,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

চন্দনাইশে আওয়ামী লীগের সভায় দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ২০ জন আহত

চন্দনাইশ সংবাদদাতা, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম::চন্দনাইশে আওয়ামী লীগের সভায় মাইক দখলকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ–সভাপতি, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক, দুই এসআইসহ ২০ জনের অধিক আহত হয়েছেন। আহতদের চন্দনাইশ সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বিজিসি ট্রাস্ট, চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর জের ধরে দেড় ঘণ্টা ধরে মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন নেতাকর্মীরা। ফাঁকা কয়েক রাউন্ড গুলির আওয়াজ শোনা যায়।

চন্দনাইশ সদরস্থ শাহ্ আমিন শিশু পার্কে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সন্ত্রাস, নৈরাজের প্রতিবাদে নির্ধারিত সভা গতকাল ২৬ অক্টোবর বিকালে সভার শুরু হওয়ার পূর্ব মুহূর্তে মাইক দখলকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এ সময় দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ ও ইট পাটকেল নিক্ষেপ ও ফাঁকা কয়েক রাউন্ড গুলির আওয়াজ শোনা যায়। সংঘর্ষ চলাকালে দক্ষিণ জেলা আ.লীগের সহ–সভাপতি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান (৬০), উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য আবু আহমদ জুনু (৪৫), পৌর আ.লীগের আহবায়ক এম. কায়সার উদ্দীন চৌধুরী (৫৫), প্রচার সম্পাদক হেলাল উদ্দিন চৌধুরী (৪৪), চৌধুরী পাড়ার আবদুর রশিদের ছেলে মো. লোকমান (৩২), হাছনদ–ী মৃত আবদুচ ছালামের ছেলে মো. নেছার (২৮), হারলার জালাল উদ্দীনের ছেলে মো. হারুন (৩২), চন্দনাইশ সদরের আবদুচ ছমদের ছেলে মো. জসিম (২৮), পশ্চিম এলাহাবাদের মো. ওসমান (৩৫), সৈয়দাবাদের মো. আমজাদ (৩৫), নুরুল ইসলাম (৪৮), আবদুর রহিম (৪০), পূর্ব মোহাম্মদপুরের মো. লোকমান (৪০), এসআই প্রদীপ (৩১), এসআই মজিবুর রহমান (৩২)সহ ২০ জনের অধিক আহত হন। আহতদের চন্দনাইশ সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বিজিসি ট্রাস্ট হাসপাতাল ও চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আবু আহমদ, হেলাল উদ্দিন চৌধুরী ও ওসমানসহ ৬ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম–কক্সবাজার মহাসড়কের বাদামতল, গাছবাড়ীয়া কলেজ গেট, বাগিচা হাট, দোহাজারীতে সড়ক অবরোধ করেন নেতাকর্মীরা। চট্টগ্রাম–কক্সবাজার মহাসড়কে দীর্ঘ দেড় ঘণ্টা পর যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। ফলে বৃহস্পতিবার সরকারি ছুটির দিনে ঘরমুখো মানুষকে বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল ও মহাসড়কে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

উপজেলা আ.লীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জাহাঙ্গীর বলেছেন, সভা শুরু হবার পূর্ব মুহূর্তে ১টি মিছিল আসে। মিছিল থেকে উশৃঙ্খল স্লোগান দেয়া হয়। তাছাড়া মাইকে বেলাল হোসেন মিঠু সভায় লোকজনদের আসার আহবান জানান। এসময় হঠাৎ করে মাইকের স্থানে হালকা ধাক্কাধাক্কি হয়। পরে চারিদিক থেকে ইট–পাটকেল নিক্ষেপ শুরু হলে সভাস্থল থেকে নেতাকর্মীরা দিক–বিদিক ছোটাছুটি করতে থাকেন। এসময় নেতাকমীদের অনেকে আহত হন। খবর পেয়ে সংসদ সদস্য আলহাজ নজরুল ইসলাম চৌধুরী আহতদের হাসপাতালে দেখতে যান।

চন্দনাইশ থানা অফিসার ইনচার্জ ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বলেছেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কার্যকর ভূমিকা পালন করে। পরবর্তীতে মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। তবে থানায় কোনো ধরণের মামলা হয়নি বলে জানান তিনি।
উল্লেখ্য, গতকাল ২৬ অক্টোবর বৃহস্পতিবার পৌরসভা সদরস্থ শাহ্ আমিন পার্ক কমিউনিটি সেন্টারে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সভার আয়োজন করে চন্দনাইশ উপজেলা ও পৌরসভা এলডিপি। পাশাপাশি শাহ্ আমিন শিশু পার্কে উপজেলা আ.লীগ সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে সভা আহবান করে। একশ গজের মধ্যে ২টি দলের সভা ডাকার কারণে এলডিপি তাদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সভা স্থাগিত করে।

মতামত...