,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

জঙ্গিরা এখন লোক খুঁজে না পেয়ে স্ত্রী-সন্তানদেরকে দলে ভেড়াচ্ছে:প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, ২৬ ডিসেম্বর,বিডিনিউজ রিভিউজ.কম:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের পাশাপাশি গণসচেতনতার কারণে জঙ্গিরা এখন আর লোক খুঁজে পাচ্ছে না। আর সে কারণেই তারা এখন নিজের স্ত্রী ও সন্তানদেরকে দলে ভেড়াচ্ছে। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মি বৈঠকের অনির্ধারিত আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী এই মন্তব্য করেন বলে জানিয়েছেন বৈঠকে উপস্থিত একাধিক মন্ত্রী। শনিবার দক্ষিণখানের পূর্ব আশকোনায় জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের বিষয়ে বলতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। গত ১ জুলাই গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার পর সরকার জঙ্গিবিরোধী অভিযান জোরদার করার পাশাপাশি জঙ্গিবিরোধী সচেতনতা তৈরির জন্য ব্যাপক পদক্ষেপ নেয়ার এই চেষ্টার সফল হওয়ায় জঙ্গিরা এখন আর নতুন করে কাউকে দলে ভেড়াতে পারছে না বলেই মনে করেন তিনি।
মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থিত এক মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী এই বিষয়টির উল্লেখ করে বলেন- এখন আর জঙ্গিরা নিজেদের দলে নেয়ার জন্য লোক পায় না। এ কারণে তারা নিজেদের স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে জঙ্গি কার্যক্রম চালাচ্ছে। মন্ত্রিসভার নির্ধারিত আলোচনার আগে আশকোনায় জঙ্গি আস্তানা নিয়ে আলোচনা হয়। মন্ত্রিসভার সব সদস্যই এ আলোচনায় অংশ নেয়। মন্ত্রীরা জানান, আশকোনা অভিযানে পুলিশের সাহসী পদক্ষেপের প্রসংশা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
একজন মন্ত্রী জানান, অনির্ধারিত আলোচনায় উঠে এসেছে আশুলিয়ার পোশাক খাতও। আজকে প্রায় সব কারখানা খুলে দেয়ায় পোশাক মালিকদের স্বাগত জানান প্রধানমন্ত্রী। তবে একটি পোশাক কারখানা এখনো খুলেনি। সেটিকে নজরদারির মধ্যে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, ওই পোশাক কারখানা কেন খুলেনি সেটি জানা দরকার।’ অবিলম্বে সেটিও খুলে দেয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।
প্রসঙ্গত, আশকোনায় সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানায় যারা ছিলেন তাদের মথ্যে ছিলেন ৩ জন নারী, ৩ টি শিশু এবং একটি কিশোর। এই ৩ নারীর স্বামীই জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে জড়িত ছিলেন অথবা এখনও জড়িত রয়েছেন। এদের একজন হলেন, তালিকাভুক্ত জঙ্গি নেতা মুসার স্ত্রী তৃষ্ণা মুসা, গত ২ সেপ্টেম্বর রূপনগরে নিহত সাবেক সেনা কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী জেবুন্নেসা শিলা এবং সন্দেহভাজন জঙ্গি সুমনের স্ত্রী। এদের মধ্যে জেবুন্নেসা এবং তৃষ্ণা. তাদের সন্তানসহ পুলিশের হাতে ধরা দিয়েছেন।
আর সুমনের স্ত্রী শাকিলা পুলিশের হাতে আত্মসমর্পণের ভান করে আত্মঘাতী হামলার চেষ্টা করেন। বিস্ফোরণে তিনি নিহত হন এবং তার সঙ্গে থাকা চার বছরের শিশু আহত হয়। প্রাণ হারানো আরেক সন্দেহভাজন জঙ্গি কিশোর আফিফ কাদেরী নাবিলের বাবা তানভীরও জঙ্গি তৎপরতায় জড়িত ছিলেন বলে অভিযোগ আছেন। তিনি গত ১০ সেপ্টেম্বর রাজধানীর আজিমপুরে সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানায় অভিযানে নিহত হন।

মতামত...