,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে গৃহব্ধুকে এসিড নিক্ষেপ ১জন আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, ১০ ফেব্রুয়ারী বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::চট্টগ্রাম নগরীতে এসিড সন্ত্রাসের শিকার হয়েছেন এক গৃহবধূ। তিনি ‘কিউট’ নামে একটি বিউটি পার্লার এর মালিক। বাসা খুঁজতে চশমা হিলস্থ মেয়র গলিতে এলে এ এসিড সন্ত্রাসের শিকার হন তিনি।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে। এসিড নিক্ষেপের পর পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়রা এসিড নিক্ষেপকারীকে পাকড়াও করে পাঁচলাইশ থানা পুলিশের হাতে তুলে দেন। এসিড নিক্ষেপকারী এ যুবকের নাম মিন্টু নাথ । সে একজনের ভাড়াটে হিসেবে এ কাজ করার কথা জানিয়েছে পুলিশকে। এসিডে দগ্ধ গৃহবধূর নাম মাধবী বড়ুয়া (২১)।  বায়েজিদ থানার চন্দ্রনগর এলাকায় স্বামীর সাথে থাকেন তিনি। তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। মাধবীর হাত ও মুখের ৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম বলেছেন, ওই গৃহবধূর অবস্থা আশংকামুক্ত বলে ডাক্তাররা জানিয়েছেন। ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে স্থানীয় বেলায়েত হোসেন রুবায়েত জানান, ওই তরুণী বাসা খোঁজার জন্য মেয়র গলিতে আসেন। এসময় চশমা হিল ব্রীজের উপরেই তার মুখে এসিড নিক্ষেপ করে বখাটে মিন্টু। ওই মেয়ের চিৎকার শুনে আমিসহ আরো কয়েকজন দৌঁড়ে গিয়ে মিন্টুকে পাকড়াও করি। এরপর পাঁচলাইশ থানা পুলিশের হাতে থাকা সোপর্দ করা হয়।
আটক মিন্টু নাথ (২৫) রাঙ্গামাটি জেলার রাজস্থলী থানার বাঙালহালিয়া চৌধুরী পাড়ার লাল মোহন নাথের ছেলে।

পাঁচলাইশ থানার এসআই জসিম উদ্দিন জানান, ‘এসিড নিক্ষেপের পরপরই ঘটনাস্থলে গিয়ে জনগণের সহায়তায় মিন্টুকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, অন্য একজন তাকে একটি পানি ভরা বোতল দিয়ে ওই তরুণীর গায়ে নিক্ষেপ করতে বলেছিল। বোতলের ভেতর ‘হুজুরের পড়া পানি’ ছিল বলে তাকে জানানো হয়। ওই পানি তরুণীর গায়ে নিক্ষেপ করার পর,সে বুঝতে পারে এগুলো পড়া পানি নয়, এসিড।
এসআই জসিম আরো বলেন, ‘নিজেকে বাঁচানোর জন্য এমন গল্প বানিয়ে বলতে পারে সে। তাই তাকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য ভিকটিমের সঙ্গেও কথা বলবো।’ তিনি জানান, এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় মিন্টুর বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হচ্ছে।
চমেক হাসপাতালে ওই তরুণীকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম বলেছেন, এসিড দগ্ধ ওই তরুণীর বাসা বায়েজীদ চন্দ্রনগর হাউজিং এলাকায়। কিউট নামে একটি বিউটি পার্লারেরও মালিক মেয়েটি। বাসা খোঁজার জন্য চশমা হিল এলাকায় আসলে তাকে এসিডে ঝলছে দেয় মিন্টু নাথ।

মতামত...