,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

জুন ক্লোজিং তাই ……

আবদুল মান্নান, মানিকছড়ি (খাগড়াছড়ি) প্রতিবেদক, বিডি নিউজ রিভিউজ ডটকমঃ ৩০ জুন ইংরেজি অর্থ বছরের শেষ দিন। তাই জুন ক্লোজিং ঘিরে মানিকছড়ি ও লক্ষ্মীছড়ির অফিস-আদালতে চলছে শেষ মূর্হুত্বের তোড়-জোড়। প্রাপ্ত অর্থ ব্যয়ের (অফিস খরচ) ও টি.এ, ডি.এ’র বিল-ভাউচার প্রস্তুতের পাশাপাশি সুযোগ খুঁজছে অনেকে ভূয়া বিল-ভাউচার বানাতে। আর এসব অনিয়মকে নিয়মে পরিনত করতে সায় দিচ্ছে ট্রেজারী অফিস!
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইংরেজি অর্থ বছরের শেষ দিন অর্থ্যাৎ ৩০ জুনকে সামনে রেখে অফিস-আদালতে ব্যস্ত সময় পার করছে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। অর্থ বছরে প্রাপ্ত টাকার হিসাব-নিকাশের পাশাপাশি ব্যয়ীত অর্থের (অফিস খচর) অতিরিক্ত অর্থ ফেরৎ না দিয়ে কিভাবে বিল-ভাউচার দেখানো যায় সে জন্য অফিস সহকারীরা ধর্ণা দিচ্ছে ট্রেজারী অফিসে। ‘কিছু তোমার, কিছু আমার’ এ চুক্তিতে ট্রেজারীর অসাধু কর্মকর্তার যোগ-সাজশে ভূয়া বিল ভাউচার করে তুলে নিচ্ছে অব্যয়িত অফিস খরচ ও টি.এ, ডি.এ’র অর্থ। এছাড়া এলজিইডি, প্রকল্প বাস্তবায়ন (পিআইও) অফিসে চলছে প্রকল্পের শেষ কিস্তি বাস্তবায়ন বিষয়ক মনিটরিং। মে মাসের মাঝামাঝি কিংবা শেষ সময়ে যেসব বরাদ্ধ এসেছে সেগুলো বান্তবায়ন করতে গিয়ে অনেকটা বিপাকে পড়তে হচ্ছে উন্নয়নমুখী দপ্তরগুলোকে। আর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে অর্থ বছরের শেষ সময়ে স্কুল ক্ষুদ্র সংস্কার বাবত যেসব অর্থ দেওয়া হয়, সে অর্থ লোপাটের চিত্র এখানে পুরানো। এবারও ৪৪টি প্রতিষ্ঠান (স্কুল) ক্ষুদ্র সংস্কার বাবত গড়ে ৫ হাজার টাকা এসেছে । আর দু’টি স্কুলে এসেছে ২ লক্ষ টাকা। ফলে শিক্ষা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা ওইসব অর্থ নয়-ছয় করে কিছু তোমার, কিছু আমার এ নীতি অনুসরণ করতে কাজ শুরু করেছেন। ট্রেজারী খরচ, ইস্টিমিট তৈরি খরচ, বিল প্রস্তুত খরচ, অফিস খরচ , কর্মকর্তার খরচ। এতেই বরাদ্ধের বারোটা! এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সেক্রেটারী মো. ফরিদ আহম্মদ বলেন, অর্থ বছরের শেষ মূর্হুত্বে তাড়াহুড়ো করে এত অল্প বরাদ্ধ আসা আর না আসা সমান। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আবদুল জব্বার বলেন, অর্থ বছরের শেষ সময়( মে-জুন) মাস বর্ষা কাল তাই এ সময়ে প্রাপ্ত বরাদ্ধ ব্রীজ, কালর্ভাট( নির্মাণাধীন) প্রকল্প বাস্তবায়নে সর্তক হতে হয়। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার বৃষ্টি কম থাকায় যথা সময়ে সকল প্রকল্প বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

মতামত...