,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে জমকালো আয়োজনে পর্দা উঠল জেবি বিপিএল’র

BPL openingক্রীড়া প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ বন্দর নগরী চট্টগ্রামে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে থেকে পর্দা উঠল জেবি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ ফুটবলের (বিপিএল)। বুধবার রাতে  এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে নাচ, গান আর আতশবাজির ঝলকানিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। রাত ৯টায় চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের উদ্বোধন ঘোষণার সাথে সাথে সুরের মূর্ছনার সঙ্গে আতশবাজির আলোকচ্ছটায় এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের আকাশ রঙিন হয়ে উঠে। ‘বল বল বল-এবার মাতবে ফুটবল’ এই থিম সঙের সুরের মূর্ছনায় কয়েকটি সাংস্কৃতিক দলের পারফরম্যান্স এবং লেজার পারফরমেন্স ও ফায়ারওয়ার্কসে মেতে উঠে বিপিএল নবম আসরের উদ্বোধন অনুষ্ঠান।

aবিপিএল ফুটবলের স্মরণকালের সেরা এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের জন্য স্টেডিয়ামের গেট খুলে দেয়া হয় বিকেল পাঁচটায়। ছয়টায় অনুষ্ঠান শুরুর কথা থাকলেও শিল্পিদের পারফরম্যান্স শুরু হয় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা থেকে। এরপর শুরু হয় ক্লাব কর্মকর্তা এবং অধিনায়কদের পরিচিতির পালা। পতাকা নিয়ে একেকটি ক্লাবের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, কোচ, ম্যানেজার এবং অধিনায়ক উঠেন মঞ্চে। তাদের জন্য মঞ্চের চারপাশে একেকটি করে বসার স্থান করা হয়। তাদের পরিচিতির পরে শুরু হয় থিম সঙ।

‘বল বল বল-মাতবে এবার ফুটবল’ এই গানের সাথে অসাধারণ পারফরম্যান্স করেন চিত্রনায়ক নিরব ও মেহজাবিন ও সহ শিল্পীবৃন্দ। রাত তখন ৮টা ৪৫ মিনিট। মঞ্চে ডাকা হয় বিপিএল’র স্পন্সর সাইফ গ্লোবাল স্পোর্টসের সত্ত্বাধিকারী তরফদার রুহুল আমীনকে।

তিনি তার স্বাগত বক্তব্যে বলেন, ‘গত বছর শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব ফুটবল চট্টগ্রাম থেকে ফুটবলের জাগরণ সৃষ্টি করেছিল। তারই ধারাবাহিকতায় এবার বিপিএল নতুন আঙ্গিকে চট্টগ্রাম থেকেই শুরু করা হচ্ছে।’

 উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অংশগ্রহণকারী দলের অধিনায়ক ও ক্লাব কর্মকর্তারা। একপর্যায়ে তাঁদের একে একে মঞ্চে ডাকা হয়। তবে শেখ জামাল ধানমন্ডি ও ঢাকা মোহামেডান ক্লাবের প্রতিনিধিদের নিজ নিজ আসনে দেখা যায়নি। যথাসময়ে হাজির হয়েও অনুষ্ঠানের কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতির কারণে বিরক্তি প্রকাশ করে তাঁরা মঞ্চে ডাকার আগেই মাঠ ত্যাগ করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এরপর সঞ্চালকের দায়িত্ব তিনি নিয়ে মঞ্চে একেক করে ডেকে উপস্থিত করালেন চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, বাফুফের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন, সালাম মুর্শেদী, শামসুল হক চৌধুরী এমপি, টুর্ণামেন্ট ব্রান্ড এ্যাম্বেসেডর কন্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম এমপিকে।

 প্রথমে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, ‘বিপিএল চট্টগ্রাম থেকে শুরু করার একটিই কারণ সেটি হলো চট্টগ্রামের মানুষ ফুটবলপ্রেমি। যেটি আমরা শেখ কামাল ফুটবলে দেখেছি। আশা করছি এবারও চট্টগ্রামবাসী মাঠে এসে খেলা দেখবেন।’

আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, ‘ফুটবলের গণজাগরণ সৃষ্টি করে যেমন শেখ কামাল টুর্ণামেন্ট সফল করেছে চট্টগ্রামবাসী, তেমনি এই বিপিএলও সফল করবে চট্টগ্রামের মানুষ।’ এরপর তিনি ঘোষণা করেন বিপিএল নবম আসরের উদ্বোধন।

এদিকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকেও আরামবাগ ও মুক্তিযোদ্ধার প্রতিনিধিরা নাম ডাকার পরও মঞ্চে ওঠেননি। অগত্যা প্রথমে আট দলের খেলোয়াড়-কর্মকর্তারা মঞ্চে ওঠেন। এর কিছুক্ষণ পর কর্মকর্তাদের অনুরোধে আবারও মাঠে আসে শেখ জামাল ও ঢাকা মোহামেডান। পরে ওই দুই দলের সঙ্গে আরামবাগ ও মুক্তিযোদ্ধার প্রতিনিধিরাও মঞ্চে হাজির হয়ে ফটোসেশনে অংশ নেন।

২৪ জুলাই শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব ও উত্তর বারিধারার মধ্যকার উদ্বোধনী ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে নবম বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ ফুটবল (বিপিএল)।

মতামত...