,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে সাংসদ লতিফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

latif1দিলরুবা খানমঃ   বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকম:: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি বিকৃত করার অভিযোগে সংসদ সদস্য এম এ লতিফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে ও তথ্যপ্রযুক্তি আইনের (আইসিটি) বহুল আলোচিত ৫৭ ধারায় দুইটি মামলা দায়ের করা  হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার মহানগর হাকিম ফরিদ আলমের আদালতে মামলা দু’টি দায়ের করা হয়।

মহানগর হাকিম আদালতে করা মামলা দুটি গ্রহণ করে তথ্য-প্রযুক্তি আইনের অভিযোগ তদন্ত এবং রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগের বিষয়ে নিয়ম অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক ফরিদুল আলম।

এর মধ্যে ফৌজদারি দণ্ডবিধির ১২৪ ধারায় রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগটি করেছেন মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা কে এম বেলায়েত হোসেন।

বঙ্গবন্ধুর ছবি ‘বিকৃত করে’ সাংসদ এম এ লতিফ ‘সংবিধানবিরোধী’ কাজ করেছেন বলে মামলায় অভিযোগ করেছেন বাদী।

তার অভিযোগ শুনে বিচারক সংশ্লিষ্ট থানার ওসিকে এ বিষয়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন।

বাদীর ঠিকানা কোতোয়ালি এলাকায় হওয়ায় ওই থানার ওসি এখন অভিযোগের বিষয়ে জানিয়ে সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে মামলার অনুমতি চাইবেন। সরকারের অনুমোদন পেলে মামলার কার্যক্রম শুরু হবে।

লতিফের বিরুদ্ধে অন্য মামলাটি করেছেন যুবলীগের সাবেক নেতা সাইফুদ্দিন আহমেদ রবি, যিনি একই ঘটনায় এর আগে হাজার কোটি টাকার মানহানির মামলা করেছিলেন।

তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় করা এবারের মামলায় লতিফসহ মোট চারজনকে আসামি করেছেন তিনি।

আদালত তার অভিযোগ শুনে পাঁচলাইশ থানার ওসিকে তদন্ত করে ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলেছেন।

তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা সাইফুদ্দিন আহমেদ রবি বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলার বাদি হলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি একেএম বেলায়েত হোসেন।   এর আগে বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতির অপরাধে লতিফের বিরুদ্ধে আরও দু’টি মামলা দায়ের হয়েছে। সব মিলে এম এ লতিফের বিরুদ্ধে মামলার সংখ্যা দাঁড়ালো ৪ টি।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার চট্টগ্রাম সফর উপলক্ষে চট্টগ্রাম-১১ আসনের এমপি এম এ লতিফের নামে নগরীর টাইগারপাস থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানের রাস্তার দু’পাশে বঙ্গবন্ধুর ছবি সংবলিত পোস্টার লাগানো হয়। এসব পোস্টারে ফটোশপের মাধ্যমে এম এ লতিফের শরীরের ওপর বঙ্গবন্ধুর মুখ লাগানো হয় বলে অভিযোগ ওঠে। সব পোস্টারের নিচে এম এ লতিফের উদ্ধৃতি ছিল। এ ঘটনায় জামায়াত থেকে আওয়ামী লীগে আসা বিতর্কিত এই এমপির প্রতি বিরক্তি প্রকাশ করছেন অনেকেই। গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের আদালতে তার বিরুদ্ধে এক হাজার কোটি টাকার একটি মানহানির মামলা করেন দলেরই সহযোগী সংগঠনের এক নেতা। এ ঘটনায় এর আগে তিনি ছবি বিকৃতির বিষয়টি স্বীকার করলেও নিজের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছিলেন। সে সময় তিনি বলেন, ‘যাদের তিনি পোস্টার তৈরি করতে দিয়েছিলেন, তারাই হয়তো দুষ্কৃতিকারীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে এবং তাকে বিপদে ফেলতে এমন কাজ করেছে।

 

বিএনআর/১৬২৯/০০০৪ /পি

মতামত...