,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রামে ৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রবাসী কল্যাণ কেন্দ্র হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ১১ফেব্রুয়ারী, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: চট্টগ্রামে ৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রবাসী কল্যাণ কেন্দ্র হচ্ছে। কাজের জন্য বিদেশগামীদের সাময়িক আবাসন, নিরাপদ অর্থ লেনদেনসহ বিভিন্ন সেবা দিতে চট্টগ্রামে ‘প্রবাসী কল্যাণ কেন্দ্র’ তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে বিএমইটি। শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে পাঁচতলা ভবনের এ কেন্দ্র নির্মাণের জন্য চারটি সম্ভাব্য জায়গা বাছাই করে মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস (বিএমইটি)।

চট্টগ্রামে প্রবাসী কল্যাণ কেন্দ্র হলে শ্রমিকদের বিদেশে যাওয়া-আসার ক্ষেত্রে ফ্লাইট বিলম্বসহ অন্যান্য কারণে সাময়িক সময়ের জন্য আবাসন সুবিধা দেয়া যাবে। পাশাপাশি তাদের নিরাপদ অর্থ লেনদেন, ব্যাংকিংসহ অন্যান্য সুবিধা দেওয়া যাবে বলে জানান বিএমইটি কর্মকর্তারা।

চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জহিরুল আলম মজুমদার বলেন, প্রবাসীদের বড় একটি অংশ চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দর দিয়ে যাতায়াত করেন। ‘প্রবাসী কল্যাণ কেন্দ্র’ হলে তাদের বিভিন্ন প্রয়োজন এখান থেকে মেটানো যাবে। তিনি বলেন, ‘কেন্দ্র নির্মাণের জন্য সম্ভাব্য জায়গা নির্ধারণ করে প্রস্তাব ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। আমরা ইতিবাচক সাড়াও পেয়েছি। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় কেন্দ্রটি নির্মাণের সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৪ কোটি ৯০ লাখ ৯৩ হাজার টাকা।’ পাশাপাশি গণপূর্ত অধিদপ্তর প্রস্তাবিত একটি জায়গার ডিজিটাল সার্ভেও ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানান জহিরুল আলম মজুমদার। বিএমইটি’র প্রস্তাবে কেন্দ্রটি নির্মাণের জন্য বিমানবন্দরের কাছের চারটি জায়গা প্রস্তাব করা হয়েছে। তার মধ্যে দুটি চট্টগ্রাম বন্দর, একটি বিমানবন্দর ও অন্যটি ব্যক্তি মালিকানার।

গণপূর্ত অধিদপ্তরের, চট্টগ্রাম-৩ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহজাহান বলেন, বিএমইটি’র প্রস্তাবিত তিনটির মধ্যে একটি জায়গায় সার্ভে করে গণপূর্ত অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে পাঠিয়েছেন তারা। প্রবাসী কল্যাণ অধিদপ্তর বিস্তারিত প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) তৈরি করে পরিকল্পনা কমিশনে পাঠাবে।

জহিরুল আলম মজুমদার জানান, প্রাথমিকভাবে পাঁচতলা ভবন নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে। সিটি করপোরেশনের মাধ্যমে গত মাসে উচ্চতার জন্য সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে। সিভিল এভিয়েশন যে উচ্চতার অনুমোদন দেবে সেভাবে ভবনটি নির্মাণ করা হবে।

বিএমইটির এই কর্মকর্তা বলেন, প্রবাসীরা দেশে আসলে কিংবা যাওয়ার পথে অনেক সময় ফ্লাইট বিলম্ব হলে কিছু সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। কেন্দ্রটি নির্মাণ করা হলে প্রবাসীদের সেসব সমস্যা অনেকটা লাঘব হবে। এই কেন্দ্র থেকে বিদেশ যাওয়ার আগ মুহূর্তে বিভিন্ন করণীয় সম্পর্কেও যাত্রীদের তথ্য দেওয়া হবে। যাওয়া-আসার পথে অসুস্থ হয়ে পড়া যাত্রীদের প্রাথমিক চিকিৎসা সেবার পাশাপাশি পরিবহন সুবিধাও এখান থেকে দেওয়ার কথা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো প্রস্তাবে বলেছে বিএমইটি। কেন্দ্রে ক্যাফেটেরিয়া, ফার্মেসিসহ দেশীয় বিভিন্ন হস্তশিল্পের দোকান রাখারও পরিকল্পনা করেছে তারা।

মতামত...