,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে চিকিৎসকদের আকস্মিক ধর্মঘট শুরু

1001নিজস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,২০, জানুয়ারি (বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম):: চট্টগ্রামে তিন ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রতিবাদে নগরীর সকল বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ধর্মঘট করে চিকিৎসা সেবা বন্ধ করে দিয়েছেন চিকিৎসকরা। বুধবার বিকাল থেকে আকস্মিকভাবে এ কর্মসূচির কারণে দুর্ভোগে পড়েছেন নগরীর বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগী ও তাদের স্বজনরা।

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী নূরুল ইসলাম বিএসসি’র ভাতিজি মৃত্যুর ঘটনায় দুই ডাক্তারের অবহেলা আর ভুল চিকিৎসার অভিযোগে এবং অপারেশনের সময় এক কিশোরের পেটে ব্যান্ডেজ রাখার অভিযোগে চট্টগ্রম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে একজনসহ ৩ ডাক্তারের বিরুদ্ধে মঙলবার পৃথক দুটি মামলার প্রতিবাদে ডাক্তাররা বেসরকারী হাসপাতালে বুধবার বিকেল থেকে চিকিৎসা সেবা বন্ধ করে দিলে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

দুপুরে বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়শন (বিএমএ) চট্টগ্রাম শাখার এক জরুরী বৈঠকে মামলা প্রত্যাহারের এ ধর্মঘট পালনের আহবান জানিয়েছেন সংগঠনের সভাপতি ডা. মুজিবুল হক খান ।

তিনি বলেন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আমাদের তিন সদস্যের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা ও হয়রানীমূলক মামলা প্রত্যাহার করার দাবিতে দুপুর ২টা থেকে চট্টগ্রামের সব বেসরকারি ক্লিনিকে সকল ধরণের প্রাইভেট চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকবে ।  সরকারি হাসপাতালে জরুরী চিকিৎসা ছাড়া নিয়মিত কোনো ধরণের অস্ত্রোপচার হবে না। তবে রুটিন চিকিৎসা সেবা চলবে। বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে মামলা প্রত্যাহার করা না হলে আরো কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে বলে জানান চিকিৎসকদের এই নেতা।

ডা. মুজিবুল হক জানান, চিকিৎসা সেবাকে কেন্দ্র করে ক্লিনিকে হামলা ভাঙচুর এবং ডাক্তারদের বিরুদ্ধে মামলা করাটা এখন একটা রীতি হয়ে দাড়িয়েছে। একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে অনেক শ্রম ব্যায় করতে হয়।
একজন ডাক্তার কখনো কাউকে মারতে চান না। তার পরও মৃত্যু হবেই। এর জন্য আমাদের উপর হামলা মামলা হবে কেন। তিনি বলেন বাধ্য হয়ে আমরা এ কর্মসূচি দিয়েছি।

চিকিৎসকদের এ ধরনের আকস্মিক সিদ্ধান্তের ফলে বিপাকে পড়েছেন নগরীর বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগী ও তাদের স্বজনরা।

অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগে ডা, মাহবুবুল আলম ও ডা.শামীমা রোজী এবং অপারেশনের পর রোগীর পেটে ব্যান্ডেজ রেখে দেওয়ার অভিযোগে ডা. রানা চৌধুরীর বিরুদ্ধে মঙ্গলবার চট্টগ্রাম আদালতে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়।

মঙ্গলবার এ দুটি মামলা আমলে নিয়ে চট্টগ্রাম মহানগর বিচারক মোহাম্মদ ফরিদ আলম পাঁচলাইশ থানা পুলিশকে এজহার হিসেবে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। দায়েরকৃত দুটি মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দেলনে নামেন চট্টগ্রামের চিকিৎসকেরা।

গত ৯ জানুয়ারি নগরীর সার্জিস্কোপ হাসপাতালে সন্তান প্রসবের পর চিকিৎসকদের অবহেলায় মৃত্যু হয় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি’র ছোট ভাই খাইরুল বশরের মেয়ে মেহেরুন্নেছার। এ ঘটনায় ডা. মাহবুবুল আলম ও ডা. শামীমা রোজীকে দায়ী করা হয় এবং ঘটনার পর নগরী সার্জিস্কোপ ক্লিনিকে ব্যাপক ভাঙচুর করা হয় সেদিন রাতে।

এছাড়া অপারেশনের সময় নুরুল আবছার নামে এক কিশোরের পেটে ব্যান্ডেজ রাখার অভিযোগে চট্টগ্রম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের সহকারী রেজিস্টার ডা. রানা চৌধুরীর বিরুদ্ধে একই আদালতে ছেলের অঙ্গহানির অভিযোগ এনে মামলা করেছেন ওই কিশোরের বাবা জেবল হোসেন।

মতামত...