,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

জামাল খানে ডাক্তার হাশেম চত্বরে নান্দনিক ফোয়ারা উদ্বোধন করলেন মেয়র নাছির

cনাছির মীর, বিডিনিউজ রিভিউজঃ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, সুন্দর মনের মানুষদের সহযোগিতায় চট্টগ্রামকে নান্দনিক নগরীতে পরিণত করা হবে। এ কর্মসূচীর আওতায় প্রাথমিক পর্য্যায়ে ২১ নং জামালখান ওয়ার্ডকে নান্দনিকতায় সাজানো হচ্ছে। মেয়র ক্লিন ও গ্রিন সিটির ভিশন তুলে ধরে বলেন, এয়ারপোর্ট থেকে চট্টগ্রামের সিটি গেইট,কালুরঘাট,শাহ আমানত ব্রীজ,চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ১ নং গেইট এর সিটি এলাকা পর্যন্ত নগরীর গোলচত্বর,মিডআইল্যান্ড,ফুটপাত ও আশপাশ এলাকা সরকারী, আধা সরকারী, স্বায়িত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান, কর্পোরেট হাউস, ব্যাংক, বীমা, ইন্সুরেন্স, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ সর্বত্র বিউটিফিকেশনের মাধ্যমে সবুজে ঢেকে দেয়া হবে। পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ার লক্ষ্যে ডোর টু ডোর বর্জ্য সংগ্রহ ও অপসারন কর্মসূচী হাতে নেয়া হয়েছে। মেয়র বলেন, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের দৃষ্টিকোণ থেকে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে শানিত করার লক্ষ্যে নদী, পাহাড় ও সমতলের চট্টগ্রামকে বিশ্বমানের বাসপোযুগী শহরে পরিণত করা হবে। বিশ্বের সামনে বাংলাদেশের চট্টগ্রামকে অপরুপ সাজে তুলে ধরার এ প্রয়াসে মেয়র সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। সাংসদ জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু ও অন্যদের সৌজন্যে জামালখান ওয়ার্ডের ডাক্তার এম এ হাসেম চত্বরে নান্দনিক সাজে স্থাপিত ফোয়ারা উদ্বোধন উপলক্ষে ২০ অক্টোব বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত সুধি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এসব কথা বলেন। স্থানীয় কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন এতে সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, দৈনিক আজাদী পত্রিকার সম্পাদক এম এ মালেক, সাবেক কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফা কাঞ্চন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগ এর বিজ্ঞাণ ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মানস রক্ষিত, সদস্য হাজী বেলাল আহমদ, জাতীয়পার্টির উত্তর জেলার সাধারন সম্পাদক মো. সফিকুর রহমান চৌধুরী, কাউন্সিলর গিয়াস উদ্দিন, ২১ নং জামালখান ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি আবুল হাশেম বাবুল, জামালখান যুবলীগের আহবায়ক মোহাম্মদ আইয়ুব, লায়ন আশিষ ভট্টচার্য, মৃদুল দাশ। মেয়র ও এমপি যৌথভাবে ফলক উম্মোচন করে নতুন এ ফোয়ারার উদ্বোধন করেন। উল্লেখ্য যে, প্রায় ২২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে দৃষ্টি নন্দন এ ফোয়ারা নির্মিত হয়েছে। ইতোপুর্বে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন জামাল খান এ চত্বরটিকে ডা. এম এ হাসেম চত্বর নামকরণ করে। সে কারনে মোড়ের গাছ ও ফলক অক্ষত রেখে নতুন আঙ্গিকে চত্বরটিকে লাইটিং, মিউজিক সিস্টেম, নান্দনিক বাগান নির্মাণ করা হয়েছে। এ ফোয়ারায় পানির বিভিন্ন আঙ্গিকের ফ্লো হবে এবং ফ্লো’র সাথে থাকছে মিউজিক। প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬ টা থেকে রাত ১০ পর্যন্ত এ ফোয়ারা চালু থাকবে। হেলদী সিটির এ জামালখান ওয়ার্ডকে প্রকৃতি ও সংস্কৃতির মিলন মেলা হিসেবে দৃষ্টি নন্দন মডেল ওয়ার্ড হিসেবে অন্যান্য ওয়ার্ডগুলো অনুসরণ করবে। নান্দনিক এ ফোয়ারায় ভিতরে চারপাশে থাকছে বৈচিত্রময় গাছ গাছালি। রাস্তার পাশের দেয়ালে টেরাকোটায় শোভা পাবে ১৯৫২ এর ভাষা আন্দোলন, ৬৯ এর গণঅভ্যূত্থান মহান মুক্তিযুদ্ধ সহ বাঙালির ইতিহাস ও ঐতিহ্য। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি সাংসদ জিয়াউদ্দিন আহমদ বাবলু বলেন, চট্টগ্রাম এর মানুষের কল্যাণ করাই আমার দায়িত্ব। চট্টগ্রামকে নিরাপদ সন্ত্রাসমুক্ত নান্দনিক একটি শহর দেখতে চাই। যতদিন বেঁচে থাকব মানুষের সেবা করে যাব। দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এম এ মালেক বলেন, চট্টগ্রামের ইতিহাস ও ঐতিহ্য সংরক্ষণে মেয়রের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। ডা. এম এ হাশেম প্রথম এম বি বি এস হিসেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন তাঁর নামে এ চত্বর নাম করণ করে গুণী ব্যক্তিদের সম্মান করেছেন। প্রসঙ্গক্রমে তিনি বলেন, আমার পিতা দৈনিক আজাদীর প্রতিষ্ঠাতা ইঞ্জি. আবদুল খালেক এর নামে আন্দরকিল্লা চত্বর নাম করন করে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন আমাদেরকে গৌরবান্বিত করেছে। তিনি আশা করেন, সকলের সম্মিলিত প্রয়াসে মেয়রের ভিশন ক্লিন ও গ্রিন সিটি বাস্তবায়িত হবে।

মতামত...