,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রাম শহরের ফুটপাত হকার মুক্ত হচ্ছে কখন?

নিজস্ব প্রতিবেদক, ৫ জুলাই, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::চট্টগ্রাম শহরের হকার নেতারা চসিক মেয়রকে কথা দিয়েছিলেন ঈদের পর থেকে তারা নিজেরাই শৃঙ্খলার মধ্যে চলে আসবেন। জুলাইয়ের প্রথম দিন থেকে নগরীর হকারদের শৃঙ্খলায় আনার ঘোষণা দিলেও তা কার্যকর করতে পারেনি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। নিউমার্কেট এলাকাসহ নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় হকাররা আগের মতই স্থায়ী দোকানে ব্যবসা করছেন।তবে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেছেন, জরিপ এবং যাচাই–বাছাই কাজ সম্পন্ন না হওয়ার কারণে ঘোষণা কার্যকর করা যায়নি। আগামী সপ্তাহ থেকে তাদেরকে ফুটপাতের এক তৃতীয়াংশ চিহ্নিত করে দিয়ে বিকাল ৫টার পর ব্যবসা করার সুযোগ দেয়া হবে। দিনের বেলায় ফুটপাতে কোন হকার বসতে পারবে না।

সরেজমিন দেখা গেছে, নিউমার্কেট, রিয়াজুদ্দিন বাজার আমতল, আগ্রাবাদ, ষোলশহর দুই নম্বর গেটসহ বিভিন্ন এলাকায় হকাররা আবার তাদের পসরা সাজিয়ে বসছে। হকারদের প্রস্তুতি দেখে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে যে, এই শহরের হকাররা আদৌ কি শৃঙ্খলার মধ্যে আসবে ?

সিটি মেয়র বলেন, জেডিএল, হকার সমিতির কাছ থেকে হকারদের তালিকা নেয়া হয়েছে। একইসাথে সিটি ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে সরেজমিন তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সংগৃহীত তালিকা থেকে যাচাই–বাছাই করে প্রকৃত হকারদের আইডি কার্ড প্রদান করা হবে। ফুটপাতে তিন ভাগের এক ভাগ জায়গা চিহ্নিত করে বিকাল ৫টার পর থেকে রাত পর্যন্ত হকারদের বসতে দেয়া হবে। দোকানের কোন স্থায়ী কাঠামোও থাকবে বলে তিনি জানান। রোদ ও বৃষ্টির হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রয়োজনের হকারদেরকে চসিকের পক্ষ থেকে ছাতা সরবরাহ করা হবে।

সিটি মেয়রকে দেয়া কথা রাখেননি হকাররা। ঈদের আগে নিউমার্কেট এলাকার সড়ক থেকে পুলিশের হকার উচ্ছেদের ঘটনার পর হকার নেতারা চসিক মেয়রকে কথা দিয়েছিলেন ঈদের পর থেকে তারা নিজেরাই শৃঙ্খলার মধ্যে চলে আসবেন। এর বিনিময়ে তারা ঈদ পর্যন্ত ব্যবসা করতে চান। ঈদের পর তাদের উচ্ছেদে আর পুলিশ পাঠাতে হবে না। মেয়র তাদের অনুরোধ রেখেছিলেন। কিন্তু ঈদ চলে গেলেও তাদের কোন পরিবর্তন হয়নি। বরং তারা বর্ষায় নির্বিঘেœ ব্যবসা করার লক্ষ্যে তারা ফুটপাতের ওপর স্থায়ী কাঠামো নির্মাণ করছেন।

নগর হকার লীগের সাধারণ সম্পাদক হকার লীগ হারুনুর রশিদ বলেন, চট্টগ্রাম শহরে নিবন্ধিত হকারের সংখ্যা ১০ হাজার এবং অনিবন্ধিত হকার আছে আরো প্রায় ১০ হাজার। সিটি কর্পোরেশনকে তাদের পক্ষ থেকে হকারদের তালিকা প্রদান করা হয়েছে। জেডিএল–এ যে তালিকা আছে তার সাথে হকারদের সংগঠনের তালিকার মিল থাকবে।

হকারদের জরিপের দায়িত্বে থাকা চসিকের সিটি ম্যাজিস্ট্রেট সনজিদা শরমিন বলেন, জরিপ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। ঈদের সময় কিছু হকার গ্রামের বাড়িতে চলে যাওয়ার কারণে তালিকা তৈরি সম্পন্ন হয়নি। তারা দুইদিন সময় চেয়েছে।

মতামত...