,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চট্টগ্রাম সেনানিবাসে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান: সরকারের আস্থায় সশস্ত্র বাহিনীর অর্জন ও সফলতা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::সশস্ত্র বাহিনী দিবস ২০১৭ উপলক্ষে ২১ নভেম্বর সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম সেনানিবাসে একটি সান্ধ্যকালীন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, সংসদ সদস্যগণ, সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, কূটনীতিকবৃন্দ, চট্টগ্রাম এরিয়ার সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনীতে কর্মরত বিভিন্ন পদবীর কর্মকর্তাগণ, অবসরপ্রাপ্ত সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ এবং স্কুল–কলেজের ছাত্রছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সশস্ত্র বাহিনীর বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকা–ের ভিডিও ও স্থিরচিত্র প্রদর্শন এবং তিন বাহিনীর বাদক দলের সমন্বয়ে বাদ্যযন্ত্র পরিবেশন ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন ডিসপ্লে পরিবেশন করা হয়। অনুষ্ঠানে ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও চট্টগ্রাম এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল মো. জাহাঙ্গীর কবির তালুকদার, কমান্ডার চট্টগ্রাম নৌ অঞ্চল রিয়ার এডমিরাল এম আবু আশরাফ এবং এয়ার অফিসার কমান্ডিং এয়ার কমডোর মোরশেদ হাসান সিদ্দিকী সকলের সাথে শুভেচ্ছা ও কুশল বিনিময় করেন।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে মেজর জেনারেল মো. জাহাঙ্গীর কবির তালুকদার বলেন, ২৬ মার্চ ১৯৭১–য়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে এদেশের আপামর জনতা সশস্ত্র বাহিনীর সাথে একীভূত হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল প্রিয় মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য। তিনি সশস্ত্র বাহিনী দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বলেন, সশস্ত্র বাহিনীর যা কিছু অর্জন ও সফলতা এসেছে তা সম্ভব হয়েছে সশস্ত্র বাহিনীর উপর সরকারের আস্থা ও প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা এবং বেসামরিক প্রশাসনের আন্তরিক সহযোগিতার মাধ্যমে। তিনি বলেন– জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবায়নে তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সশস্ত্র বাহিনীর সামগ্রিক উন্নয়ন ও আধুনিকায়নে সর্বদাই সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদান করেছেন। এ লক্ষ্য অর্জনে ঋড়ৎপবং এড়ধষ ২০৩০ এর আওতায় বাহিনীসমূহের জনবল বৃদ্ধি, কমান্ড সম্প্রসারণ, আধুনিক প্রযুক্তির যুদ্ধ সরঞ্জাম সংযুক্তি, উন্নত আবাসন ব্যবস্থা ও কল্যাণ ইত্যাদি কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। এই উন্নয়ন কার্যক্রমের আওতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে বিভিন্ন ইউনিট, ব্রিগেড ও ডিভিশনের প্রতিষ্ঠাসহ আধুনিক সমর সরঞ্জাম সংযুক্ত করা হয়েছে। আমাদের সাঁজোয়া, গোলন্দাজ ও পদাতিক বাহিনীতে নতুন নতুন যুদ্ধ সরঞ্জাম বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে।

শেষে প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমির উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি এবং মাতৃভূমির স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও অখ–তা রক্ষায় নিয়োজিত সশস্ত্র বাহিনীর সকল

সদস্য ও দেশের সকলের উত্তরোত্তর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি