,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে মিটারে চলছে সিএনজি, ট্রাফিক পুলিশ ও বিআরটিএ’র অভিযান চলছে

cng policeনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ মিটারে সিএনজিচালিত অটোরিকশা না চালিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়ে গত দুই দিনে প্রায় ১৭’শ মামলা করেছে ট্রাফিক পুলিশ ও বিআরটিএ। আর এর সুফলও মিলেছে হাতেনাতে। অভিযানের তৃতীয় দিনে মঙ্গলবার এসে মিটারে গাড়ি চালানোর হার দাঁড়িয়েছে ৮০ শতাংশে।

সূত্র জানায়, সিএনজিচালিত অটোরিকশা মিটারে না চালানো এবং অবৈধ গাড়ি ধরার বিরুদ্ধে রোববার থেকে যৌথ অভিযানে নামে ট্রাফিক পুলিশ বিআরটিএ। এর মধ্যে প্রথমদিনই ৯৫০টি মামলা ও ৪০টি গাড়ি আটক করা হয়। এরপর সোমবার দ্বিতীয় দিনের অভিযানে ৭৫০টি মামলা ও ৩০টি গাড়ি আটক করা হয়।

তবে মঙ্গলবারের অভিযানে ৮০ শতাংশ গাড়িই মিটারে চলতে দেখছে অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া ট্রাফিক পুলিশ ও বিআরটিএ’র কর্মকর্তারা।

উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মাসুদ উল হাসান বলেন, অভিযানের প্রথম দুই দিনে ১৭০০ মামলা ও ৭০টি গাড়ি আটক করার পর তৃতীয় দিনে এসে মিটারে গাড়ি চালানোর হার দেখা যাচ্ছে ৮০ শতাংশ। অভিযান আরও কয়েকদিন চললে এই হার ১০০ শতাংশে এসে দাঁড়াবে বলে আমরা আশাবাদী।

তিনি বলেন, মিটারে গাড়ি চালানো কার্যকর হওয়ার পরেও আমরা যাত্রীদের কাছ থেকে প্রায় সময় অভিযোগ পাচ্ছি চালকেরা মিটারে গাড়ি চালাচ্ছে না। আমরা অভিযানে মেট্রো এলাকায় যেসব গাড়ি চলতে পারবে না সেই গাড়ি গুলোর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিচ্ছি।

তিনি মিটারে গাড়ি না চালালে পুলিশকে অভিযোগ জানাতে অনুরোধ করে বলেন, প্রতিটি সিএনজি অটোরিকশার গায়েই আমরা আমাদের কন্ট্রোল রুমের নম্বর, অভিযোগের নম্বর দিয়েছি। যাত্রীরা সেইসব নম্বরে ফোন করে তাদের অভিযোগ জানাতে পারবেন।

এসময় বেশ কয়েকজন যাত্রী পুলিশকে অভিযোগ করে বলেন, চালকরা কাছের গন্তব্য হলে মিটারে যেতে চান না, শুধুমাত্র দূরের গন্তব্যে মিটারে যেতে চান। কাছের গন্তব্যে নির্ধারিত হারের চেয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করেন।

অভিযানে বিআরটিএ’র পক্ষে ছিলেন উপ পরিচালক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ। তিনি বলেন, ‘আমরা এখন পুলিশের সঙ্গে যৌথ অভিযানে নামলেও নিয়মিত আমাদের উদ্যোগে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়।’

 

মতামত...