,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজের শরীরে আঘাতে চিহ্ন পাওয়া গেছে

dনিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজ ইরফান চৌধুরীর মরদেহে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ।

রোববার দুপুরে ঢামেক হাসপাতালে দিয়াজের মরদেহের পুনঃময়নাতদন্ত শেষে এ কথা জানান তিনি।

দুপুর ২টা ৩৬ মিনিটে দিয়াজের মরদেহের পুনঃময়নাতদন্ত শুরু হয়। চলে ৩টা পর্যন্ত। ভিসেরা পরীক্ষার জন্য দিয়াজের মরদেহ থেকে আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে।

সোহেল মাহমুদ বলেন, তার (দিয়াজ) শরীরে আঘাতের চিহ্ন আছে। তবে এটি কীসের আঘাত তা তদন্তের স্বার্থে বলা যাচ্ছে না। হত্যা না আত্মহত্যা, তা নিশ্চিত হতে আমরা আলামত হিসেবে দাঁত, গলার টিস্যু সংগ্রহ করেছি। পাশাপাশি বিষক্রিয়ায় মৃত্যু হয়েছে কি না তা জানতে তার শরীর থেকে অন্য আলামতও সংগ্রহ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় তিন সদস্যের একটি মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে বলে জানান সোহেল মাহমুদ। এতে তার সঙ্গে ফরেনসিক বিভাগের টিকিৎসক ডা. প্রদীপ ও ডা. কবির সোহেল আছেন।

সোহেল মাহমুদ আরো বলেন, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন তৈরির আগে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে চাই। পাশাপাশি এ ঘটনার তদন্ত কর্মকর্তাদের সঙ্গেও আলাপ করতে হবে। তাহলে বিষয়টি আমাদের কাছে আরো স্পষ্ট হবে।

মরদেহ দাফনের ১৮ দিন পর পুনঃময়নাতদন্তে সকল আলমত সঠিকভাবে পাওয়া গেছে বলে জানান এই চিকিৎসক। তিনি বলেন, শীতের মৌসুম হওয়ায় লাশের কোনো আলামত নষ্ট হয়নি। গরমকাল হলে হয়তো আলামত ঠিকভাবে পাওয়া যেত কি না তা নিয়ে সন্দেহ আছে।

২০ নভেম্বর রাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ নম্বর গেট এলাকায় ভাড়া বাসা থেকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজ ইরফান চৌধুরীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ঘটনার দুই দিন পর ২৩ নভেম্বর ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে আত্মহত্যা উল্লেখ করা হলে দিয়াজের পরিবার তা প্রত্যাখ্যান করে। ২৪ নভেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সহকারী প্রক্টর ও ছাত্রলীগের সভাপতিসহ ১০ জনকে আসামি করে আদালতে হত্যা মামলা করে তার পরিবার।

গত মঙ্গলবার চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিবলু কুমার দে পুনঃময়নাতদন্তের জন্য দিয়াজের মরদেহ তোলার আদেশ দেন। একই সঙ্গে তিন সদস্যের বিশেষজ্ঞ টিম গঠন করে ময়নাতদন্ত করতে ঢামেক হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধানকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এ আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল শনিবার সকাল ৮টার দিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের কবরস্থান থেকে তার মরদেহ তোলা হয়।

প্রাথমিক সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর ওই দিন সকাল ৯টার দিকে মরদেহ নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেয় সিআইডি। দুপুর সোয়া ২টার দিকে দিয়াজের মরদেহ ঢামেক হাসপাতালের মর্গে নিয়ে আসা হয়।

মতামত...