,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রাম বোর্ডে ফলাফল পরিবর্তন ১ হাজার ১২৯ শিক্ষার্থীর জিপিএ ৫ পেল ৩৯ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ এইচএসসি পরীক্ষায় পুনঃনিরীক্ষার মাধ্যমে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে ফলাফল পরিবর্তন হয়েছে এক হাজার ১২৯ জনের। এর মধ্যে নতুন করে জিপিএ ফাইভ পেয়েছেন ৩৯ জন। ফেল থেকে পাস করেছেন ৮৬ জন। পুনঃনিরীক্ষার জন্য আবেদন করা ১৫ হাজার ৯২৩ জন পরীক্ষার্থীর ৫৫ হাজার ৮৭৯টি খাতা পুনঃনিরীক্ষা করে এই ফলাফল পেয়েছে শিক্ষাবোর্ড।

আজ শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইটে ও আবেদনকারীদের মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে এই ফলাফল সরবরাহ করা হয়েছে বলে জানান চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাহবুব হাসান। তিনি জানান, পুনঃনিরীক্ষায় নতুন করে খাতা মূল্যায়ন করা হয়নি। উত্তরপত্রে কোনো পরীক্ষার্থীর খাতায় বৃত্ত ভরাটে ভুল হয়েছে কি না, কোনো প্রশ্নের উত্তর অমূল্যায়িত থেকেছে কি না, খাতার নম্বর গণনায় ভুল হয়েছে কি না- তা যাচাই করা হয়েছে। কোনো প্রশ্ন অমূল্যায়িত থাকলেই শুধুমাত্র নতুন করে নম্বর দেয়া হয়েছে।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বলেন, এবার নম্বর পরিবর্তন হয়েছে এক হাজার ১২৯ জন শিক্ষার্থীর। শিক্ষার্থীরা বোর্ডের ওয়েবসাইটে গিয়ে রোল নম্বর ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর দিয়ে পরিবর্তিত নম্বর দেখতে পারবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এসব ভুলের জন্য পরীক্ষার্থী, পরীক্ষক ও প্রধান পরীক্ষক দায়ী হতে পারে। আমরা এই ঘটনায় যেসব পরীক্ষক ও প্রধান পরীক্ষকের নাম পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধেও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়ে থাকি।’

গত ১৮ আগস্ট এইচএসসির ফলাফল প্রকাশ হয়। ওই ফলাফল অনুযায়ী চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে পাসের হার ছিল ৬৪ দশমিক ৬ শতাংশ। জিপিএ ফাইফ পান দুই হাজার ২৫৩ জন। এরপর ২৫ আগস্ট পর্যন্ত পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন পাঠানোর সময় পেয়েছে শিক্ষার্থীরা। টেলিটক মোবাইলে পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করে এসব শিক্ষার্থী।

চট্টগ্রাম বোর্ডে পুনঃনিরীক্ষার জন্য আবেদন করা বেশিরভাগ ফেল করেছিলেন তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ে। এই বিভাগে ফেল করা মোট পাঁচ হাজার ১৪৩ জন আবেদন করেছিলেন পুনঃনিরীক্ষার জন্য। এ ছাড়া বাংলায় ফেল করা চার হাজার ৯৯১, ইংরেজিতে ফেল করা চার হাজার ৩৪৯, পদার্থবিজ্ঞানে ফেল করা দুই হাজার ৯৮১, রসায়নে ফেল করা দুই হাজার ৪২৩, জীববিজ্ঞানে ফেল করা দুই হাজার ৩৬০, হিসাব বিজ্ঞানে ফেল করা এক হাজার ১৮৬ ও গণিতে ফেল করা এক হাজার ২১২ জন আবেদন করেছিল।

মতামত...