,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে বাশেঁর খুটি ও বালির বস্তায় শহর রক্ষা বাধঁ!

বাবুল হোসেন বাbari badবলা, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ চট্টগ্রাম, চট্রগ্রাম শহর রক্ষায় পতেঙ্গা থেকে

                                                ঘূর্ণিঝড়ের আগে তোলা ছবি

কুমিঁরা(ফৌজদার হাট)পর্যন্ত প্রায় ২৩ কিলোমিটার দীঘ বেড়ীবাধঁটি ১ম নির্মিত হয় ১৯৬৫সালে। আর এটি রক্ষা ও দেখবাল করার দায়িত্ব শুরুথেকেই পানি উন্নয়ন বোর্ড পালন করছেন বলে বোর্ড সূত্রে জানা গেছে ।
বিগত ২৯ শে এপ্রিল বেড়ীবাঁধ রক্ষা ও ১৯৯১সালে ঘূর্ণিঝড়ে নিহতের স্মরণসভাতেই দুইযুগ (২৪বছর) পূর্তিতে আয়োজক এলাকাবাসীর পক্ষে সাবেক কাউন্সিলর হাজি আব্দুল বারেক কোং জানিয়েছিলেন ২০১৪ সালে পানি উন্নয়ন বোর্ড চাপে পড়ে মাত্র কোটি টাকা ব্যায়ে সাগরের বালু , মোঠা বাশ খুটি গেড়ে বাধঁটি কে জলোচ¦ছাস প্রতিরোধ উপযোগী ব্যর্থ চেষ্টা মাত্র।
ঐ বছরের ২য় মাসেই প্রবল জোয়ারের পানিতে ভাঙ্গা অংশে আরো দ্বিগুনাকারে ভেঙ্গে মারাত্মক হুমকিতে পড়ে বাধঁটি। এর কিছু দিন পরে বর্তমান পানি সম্পদ মন্ত্রী ব্যারিষ্টর আনিসুল হক মাহমুদ এবং সাবেক সিটি মেয়র এবি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী পতেঙ্গা বেড়ীবাঁধে সরজমিনে পরিদর্শনে এসে বলেন,এই বাধেঁর সাথে চট্রগ্রামের শিল্প-কলকারখানা,তেল শোধনাকার,টিএসপি সার কারখানা,দ’ুটি গামের্ন্টস(ইপিজেড) শিল্প,সিমেন্ট কারখানা, চট্রগ্রাম সমূদ্র বন্দর ,কাষ্টম পর্যটন স্পর্ট,বিমান বন্দর ,নৌ বাহিনী ঘাটি,বিমান ঘাটি,উলকা এবং ল্খালাখ জন বসতির ঘর-বাড়ী,ফসল,গাছ-গাছালী ও মাছের ঘের সহ ইত্যাদি স্থাপনা। এগুলো রক্ষার জন্য বাধঁটি দ্রুত সংস্কার উদ্যোগ নিতে হবেই।তাদের এই আশ^াস ও ঘোষনায় পেরিয়ে গেছে ২টি বছর।
২০১৩সালে বাধঁটি রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড২৩৪কোটি টাকার একটি প্রকল্প গ্রহণ করলেও তা এখনো ফাইল বন্দি বলে জানা গেছে । আর এদিকে চট্রগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ সিটি আউটার রিংরোড নামে প্রকল্পের কাজ শুরু হলেও সময় মতো শেষ হবে কি না তা নিয়ে সন্ব^শয় প্রকাশ করছেন সিডিএ এর কর্তাব্যক্তিরা ।সে সময়ের বাধঁটি এখনো ক্ষত-বিক্ষত হয়ে মৃত্যুর প্রহর গনছে।
খেজুর তলার বাসিন্দা সেলিম জানান,১৯৯১সালের পর থেে চোখে পড়ার মতো কোন সংস্কার বেড়ী বাধেঁর কেউ করেন নি ।সমূদ্র সৈক দোকান সমিতির সভাপতি ওয়াহিদুল আলম জানান, বেড়ী বাধেঁর দুপাশেপ্রায় ৭শত দোকানী ব্যবসা করে পরিবার পরিজন নিয়ে কোন মতে চলে ।এটি জরুরী ভিত্তিতে বাধেঁর সংস্কার না করলে এই ৭শত দোকানীর ২হাজার সদস্য কোথায় গিয়ে দাড়াবে? চলতি মাসের ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর আঘাতে ১৫নংঘাট থেকে নেভাল এভিনিউ সড়গটি প্রায় বিলিন হবার পথে।বাধের শুরুর অংশে সীবিচ দিয়ে সংযোগটিতে ব্যাপক ক্ষতিতে মানুষকে চরমভীতে ফেলেছে।
এ প্রসঙ্গে বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌঃ বিদ্যুত কুমার সাহা বলেন, ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর আঘাতে বেড়ী বাধেঁর তেমন কোন ক্ষতি হয়নি ॥আর রিং রোড তৈরির কারণে ২০১৭এর জুন মাসের আগে আমরা এতে কোন রূপ হাত দিতে পারছি না।
বাধঁ রক্ষা কমিটির দাবি উন্নয়ন হোক বা সংস্কার করা যেটি হোক না কেন-বাধেঁর দু-পাশে বেশী বেশী গাছ লাগিয়ে প্রতিরোধক না দিলে যত কাজ করা হবে কিছু সঠিকভাবে ঠিক বেনা ।তাই রক্ষা রোধক বৃক্ষ লাগিয়ে বাধঁকে উন্নয়ন করতে কর্র্তপক্ষের ।বাধের সাথে ২৬,২৭,৩৬,৩৭, ৩৮,৩৯,৪০.৪১নং ওয়ার্ডটির লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবন-জীবিকা সহ বাঁচা মরার বিশাল একটি প্রশ্ন?
বার আঘাতে বাধের বিভিন্ন অংশে পাথরের ব্লক সরে গিয়ে প্রাকৃতিক দূর্যোগকে বাশেঁর খুটি আর বালির বসতা দিয়ে শহর রক্ষাবাধঁ কতটুকু জলোচ¦্ছাস প্রতিরোত করতে পারবে সেটি সরকারের দায়িত্বশীলরা নজর না দিলে মারাত্মক ক্ষতি সমাল দেয়া সম্ভব হবে না ।

মতামত...