,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে বর্ধিত গৃহকর অযৌক্তিক: মহিউদ্দিন চৌধুরী

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::বানিজ্য রাজধানী খ্যাত চট্টগ্রামের বর্ধিত গৃহকরকে ‘অযৌক্তিক’ আখ্যায়িত করে মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ভাড়ার ভিত্তিতে গৃহকর আরোপ জনস্বার্থ পরিপন্থী। তা নগরীর আদি বাসিন্দাদের ‘ছিন্নমূলে’ পরিণত করবে।

বুধবার দুপুরে নগরীর চশমা হিলের বাসায় নগর বাইশ মহল্লা কমিটির সর্দারদের সাথে বৈঠকে তিনি এ মন্তব্য করেন। বৈঠকে বাইশ মহল্লার সর্দার কমিটির সভাপতি ইউসুফ সর্দার, সর্দার কমিটির নেতা আবু মোহাম্মদ মুছা চৌধুরী, আলী বক্স, শওকত আলী, মাহমুদুর রহমান, জাগির সর্দার, নাছের আহমদ, মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর, সিরাজুল ইসলাম, সালাউদ্দিন ইবনে আহমদ, মোহাম্মদ নুরুল হক ও মোহাম্মদ তারেক অংশ নেন। নগরীর বিভিন্ন এলাকার প্রাচীন মহল্লাগুলোর সর্দারদের নিয়ে বাইশ মহল্লা কমিটি গঠিত।

বৈঠকে মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত বসত ভিটায় প্রজন্ম পরম্পরায় ওয়ারিশান ও পোষ্যের সংখ্যা বেড়েছে। ফলে কোনো রকমে তাদের মাথা গোঁজার ঠাঁই হলেও ভাড়ার ভিত্তিতে গৃহকর আরোপ জনস্বার্থ পরিপন্থী। ইতিমধ্যে নগর আওয়ামী লীগের সভা করে বর্ধিত গৃহকরের বিরুদ্ধে নিজের ও তার অনুসারীদের অবস্থান জানিয়েছেন মহিউদ্দিন। গৃহকর কমাতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং দলীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে ডাকযোগে চিঠি পাঠানোর কথাও মহিউদ্দিন গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে নগরীর আদি বাসিন্দাদের সংগঠন বাইশ মহল্লা কমিটির নেতাদের সাথে বৈঠকে করলেন তিনি। বৈঠকে মহিউদ্দিন বলেন, আপিলের মাধ্যমে গৃহকর সহনীয় রাখার যে কথা বলা হচ্ছে তা আইওয়াশ। দশ গুণ বাড়িয়ে তার থেকে পঁচাত্তর শতাংশ কমানো হলে তা গৃহমালিকদের জন্য সহনীয় হবে না। ‘তাই ভুল প্রক্রিয়ায় বর্ধিত গৃহকর ধার্যের প্রস্তাব প্রত্যাহার করে স্থাপনার আয়তনের ভিত্তিতে তিন থেকে পাঁচ শতাংশ বাড়িয়ে গৃহকর নির্ধারণই গ্র্রহণযোগ্য সমাধান।

মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, আইন ও মন্ত্রণালয়ের দোহাই দিয়ে নগরবাসীর ওপর জুলুম করা হচ্ছে। ১৯৮৬ সালে গৃহীত সিটি করপোরেশন ট্যাক্সেসন রুলস একটি এক্ট বা অর্ডিন্যান্স মাত্র। এটা সংসদে আইন হিসেবে পাস হয়নি। তাই কোনো সিটি করপোরেশন এটাকে আইন হিসেবে প্রয়োগ করেনি। সিসিসির সেবার মান যখন সর্বনিম্ন পর্যায়ে এবং নাগরিক ভোগান্তি চরমে তখন কথিত এই এক্টকে আইন বলে চাপিয়ে দিলে অযৌক্তিক গৃহকর প্রদানে নগরবাসী বাধ্য নয়’। তিনবারের নির্বাচিত সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন বলেন, বর্ধিত গৃহকর সহনীয় মাত্রায় আনার নামে আপিলের মূলা ঝুলিয়ে অবৈধ প্রক্রিয়াকে বৈধতা দিতে নগরবাসী রাজি নয়। জনগণের নেতা হয়ে যদি তাদের ভাষা বুঝতে না পারি তা হলে জনগণ ক্ষমা করবে না। আমাদের কোনো নেতার ভুলে যদি বর্তমান সরকারের নজিরবিহীন সাফল্য ম্লান হবার উপক্রম হয় তা দল ও সরকারের জন্য বিপদজনক।

মতামত...