,

সর্বশেষ
bnr ad 250x70 1

তালাকের প্রতিশোধ নিতেই স্ত্রী ও মেয়েকে এসিড নিক্ষেপ

aনিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ রিভিউজঃ নিজের সিএনজি অটোরিকশার ব্যাটারিতে ব্যবহৃত সালফিউরিক এসিড (ব্যাটারির পানি) সাবেক স্ত্রী শেলি আক্তার ও তার মা হোসনে আরা বেগমের মুখে ছুঁড়ে মেরেছিল জানে আলম ওরফে জাহাঙ্গীর। তালাকের প্রতিশোধ নিতে এসিড ছুঁড়ে মেরেছে বলে পুলিশকে জানিয়েছে সে। এসিড ছুঁড়ে মারার চারদিনের মাথায় জাহাঙ্গীরকে (৩০) গত ২৯ সেপ্টেম্বর ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে নগরীর কোতোয়ালী থানা পুলিশ।

শুক্রবার৩০ সেপ্টেম্বরবিকেলে তাকে চট্টগ্রামে আনা হয় এবং উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) কার্যালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি করা হয়। পুলিশের গাড়ি থেকে নামানোর সময় জাহাঙ্গীর সাংবাদিকদের বলে, সে (শেলি) আমাকে তালাক দিয়েছে। আমি তো তাকে তালাক দিইনি। সে এখনও আমার স্ত্রী। এসিড মারার কথা স্বীকার করে জাহাঙ্গীর সাংবাদিকদের বলে, আমার অটোরিকশায় ব্যাটারির যে পানি আছে সেটাই মেরেছি।

সিএমপির দক্ষিণ জোনের উপ-কমিশনার (ডিসি) এম মোস্তাইন হোসেন বলেন, ভিকটিম শেলি আক্তার তাকে এক বছর আগে তালাক দেয়। জাহাঙ্গীর অটোরিকশা চালক হলেও ভবঘুরে টাইপের ছিল। এজন্য শেলি তাকে তালাক দেয়। কিন্তু জাহাঙ্গীর এখনও তার স্ত্রীকে চায়। এটা নিয়ে দ্বন্দ্ব থেকে সে এসিড ছুঁড়ে মেরেছে বলে আমাদের জানিয়েছে। তবে হোসনে আরা বেগমকে এসিড মারার পরিকল্পনা জাহাঙ্গীরের ছিল না বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি জানান, জাহাঙ্গীর জানিয়েছে শেলিকে ছোঁড়া এসিড হোসনে আরা বেগমের শরীরেও পড়ে।

সংবাদ সম্মেলনে নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি-দক্ষিণ) শাহ মো. আব্দুর রউফ বলেন, ২৬ সেপ্টেম্বর ভোর সাড়ে চারটার দিকে জাহাঙ্গীর সিআরবি ফ্রান্সেস রোডে জনৈক নব্যার বস্তিতে ঘুমন্ত অবস্থায় শেলি ও তার মাকে এসিড ছুঁড়ে মারে। এতে তাদের মুখমণ্ডলসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে যায়। তিনি জানান, জাহাঙ্গীর এসিড ছুঁড়ে মারার পর অটোরিকশা এবং নিজের জুতা ফেলে পালিয়ে যায়। পুলিশ ওইদিনই সেগুলো জব্দ করে।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে শাহ মো. আব্দুর রউফ বলেন, শেলী এবং তার মায়ের অবস্থা খুব বেশি ঝুঁকিপূর্ণ নয়। নরমালি এসিড আক্রান্ত রোগীর যে অবস্থা হয়, তার চেয়ে উনারা সুস্থ আছেন।

মতামত...