,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে সংঘর্ষে পণ্ড ছাত্রলীগের সোহেল হত্যা প্রতিবাদ সমাবেশ

aনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃচট্টগ্রাম, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাছিম আহমেদ সোহেল হত্যার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের একাংশের ডাকা সমাবেশ নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে পণ্ড হয়ে গেছে। তবে আয়োজক ছাত্রলীগ নেতারা বলছেন, যারা সোহেল হত্যার বিচার চায় না, সেই দুর্বৃত্তরাই সুকৌশলে এ কাজ করেছে।

আয়োজিত এই সমাবেশে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের যোগ দেওয়ার কথা থাকলেও সমাবেশ পণ্ড হওয়ায় তিনি ঘটনাস্থলে আসেন নি।

শনিবার বিকালে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত নেতা-কর্মীরা সমাবেশটির আয়োজন করেছিল। সমাবেশে অতিথিদের বক্তব্যের মধ্যেই নেতাকর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় তাদের চেয়ার ছোঁড়াছুঁড়ি করতেও দেখা গেছে। এ সময় বেশ কয়েকজনকে মারধর করার পাশাপাশি দু’টি ফাঁকা গুলি ছোঁড়ার শব্দ শোনা যায় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

জানা গেছে, বিকাল ৫টার দিকে সমাবেশে বক্তব্য চলাকালে অনুষ্ঠানস্থলে বসাকে কেন্দ্র করে চেয়ার ছোঁড়াছুঁড়ি শুরু করেন ছাত্রলীগের কর্মীরা। এ সময় মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা সবাইকে শান্ত করার চেষ্টা করলেও তা সম্ভব হয়নি। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনি সবাইকে শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বক্তব্য শুরু করলেও উত্তেজনা চলতে থাকে। এসময় হাসান মাহমুদ হাসনি বলেন, ছাত্রলীগকর্মী সোহেল হত্যার বিচার দাবিতে আমরা শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশ করলেও একদল দুষ্কৃতকারী আমাদের প্রতিবাদকে দমাতে এখানে বিশৃঙ্খলা করছে। বিশৃঙ্খলা না করে সবাই শান্ত হয়ে বসুন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এর অল্প কিছুক্ষণ পর সমাবেশ চলাকালেই আবারও সমাবেশের মাঝখান থেকে ফাঁকা গুলি ছোঁড়া হলে আবার চেয়ার ছোঁড়াছুঁড়ি শুরু হয়। সংঘর্ষ চলাকালে মাইকে পুলিশকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার অনুরোধ করা হয়। সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ সবাইকে সরিয়ে দিলে সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়। এ ব্যাপারে কোতোয়ালী থানার ওসি জসিম উদ্দিন বলেন, সমাবেশে সংঘর্ষ শুরু হলে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে নেতাকর্মীদের সরিয়ে দেয়।

সমাবেশে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার মধ্যে পড়ে আহত হওয়া মো. রিপন নামে একজন বলেন, হঠাৎ করে গুলির আওয়াজে ভীত হয়ে সবাই ছোটাছুটি শুরু করল। আমি একপাশে দাঁড়িয়ে ছিলাম, ধাক্কা লেগে পড়ে আমার হাত-পা ছিঁড়ে গেছে। মেয়রের অনুসারী হিসেবে পরিচিত কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা ফয়সাল বাপ্পী আজাদীকে জানান, যারা সোহেল হত্যাকাণ্ডের বিচার চায় না তারাই ছদ্মবেশে সমাবেশে অনুপ্রবেশ করে হাতাহাতির ঘটনা ঘটিয়েছে।

মতামত...