,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে নারীরা শিখছেন আত্মরক্ষার কৌশল

Ashikur Rahmanআশিকুর রহমান, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ প্রশিক্ষণ চট্টগ্রামে নারীদের জন্য আত্মরক্ষা প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আয়োজন করেছে স্বেচ্ছাসেবক সংগঠন ক্র্যাক প্লাটুন। কর্মসূচিটি শুরু হয়েছে ২২ এপ্রিল শুরু হওয়া এ প্রশিক্ষণ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে আগামী ২৬ এপ্রিল। জানা গেছে, যেকোনো বয়সের নারী ও কিশোরী এই প্রশিক্ষণে অংশ নিতে পারবেন। বাণিজ্যিক রাজধানী নগরীর সিআরবি এলাকায় উন্মুক্ত মাঠে দেওয়া হচ্ছে এই প্রশিক্ষণ। শুক্রবার বিকেল ৩টা থেকে ৫টা পর্যন্ত তিনদিনের এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচির প্রথম দিনে অংশ নিয়েছিলেন প্রায় অর্ধশত তরুণী।

সাম্প্রতিক সময়ে দেশে নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়ে যাওয়ায় সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির অংশ হিসেবে নিজেদের উদ্যোগেই এই কর্মসূচির আয়োজন করেছে ক্র্যাক প্লাটুন। সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, মোহাম্মদ ইমরানের তত্ত্বাবধানে চলছে প্রশিক্ষণ। এছাড়া অন্য সদস্য শোভন তনচঙ্গা, তাহিয়া তারান্নুম মেধাসহ অনেকেই এ প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন অংশগ্রহণকারীদের। এদের প্রত্যেকেই কারাতে, তায়কোয়োন্দসহ আত্মরক্ষার বিভিন্ন কৌশলের ওপর সিদ্ধহস্ত।

aকেন এই প্রশিক্ষণের আয়োজন, ‘জানতে চাইলে মোহাম্মদ ইমরান জানান, নারীর প্রতি সহিংসতা পিছিয়ে পড়া সমাজেরই লক্ষণ। সমাজকে এগিয়ে নিতে যে মানসিক উন্নতি প্রয়োজন, তা অনেক দীর্ঘমেয়াদী ব্যাপার। এই দীর্ঘ সময়ে নারীদের নিজেদের নিরাপত্তার দায়িত্ব নিজেদেরই নিতে হবে। না হলে এক সময় তারাও ঘরবন্দি হয়ে পড়বেন। তাই সহিংসতা রোধে শক্তি প্রয়োগের কোনো বিকল্প নেই।’

যাদের জন্য এ আয়োজন তাদের উৎসাহ কেমন, এ প্রশ্নের জবাবে সংগঠন সদস্য শোভন তনচঙ্গা জানান, ‘আত্মরক্ষার প্রাথমিক কিছু কৌশল শেখানো হচ্ছে। কোনো রকম খরচও নেই। খোলা মাঠে প্রকাশ্যে সবাই দেখছেন কী হচ্ছে, না হচ্ছে। তাই দ্বিধার কোনো অবকাশ নেই। আগের তুলনায় অংশগ্রহণ তাই বাড়ছে।’

প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থী তাহিয়া তারান্নুম মেধা। তিনি বলেন, ‘মেয়েদের সেলফ ডিফেন্স বা কারাতে শেখার ব্যাপারটা আমাদের সমাজ এখনো হয়তো ভালোভাবে গ্রহণ করতে পারেনি। কিন্তু যারা এতে অসম্মতি প্রকাশ করছেন, তারা কি একবারের জন্যও ভেবে দেখেছেন যে, সমাজের পিশাচ শ্রেণির লোকগুলোর পরের শিকার তাদেরই কোনো নারী স্বজন হতে পারেন?’

‘সামান্য প্রশিক্ষণ’ দিয়ে কি আসলেই শেষপর্যন্ত আত্মরক্ষা সম্ভব এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে অংশগ্রহণকারী উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী রুবাইয়্যা উলফাৎ বলেন, ‘একদিন টেডিবাজার থেকে আন্দরকিল্লার দিকে যাচ্ছিলাম। রিকশা খোঁজার সময় হঠাৎ অস্বাভাবিক স্পর্শ শরীরে খেয়াল করলাম। পেছনে ফিরে দেখি ৩০ বছর বয়সের এক লোক ছুটে গেল। পরে দৌড়ে গিয়ে ওই লোকটাকে ধরে ব্যাগ দিয়ে ইচ্ছেমতো পিটিয়েছি। লোকটিও ভয় পেয়েছিল। এ রকম স্ট্রং মানসিকতা থাকলে আমরা মনে করি সবই সম্ভব।’

মতামত...