,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

জামাত- শিবির যোগ দিচ্ছে আইএসে ?

is membrনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃঢাকা, মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট। ইসলাম ধর্মের সত্যিকার অনুসরণে ‘খেলাফত’ প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি নিয়ে এ সংগঠনের জন্ম। মধ্যপ্রাচ্যের ইরাক ও সিরিয়ায় রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলার সুযোগে দেশ দু’টির কিছু অংশ দখল করে উগ্রপন্থি এ সংগঠন আলোচনায় আসে।

যদিও এ সংগঠন প্রতিষ্ঠার পেছনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের প্রত্যক্ষ মদদ রয়েছে বলে অভিযোগ আছে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ ও ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদ এই সংগঠনের মুজাহিদদের সশস্ত্র প্রশিক্ষণ, অস্ত্র এবং অর্থ সহায়তা দিয়েছে বলেও বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে উঠে এসেছে।

 is  abu jandalআইএস সাময়িকী ‘দাবেক’ আগামীর এ ‘খেলাফত’ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা নিয়ে সাময়িকীর সর্বশেষ ও চতুর্দশ সংখ্যায় দক্ষিণপূর্ব এশিয়া অঞ্চলকে আইএস প্রস্তাবিত ‘খেলাফত’-এর অংশ করার  কর্মপরিকল্পনা নিয়ে কথা বলেন সংগঠনের বাংলাদেশ শাখার কথিত প্রধান শেখ আবু ইব্রাহিম আল-হানিফ। বুধবার (১৩ এপ্রিল) সংগঠনের এ সাময়িকীতে শেখ আবু ইব্রাহিমের এক সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়। কথিত আইএস প্রধানের এটি ছদ্মনাম। তার সত্যিকার পরিচয় গোপন রাখা হয়। শেখ আবু ইব্রাহিম ‘দাবেক’-কে বলেন, ‘বাংলাদেশে জামায়াতে ইসলামীর মাঠপর্যায়ের নেতা-কর্মীদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ আইএস-এ যোগ দিচ্ছে। রাজনৈতিকভাবে চাপের মুখে থাকায় আইএসকে নতুন রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বেছে নিচ্ছে জামায়াত কর্মীরা।’

মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানো এবং মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশবিরোধী অবস্থানের কারণে রাজনৈতিক দল হিসেবে নিষিদ্ধ হওয়ার সম্ভাবনার মুখে দলের নিচের পর্যায়ের কর্মীরা রাজনৈতিক অবস্থান পরিবর্তন করছে বলে দাবি করেন শেখ আবু ইব্রাহিম আল-হানিফ।

অবশ্য ক্ষমতাসীন সরকারের পক্ষে বারবার বলা হচ্ছিল যে, জামায়াত দেশে জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে সম্পৃক্ত। নেতাদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী বিচার শুরু হওয়ার পর সারাদেশে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির পর এ দাবি আরো জোরালো হয় সরকারের পক্ষে। তবে জামায়াতের নেতারা সরকারি দলের নেতাদের এ দাবি নাকচ করে আসছেন।

  ওই সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশে আইএস সংগঠনের কথিত প্রধান বলেন, ‘ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশে শক্ত অবস্থান গড়ে তুলতে চায় আইএস। কেননা এখান থেকে প্রতিবেশি ভারত ও মিয়ানমারে তৎপরতা চালানো সহজ হবে।’

বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে ‘ভারতপন্থী’ এবং বিএনপিকে ‘পাকিস্তানপন্থী’ বলে অভিহিত করেন কথিত এ আইএস নেতা।
শেখ আবু ইব্রাহিম আল-হানিফ বলেন, “বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ ইসলামকে ভালবাসলেও ‘মুরতাদ ও নাস্তিকদের’ প্রভাবে কোরআন ও সুন্নাহ সঠিকভাবে মেনে চলে না।”

বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ে বিদেশিসহ বিভিন্ন ধর্মাবম্বীদের ওপর হামলা আইএস করেছে বলে দাবি করে শেখ আবু ইব্রাহিম বলেন, ‘কাফের, দলচ্যুত, কাদিয়ানি ও হিন্দুদের বিরুদ্ধে এ অভিযান চালানো হয়েছে।’

আইএস পরিচালিত ‘দাবেক’ সাময়িকীর সর্বশেষ এ সংখ্যায় প্রশিক্ষণের সময় সিরিয়ায় গুলিবিদ্ধ হয়ে বাংলাদেশি এক তরুণের নাম প্রকাশ করেছে। ওই তরুণের নাম আবু জান্দাল আল-বাঙালি। পারিবারিক পরিচয়ে বলা হয়েছে, আবু জান্দালের বাবা সামরিক বাহিনীর একজন কর্মকর্তা ছিলেন। ওই কর্মকর্তা ২০০৯ সালে ২৫  ফেব্রুয়ারি পিলখানায় বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) সদর দপ্তরে বিদ্রোহের সময় নিহত হন।

আবু জান্দালের আবেগঘন একটি চিঠিও সাময়িকীটি প্রকাশ করেছে। ওই চিঠিতে আবু জান্দাল ‘ব্রাদার্স অব ইসলাম’ সম্বোধন করে তরুণদের আইএস সংগঠনের যোগ দিতে উদ্বুদ্ধ করেছেন।

 

মতামত...