,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

জেলা পরিষদ নির্বাচন ঘিরে সীতাকুণ্ডের রাজনীতিতে প্রাণ চাঞ্চল্য

কামরুল ইসলাম দুলু, সীতাকুণ্ড,বিডিনিউজ রিভিউজ.কম: আগামী  ২৮ ডিসেম্বর প্রথমবারের মত চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এতে ভোটার হবেন প্রত্যেক উপজেলার চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, কাউন্সিলর ও সবকটি ইউপি চেয়ারম্যান এবং মেম্বাররা।এ উপলক্ষে ইতিমধ্যে জেলা নির্বাচন কার্যালয় থেকে
মনোনয়নপত্র বিতরণের পর ১ ডিসেম্বর তা জমাদানের প্রক্রিয়াও সম্পন্ন করা হয়। এদিকে  জেলা পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে সীতাকুণ্ডের রাজনৈতিক অঙ্গনেও। এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে সীতাকুণ্ডে রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে। চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের ২নং সীতাকুণ্ড ওয়ার্ডের নির্বাচনী সীমানা সীতাকুণ্ডের ৯টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার সাথে মিরসরাইয়ের ৪টি ইউনিয়ন সংযুক্ত হওয়ায় এই ওয়ার্ড নিয়ে দুই উপজেলার রাজনীতি এখন সরগরম। জানা যায়, জেলা পরিষদ নির্বাচনে সীতাকুণ্ড ২নং ওয়ার্ডে সীমানা নির্ধারণ করা হয় সীতাকুণ্ডের সৈয়দপুর, বারৈয়াঢালা, মুরাদপুর, বাড়বকুণ্ড, বাঁশবাড়িয়া, কুমিরা, সোনাইছড়ি, ভাটিয়ারী,সলিমপুরসহ ৯টি ইউনিয়ন, সীতাকুণ্ড পৌরসভা ও মিরসরাইয়ের মায়ানি, হাইতকান্দি, শাহেরখালি ও ওয়াহেদপুর ৪টি ইউনিয়ন পরিষদ। এ ১৪টি ইউনিয়নের মোট ভোটার সংখ্যা ১৮৫ জন। প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিতব্য এ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের ২নং সীতাকুণ্ড ওয়ার্ডে সদস্য পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৪ জন। তারা হলেন, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মহিউদ্দিন (বাবলু), সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আ ম ম দিলশাদ, সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী ও
মীরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা জিতেন্দ্র প্রসাদ নাথ (মন্টু)। ১৪টি ইউনিয়নের মোট ভোটার সংখ্যা ১৮৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১৪২ জন ও মহিলা ভোটার৪৩ জন। যদিও এই নির্বাচনে সাধারণ জনগণ সবার ভোট দেওয়ার কোন সুযোগ নেই, শুধুমাত্র নির্বাচিত জন প্রতিনিধিরাই ভোটার তবুও নির্বাচনী আমেজ লক্ষ্য করা যাচ্ছে সবার মাঝে।

মতামত...