,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

জঙ্গিরা বহু ডকুমেন্ট পুড়িয়ে দিয়েছে: গাজীপুর নিহত জঙ্গিদের ছবি প্রকাশ

tবিশেষ সংবাদদাতা, বিডিনিউজ রিভিউজঃ গাজীপুর ও টাঙ্গাইলে তিনটি বাড়িতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আজ শনিবার সকাল থেকে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে অভিযান চালিয়েছে। এসব অভিযানে সন্দেহভাজন ১১ জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এর মধ্যে টাঙ্গাইলে দুজন এবং গাজীপুরের হারিনাল এলাকায় দুজন ও পাতারটেকে সাতজন নিহত হয়েছেন। হারিনালে অভিযানে নিহত দুজনের পরিচয় জানিয়েছে র‍্যাব। আজ শনিবার বেলা দেড়টার দিকে সংবাদ t1jpg

সম্মেলনে র‍্যাবের গণমাধ্যম শাখার মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান বলেন, নিহতরা হলেন রাশেদ মিয়া ও তৌহিদুল ইসলাম। ওই বাড়ির মালিকের কাছ থেকে তাদের নাম জানা গেছে। তাদের বাড়ি নরসিংদীতে। সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবুল কালাম আজাদ জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি নাইন এমএম পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন, একটি একে টোয়েন্টি টু আর তিনটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করা হয়েছে। র‍্যাব-১-এর গাজীপুর অঞ্চলের কমান্ডার মহিউল ইসলাম বলেন, লাশ দুটি উদ্ধার করে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে বেলা পৌনে ১১টার দিকে গাজীপুরের পাতারটেক এলাকার একটি দোতলা বাড়িতে অভিযান শুরু করে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট। বিকালে অভিযান শেষে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার ছানোয়ার হোসেন সাতজনের মৃত‌্যুর খবর সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন। তবে তাৎক্ষণিক নিহতদের পরিচয় জানাতে পারেননি তিনি।
এছাড়াও টাঙ্গাইল শহরের কাগমারা মির্জামাঠ এলাকায় একটি বাড়িতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালিয়েছে। র‍্যাব বলছে, সেখানে দুজন ‘জঙ্গি’ নিহত হয়েছে। তাদের পরিচয় জানা যায়নি। আজ শনিবার সকাল ১০টার দিকে ওই অভিযান শুরু হয়। র‍্যাব-১২-এর তিন নম্বর কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে বাড়িটিতে অভিযান চালানো হয়। ভেতরে ঢোকার পর এক ‘জঙ্গিকে’ গ্রেপ্তার করতে গেলে ধস্তাধস্তি হয়। এ সময় অন্য ‘জঙ্গিরা’ র‍্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ার চেষ্টা চালায়। র‍্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এতে দুজন ‘জঙ্গি’ গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন জানান, গাজীপুরের হারিনালের পাতারটেক এলাকার জঙ্গি আস্তানায় পুলিশি অভিযান শুরুর পর সেখানে থাকা জঙ্গিরা নগদ টাকাসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট পুড়িয়ে ফেলেছে। যেটা তারা করেছিল কল্যাণপুর ও নারায়ণগঞ্জের পাইকপাড়ার জঙ্গি আস্তানায়। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি করল গাজীপুরের এই জঙ্গি আস্তানায়। আস্তানায় অভিযানের আগে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগের সদস্যরা জঙ্গিদের আত্মসমর্পণ করার জন্য হ্যান্ডমােইকে বার বার আহ্বান জানায়। কিন্তু তারা এ সুযোগ গ্রহণ করেনি বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল সাংবাদিকদের জানান। বিকেল পৌনে ৪টার দিকে অভিযান শেষে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজমের সদস্য দেখতে পান রুমের ভেতরেই জঙ্গিরা নগদ টাকা ও অন্যান্য ডকুমেন্ট আগুন দিয়ে পুুড়িয়েছে। র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান জানান, গাজীপুরের পাতারটেক এলাকায় ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের একটি দোতলা বাড়ি থেকে একটি একে-২২, একটি নাইন এমএম পিস্তল, বোমা তৈরির সরঞ্জাম, চাপাতি ও বেশ কয়েক রাউন্ড গুলিও উদ্ধার করা হয়েছে। সেখান থেকে সন্দেহভাজন সাত জঙ্গির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এদিকে, গাজীপুরের পশ্চিম হারিনালে আরেকটি জঙ্গি আস্তানায় আজ শনিবার ভোরে অভিযানে দুই জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান। এছাড়াও টাঙ্গাইল শহরের কাগমারা মির্জামাঠ এলাকায় একটি বাড়িতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালিয়েছে। র‍্যাব বলছে, সেখানে দুজন ‘জঙ্গি’ নিহত হয়েছে। তাদের পরিচয় জানা যায়নি। আজ সকাল ১০টার দিকে ওই অভিযান শুরু হয়। র‍্যাব-১২-এর তিন নম্বর কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে বাড়িটিতে অভিযান চালানো হয়। ভেতরে ঢোকার পর এক ‘জঙ্গিকে’ গ্রেপ্তার করতে গেলে ধস্তাধস্তি হয়। এ সময় অন্য ‘জঙ্গিরা’ র‍্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ার চেষ্টা চালায়। র‍্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এতে দুজন ‘জঙ্গি’ গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়।

মতামত...