,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে চিকিৎসকদের মামলা প্রত্যাহার না হলে কর্মবিরতি চলবে

dr assocনিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,২৩, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম):: চট্টগ্রামে চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা দুটি মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে চিকিৎসকদের চলমান কর্মবিরতি পরবর্তি ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত চলবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়শনের (বিএমএ) চট্টগ্রামের নেতারা।

শনিবার বিকেল চারটার দিকে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়শনের (বিএমএ) চট্টগ্রামের সভাপতি ডা. মুজিবুল হক।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামে চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা দুটি মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে চিকিৎসকদের চলমান আন্দোলন অব্যহত থাকলেও, এসমস্যা সমাধানে সন্তোসজনক কোনো অগ্রগতি হয়নি। তাই সংগঠনের পক্ষ থেকে এ কর্মবিরতি পরবর্তি ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত চলমান রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এ বিষয় নিয়ে আমরা চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের সাথেও আলোচনা করেছি। আমরা চাই যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে, তার সন্তোসজনক সমাধান হোক।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়শনের (বিএমএ) চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ডা. মোহাম্মদ শরীফ।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়,একজন চিকিৎসকের কাছে রোগীর মূল্য অনেক বেশি । কোনো ডাক্তারই চায় না ভুল চিকিৎসায় রোগী মারা যাক। কিন্তু চিকিৎসকের সর্বোচ্চ সেবা প্রদানের পরেও অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটে যায়। এ ধরনের ঘটনা ঘটলে আমরা দুঃখিত ও ব্যথিত হই । তারপরও তদন্তের একটি বিষয় থেকে যায় ।

কিন্তু তদন্তের ফলাফল না পাওয়ার আগে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া এবং গ্রেপ্তার করে হয়রানি করা কোনোভাবেই কাম্য নয়। তাই এটির সম্মানজনক সমাধান না হওয়া অবধি সকল প্রকার প্রাইভেট প্র্যাকটিস বন্ধ থাকবে। এছাড়াও সাম্প্রতিক সময়ে মেহেরুন্নেসাসহ তিন রোগীর মৃত্যুর কারণ বর্ণনা করে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের অবহেলা নেই বলেও দাবি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করার পর পূর্ব ঘোষণা ছাড়া আকস্মিকভাবে তিন ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে রোগীদের জিম্মি করে ফেলায় সাংবাদিকদের তোপের মুখে পড়েন বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) নেতারা। এসময় সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নে জর্জরিত হন তারা।

বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিএমএ সভাপতি ডা. মুজিবুল হক খান, যুগ্ম সম্পাদক ডা. ফয়সাল ইকবাল, প্রবীণ চিকিৎসক ডা. ইমরান বিন ইউনূস প্রমুখ।

ডা. শামীমা সিদ্দিকা রোজী, ডা. মাহবুব আলম ও ডা. রানা চৌধুরীর বিরুদ্ধে হয়রানি ও মানহানিমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রাইভেট প্র্যাকটিস বন্ধ করে দেওয়ায় ভুক্তভোগী রোগী ও স্বজনদের ক্ষোভ বাড়ছে।

বেসরকারি হাসপাতাল ও প্রাইভেট প্র্যাকটিস সেবা বন্ধ থাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন রোগী ও তাদের স্বজনরা। বৃহস্পতিবার থেকে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়গনোস্টিক সেন্টারের বাইরে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়শনের আহ্বানে হাসপাতাল বন্ধ আছে এমন নোটিশ সাঁটানো আছে।

 

মতামত...