,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

ডিজিটাল বই শ্রেণি শিক্ষায়

প্রাথমিক শিক্ষার এনরোলমেন্টে বাংলাদেশ আজ বিশ্ব দরবারে আলোচিত। কিন্তু শিক্ষার সঙ্গে আনন্দযোগ খুবই জরুরি। সরকারও এ বিষয়ে পিছিয়ে থাকতে চায় না। তাই প্রযুক্তির সহায়তায় নতুন দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে এ ধরনের কর্মসূচি জাতীয় শিক্ষাব্যবস্থাকে এগিয়ে দেবে। শিক্ষার সঙ্গে আনন্দযোগে বর্তমান সরকার বেশ আগ্রহী। সম্প্রতি ‘ডেভেলপিং ইন্টারঅ্যাকটিভ মাল্টিমিডিয়া ডিজিটাল ভার্সন অব প্রাইমারি এডুকেশন কনটেন্ট’ শিরোনামের কর্মসূচির আওতায় ‘ডিজিটাল কনটেন্ট উপস্থাপনা’ অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এসব কথা বলেন।

জনগণকে জনসম্পদে রূপান্তরে আলোকিত শৈশবের কোনো বিকল্প নেই। আলোকিত শৈশবের অন্যতম ভিত্তি হল প্রাথমিক শিক্ষা। একটি প্রযুক্তিময় আলোকিত শৈশব এবং সুশিক্ষিত জাতি গড়ে তুলতে এবং প্রাথমিক শিক্ষাকে আরও কার্যকর এবং আকর্ষণীয় করতে এ কর্মসূচি কাজ করছে।

এ শিক্ষা কর্মসূচি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে এবং ন্যাশনাল কারিকুলাম অ্যান্ড টেক্সটবুক বোর্ড, বাংলাদেশের (এনসিটিবি) সিলেবাসের আলোকে ও প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ৪ কোটি ৯৯ লাখ টাকা ব্যয়ে এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের মেয়াদকাল মার্চ ২০১৪ থেকে ফেব্রুয়ারি ২০১৬।

কর্মসূচি বাস্তবায়নে কারিগরি সহযোগিতা করছে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক ও সেভ দ্য চিলড্রেন। প্রাথমিক স্তরের মোট ৩৪টি বইয়ের মধ্যে ১৭টি বই মাল্টিমিডিয়া ডিজিটাল সংস্করণে রূপান্তর করা হচ্ছে। এর মধ্যে ইংরেজির ৫টি বই রূপান্তর করবে সেভ দ্য চিলড্রেন। বাকি ১২টি বই রূপান্তর করবে ব্র্যাক। ১৭টি বইয়ের মধ্যে প্রথম শ্রেণির ৩টি, দ্বিতীয় শ্রেণির ৩টি, তৃতীয় শ্রেণির ৩টি, চতুর্থ শ্রেণির ৪টি এবং পঞ্চম শ্রেণির ৪টি (গণিত, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ইংরেজি, বিজ্ঞান) বইকে মাল্টিমিডিয়া ডিজিটাল সংস্করণে রূপান্তর করা হচ্ছে।

মতামত...