কার্যালয়ে আনোয়ারা উপজেলা ও কর্ণফুলী থানার চেয়ারম্যান প্রার্থীদের নামের তালিকা ঘোষণার কথা ছিল। পরে তা বাতিল করা হয়। এ অবস্থায় বেলা ১১টার দিকে আকস্মিকভাবে আনোয়ারা ও কর্ণফুলী থানা থেকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এসে হামলা ও ভাঙচুর চালায়।

সংর্ঘষে লিপ্ত এবং হামলাকারীরা চট্টগ্রামের আনোয়ারা-কর্ণফুলী এলাকার সংসদ সদস্য ও ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদের অনুসারী বলে আমরা জানতে পেরেছি।

কর্ণফুলি থানা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম হ্নদয় জানান, তৃণমূল পর্যয়ে এবং থানা পর্যায়ে মনোনীত এমপি সমর্থিত মেম্বার এবং চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বাদ দিয়ে বাইরের কিছু প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হচ্ছে এমন সংবাদের আজ সকালে কর্ণফুলি এবং আনোয়ারা উপজেলা নেতাকর্মীরা প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। হয়তো কিছু বিক্ষুব্দ নেতাকর্মী হামলা করেছে। তবে পুলিশের গুলিতে ৫/৬ নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে শুনেছি।
উল্লেখ্য ইউনিয়ন পরিষদের মনোনয়ন নিয়ে পুরো চট্টগ্রাম জুড়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে বিরোধ দেখা দিয়েছে।

গত মঙ্গলবার বোয়ালখালীর ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীদের মনোনয়নকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের অফিসে দু’পক্ষের মারামারিতে ছুরিকাঘাতে তিনজন আহত হন। এ ঘটনার রেশ ধরে পর দিন বোয়ালখালি উপজেলায় দুই গুপের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা বেশ কয়েকজন আহত এবং ৩ জন আটক হয়।

মতামত...